মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৭, ৩ মাঘ ১৪২৩

আইনের পরিবর্তন আনার লক্ষণই আমি দেখতে পাচ্ছি: মার্ক

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৩:৩৪ পিএম

আইনের পরিবর্তন আনার লক্ষণই আমি দেখতে পাচ্ছি: মার্ক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

 

অভিবাসীদের প্রতি উদার দেশ জার্মানিও এখন এ-সংক্রান্ত আইন কঠোর করার কথা ভাবছে। দেশটির কোলন শহরে নববর্ষকে স্বাগত জানানোর অনুষ্ঠানে নারীদের ওপর যৌন নিপীড়নের ঘটনার পর চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মার্কেল নিজেই এ কথা জানিয়েছেন। মার্কেল বলেন অপরাধের সঙ্গে জড়িত অভিবাসীদের দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়টি সহজ করতে আমি আইন পরিবর্তন করার বিষয়টি বিবেচনা করছি।

বার্তা সংস্থা বিবিসি, রয়টার্স সূত্রে বলা হয় ২০১৬ সালকে স্বাগত জানানোর রাতে কোলন সিটি সেন্টার ও আশপাশের এলাকায় আনন্দে মেতেছিল মানুষ। ভিড়ের মধ্যে একদল তরুণ নারীদের ওপর যৌন নিপীড়ন চালায়। এ ঘটনায় জার্মানিতে ক্ষোভের ঝড় বয়ে যাচ্ছে। ওই ঘটনার জন্য দায়ী সন্দেহভাজনদের তালিকায় থাকা বেশির ভাগই আরব ও উত্তর আফ্রিকা থেকে এসে জার্মানিতে অভিবাসী বা রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী। এরপর অভিবাসীদের বিষয়ে জার্মানির ‘খোলা দরজা নীতি’ নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়।

এ ঘটনার সময় পুলিশ তৎপর হতে না পারার তীব্র সমালোচনা হয়। দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার দায়ে কোলনের পুলিশপ্রধানকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা এ রকম পরিস্থিতির জন্য মোটেই প্রস্তুত ছিল না।জার্মানির বর্তমান আইন অনুযায়ী, কমপক্ষে তিন বছর কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে এবং নিজ দেশে তাদের জীবন নিয়ে কোনো শঙ্কার কারণ না থাকলে অভিবাসীদের জোর করে দেশে ফেরত পাঠানো যায়।

ধারণা করা হচ্ছে, মার্কেলের রক্ষণশীল খ্রিস্টান ডেমোক্রেটিক পার্টির মন্ত্রীরা এখন প্রস্তাব করবেন, অভিবাসীরা যে মেয়াদেই শাস্তি পাক না কেন, তাদের স্বদেশে ফেরত পাঠানো হবে। মার্কেল বলেন, কী কী পদক্ষেপ নেওয়া যায় তা নিয়ে আলোচনা করছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রী।মার্কেল অবশ্য একই সঙ্গে কোলনের ঘটনাকে অভিবাসীদের প্রতি ঘৃণা ছড়ানোর কাজে ব্যবহার করার বিষয়ে দেশবাসীকে সতর্ক করেছেন।

সোনালীনিউজ/ঢাকা

Sonali Bazar
add-sm
Sonali Tissue
মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৭, ৩ মাঘ ১৪২৩