রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩

আসছে বৈধ-অবৈধ মোবাইল যাচাই পদ্ধতি

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৩:৫৮ পিএম

আসছে বৈধ-অবৈধ মোবাইল যাচাই পদ্ধতি

সোনালীনিউজ ডেস্ক

শিগগিরই একটি ওয়েব সাইটের মাধ্যমে গ্রাহরা জানতে পারবেন হ্যান্ডসেটটি বৈধ কিনা। গ্রাহকরা তাদের মোবাইল হ্যান্ডসেটের ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইক্যুপমেন্ট আইডেনটিটি (আইএমইআই) নম্বর দিয়ে এ বিষয়ে নিশ্চিত হবেন ।

আইএমইআই নম্বর হলো ১৫ ডিজিটের একটি স্বতন্ত্র সংখ্যা যা বৈধ মোবাইল ফোনে থাকে। একটি মোবাইল ফোনের কি-প্যাডে *#০৬# পরপর চাপলে ওই মোবাইল ফোনের বিশেষ এই শনাক্তকরণ নম্বরটি পর্দায় ভেসে উঠে।

বাংলাদেশে মোবাইল ফোন আমদানিকারকদের সংগঠন বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমপিআইএ) এবং টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি যৌথভাবে এ উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে।

এ প্রক্রিয়ায় বৈধপথে আসা মোবাইল হ্যান্ডসেটের ডাটাবেজ তৈরির জন্য পরীক্ষামূলকভাবে ডাটাবেজ সফটওয়্যারও চালু করেছে বিটিআরসি। এই ডাটাবেজ আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হলে একটি নির্দিষ্ট সময়ের পর অবৈধ ও নকল হ্যান্ডসেট অপারেটরদের সংযোগ থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হবে। এর আগেই গ্রাহকরা জেনে নিতে পারবেন তাদের হ্যান্ডসেটটি অবৈধ বা নকল কিনা।

গত ২০১২ সালে নকল সেটে আইএমইআই নম্বর দেওয়ার একটি পরিকল্পনা (জেনুইন আইএমইআই ইমপ্ল্যান্ট প্রোগ্রাম) নিয়েছিল বিটিআরসি। সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নেও অগ্রসর হচ্ছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

এ ব্যাপারে বিএমপিআইএ এর সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুল হক বলেন, এই সফটওয়্যারের আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হলে আমদানিকারকরা তাদের হ্যান্ডসেট আইএমইআই নম্বর সেই ডাটাবেজ এ অন্তর্ভুক্ত করবে। এ প্রক্রিয়া শুরু হলে গ্রাহকরা আইএমইআই নম্বর দিয়ে বিএমপিআইএ ওয়েবসাইট থেকে যাচাই করতে পারবেন তার হ্যান্ডসেটটি বৈধভাবে এসেছে কিনা বা নকল কিনা। আসল বা বৈধপথে আসা মোবাইল হ্যান্ডসেট হলে তা যাচাইয়ে বলবে ‘সঠিক’, আর অবৈধ হলে ওয়েবসাইটে উঠে আসবে ‘নকল’।

বিটিআরসি স্পেকট্রাম বিভাগের মহাপরিচালক কর্নেল মো. নাসিম পারভেজ বলেন, বৈধভাবে আসা মোবাইল হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর ডেটাবেজ করতে কাজ শুরু করা হয়েছে। ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের নির্দেশনা রয়েছে যাতে খুব দ্রুত এই কাজ শুরু করা হয়। বিটিআরসি’র হিসাবে গত ফেব্রুয়ারি মাস শেষ নাগাদ দেশে মোবাইল ফোন গ্রাহক সংখ্যা ১৩ কোটি ১০ লাখ ছাড়িয়েছে। সেগুলোর মধ্যে ৮ কোটির মতো সিম সক্রিয় থাকে বলে ধারণা করে অপারেটরটা।

বিটিআরসি’র হিসাবে দেশে বর্তমানে একশত ৮টি প্রতিষ্ঠান হ্যান্ডসেট আমদানি করে থাকে। ২০১৫ সালে দেশে বৈধভাবে হ্যান্ডসেট আমদানির সংখ্যা দুই কোটি ৭৬ লাখ পিস।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/মে

 

add-sm
Sonali Tissue
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩