রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

আইএস-এর পছন্দ জিমেইল

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০১ পিএম

আইএস-এর পছন্দ জিমেইল

আইএস এবং অন্যান্য 'জিহাদি' দলগুলো তাদের যোগাযোগের ক্ষেত্রে গোপন পরিকল্পনা করতে ‘সিগনাল’, ‘টেলিগ্রাম’ এবং ‘হোয়াটসঅ্যাপ’ ব্যবহার করছে। এ ছাড়াও ইয়াহু মেইলের বদলে তারা জিমেইল বেশি পছন্দ করে, এমন খবর প্রকাশ করেছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

জিহাদিরা যখন 'পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে' আক্রমণ চালায়, তখন তারা কোন কোন প্রযুক্তি ব্যবহার করছে তা নিয়ে নতুন এক প্রতিবেদনের বরাতে এ খবর প্রকাশ করে সংবাদমাধ্যমটি। এক্ষেত্রে উগ্রপন্থী দলগুলোকে বোঝাতে 'জিহাদি' শব্দটি ব্যবহার করে সিএনএন।

মোবাইলে বিনামূল্যে চ্যাটিং সেবাদাতা টেলিগ্রাম, ৩৪ শতাংশ জিহাদিরা যোগাযোগের জন্য ব্যবহার করছে বলে এক গবেষণায় জানিয়েছে সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান ‘ট্রেন্ড মাইক্রো’।

অনুসন্ধানকারীরা সন্ত্রাসীদের ইন্টারনেট ফোরাম পর্যবেক্ষণ করে দেখেছেন তাদের ২ হাজার ৩০১টি ইউজার অ্যাকাউন্ট রয়েছে।

এ ছাড়াও গবেষণায় নিশ্চিত করা হয়েছে যে, আইএস তাদের গোপন বার্তা পাঠানোর জন্য টেলিগ্রাম অ্যাপ ব্যবহার করে। টেলিগ্রাম, রাশিয়ান এক উদ্যোক্তার তৈরি একটি যোগাযোগ অ্যাপ।

ফেইসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ এবং উইকার ব্যবহার করছে ১৫ শতাংশ জিহাদি। অনুসন্ধানকারীরা জানান, হোয়াটসঅ্যাপ-এ ১৬ জন সন্ত্রাসীর উপর নজরদারি করে তাদের আটক করার কারণে মূলত এর জনপ্রিয়তা কমে যায়। অল্প সংখ্যক জিহাদি ‘শিওরস্পট’ এবং ‘থ্রিমা’-এর মত চ্যাটিং সেবা ব্যবহার করে।

সন্ত্রাসীরা জনপ্রিয় ইমেইল সেবা জিমেইলের প্রতি ঝুঁকে পড়ছে। ট্রেন্ড মাইক্রো জানায়, ৩৪ শতাংশ জিহাদি জিমেইল ব্যবহার করে থাকে। জিমেইলে শুধু ব্যবহারকারীর নাম গোপন থাকে। এফবিআই গুগলের সহায়তায় সহজেই ব্যবহারকারীর ইন্টারনেট প্রটোকল বা আইপি ঠিকানা বের করতে পারে।

জিহাদিদের ব্যবহারের দিক থেকে ‘মেইল২টর’ (Mail2Tor)  দ্বিতীয় এবং ‘সিগাইন্ট’ (SIGAINT)  তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। প্রায় ২০ শতাংশ জিহাদি এই ইমেইল সেবাগুলো ব্যবহার করে থাকে। বিশেষ করে ইমেইল সেবাগুলোতে আইন প্রয়োগ করে চিহ্নিত করা কঠিন, যেহেতু তাদের একটি বড় অংশ বেনামীভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করে।

‘রাগডইনবক্স’ এবং ‘ইয়াহু’ মেইল জিহাদিদের কাছে কম জনপ্রিয় বলে জানান অনুসন্ধানকারীরা। ট্রেন্ড মাইক্রো-এর তাদের গবেষণায় বলছে জিহাদিরা গোপনীয়তা রক্ষায় অসাধারণ কিছু টুল ব্যবহার করে। ‘মোজাহিদিন সিক্রেটস’ নামে এরকম একটি টুল রয়েছে যা ইমেইলের সংকেতায়ন করতে পারে।

এ ছাড়াও তারা ‘আসরার আল-দারদাশাহ্’ নামে একটি টুল তৈরি করে, যা সার্বজনীন চ্যাটিং সফটওয়্যার ‘পিজিন’ (Pidgin)  কে আটকে দিতে পারে। এর মাধ্যমে তারা ‘এআইএম’, ‘গুগল টক’, ‘এমএসএন’ এবং ‘ইয়াহু’ অ্যাকাউন্টের কথোপকথনকে বদলে দিতে পারে।

গবেষকদের মতে একটি প্রতিষ্ঠিত সংগঠন রয়েছে, যা জিহাদি সফটওয়্যারগুলোকে মন্থর করে দিতে পারে। ২০১৩ সালে গ্লোবাল ইসলামিক মিডিয়া ফ্রন্ট ‘তাশফির আল-জাওয়াল’ নামে একটি অ্যাপ তৈরি করে, যা মোবাইলকে সংকেতায়িত করতে পারে। একই বছর ‘আল-ফজর’ নামক একটি টেকনিক্যাল কমিটি ‘এএমএন আল-মুজাহিদ’ নামের একটি টুল তৈরি করে, যা ইমেইলের মেসেজ, এসএমএস-কে বদলে দিতে পারে।

এ বিষয়ে সাইবার নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ রবার্ট গ্রাহাম বলেন, “সব কিছুই যে কাজ করবে তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। সন্ত্রাসীদের তাদের নিজেদের জন্য গোপনীয় টুল তৈরি করা চ্যালেঞ্জিং হবে।”

সোনালীনিউজ/ঢাকা/আকন

add-sm
Sonali Tissue
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩