মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই, ২০১৮, ১ শ্রাবণ ১৪২৫

অথচ এই গেইলকে নিলামে কেউ কিনতে চায়নি!

ক্রীড়া ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ এপ্রিল ২০১৮, সোমবার ০৫:৫৯ পিএম

অথচ এই গেইলকে নিলামে কেউ কিনতে চায়নি!

ঢাকা: ক্রিস গেইল যে ফুরিয়ে যাননি সেটি প্রথম ম্যাচেই বুঝিয়ে দিলেন। অথচ এই গেইলকে বেঙ্গালুরুর নিলামে কোনো দল নিতে চাইছিল না। তৃতীয়বারে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব পানির দরে অর্থাৎ ব্রেস প্রাইস দুই কোটি রুপিতে কিনে নেয়। একবার ভাবুন, যেখানে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের রশিদ খান ৯ কোটি রুপি পান সেখানে গেইলের দাম মাত্র ২ কোটি। নিশ্চয় মনের ভেতর একটা ক্ষোভ পুষে রেখেছিলেন ক্যারিবিয়ান দানব।

তারওপর প্রথম দুই ম্যাচে গেইলকে বসিয়ে রেখেছিল পাঞ্জাব। যেটা মনে হয় আরও তাঁতিয়ে দিয়েছিল টি-টোয়েন্টির ইউনিভার্স বস’কে। যে ক্ষোভটা গিয়ে পড়ল চেন্নাইয়ের বোলারদের ওপর। আর গেইল-ঝড় উঠলে যে কোনো বোলারেরই কিছু করার নেই সেটি তো সবার জানা। ৩৩ বলে খেললেন ৬৩ রানের ইনিংস।

যদিও গেইলের মঞ্চে নায়ক হয়ে যাচ্ছিলেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। কিন্তু অতিমানবীয় ইনিংস খেলেও চেন্নাই সুপার কিংসকে জেতাতে পারলেন না তিনি।  রোববার  (১৫ এপ্রিল) পাঞ্জাবের হয়ে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন গেইল।  প্রথম ম্যাচেই বুঝিয়ে দিলেন, তিনি ফুরিয়ে যাননি। ৩৩ বলে ৬৩ রান করলেন। মারলেন সাতটি চার, চারটি ছয়। পাঞ্জাব স্কোরবোর্ডে ১৯৭ রান তুলে ফেলার পরে বোঝা গিয়েছিল, চেন্নাইয়ের কাজটা কঠিন হবে। কিন্তু সেই কঠিন কাজটাই প্রায় সম্ভব করে ফেলেছিলেন ধোনি।

৪৪ বলে অপরাজিত ৭৯ রান করে। তাঁর ইনিংসে রয়েছে ছয়টি চার, পাঁচটি ছয়।

শেষ ওভারে দরকার ছিল ১৭ রান। কিন্তু ১২ রানের বেশি দেননি মোহিত শর্মা। অফস্টাম্পের বাইরে ইয়র্কার লেংথে বল রেখে ধোনিকে আটকে দিলেন তিনি। ম্যাচ শেষ করতে করতেও করা হলো না ধোনির। পাঞ্জাব জিতে গেল চার রানে।

ম্যাচের পরে ধোনি বলেন, ‘আমরা ভেবেছিলাম, দ্বিতীয় ইনিংসের সময় শিশির পড়বে। কিন্তু সে রকম কিছু হয়নি। ক্রিস গেইলের ইনিংস আর মুজিব-উর-রহমানের বোলিং ম্যাচটা জিতিয়ে দিল পাঞ্জাবকে।’ আফগানিস্তানের তরুণ স্পিনার মুজিব তিন ওভারে মাত্র ১৮ রান দেন।

ইনিংসের মাঝপথে টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে গেইল বলেন, ‘আজ সকালে একটা টেক্সট মেসেজ পাই। যাতে জানানো হয়, আমি খেলছি। সুযোগ পেয়ে ভালো লাগছে। তবে আইপিএলে খেলার সুযোগ না পেলেও জীবন থেমে থাকত না।’

সোনালীনিউজ/আরআইবি/এমএইচএম