রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ৯ আশ্বিন ১৪২৪

ইরাকে জিহাদি হামলায় কমপক্ষে ৩২ জন নিহত

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৩:৪৩ পিএম

ইরাকে জিহাদি হামলায় কমপক্ষে ৩২ জন নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ইরাকের রাজধানী বাগদাদের একটি ব্যস্ত বাজারে জিহাদিদের বন্দুক ও বোমা হামলায় কমপক্ষে ১২ জন নিহত হয়েছে। এদিকে রাজধানীর উত্তরে একটি ক্যাফেতে দুদফা বিস্ফোরণে আরো ২০ জন নিহত হয়। ইসলামিক স্টেট গ্রুপ এসব হামলার দায় স্বীকার করেছে। বাগদাদের পূর্বাঞ্চলীয় আল-জাদিদা এলাকায় এসব হামলা চালানো হয়। সেখানে আতœঘাতী হামলা, বন্দুকযুদ্ধ ও জিম্মি করার ঘটনাও ঘটে।
সালমান হোসেন নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, সেখানে একটি গাড়ি এসে দাঁড়ানো মাত্রই বন্দুকধারীরা দ্রুত নেমে এলোপাতাড়ি গুলি বর্ষণ শুরু করে। এতে সেখানে বেশ কয়েকজন নিহত হয়। ওই যুবক আরো জানান, হামলাকারীদের একজন এক দোকান মালিককে ধরে ফেলে এবং তার কাছে রাখা আতœঘাতী বোমার বিস্ফোরণ ঘটানোর আগে মোবাইলে কথা বলে।
তিনি বলেন, বিস্ফোরক ভর্তি ওই গাড়িতে করে তারা আসে এবং বিস্ফোরণ ঘটায়। বাগদাদ অপারেশনস কমান্ডের প্রধান লে: জেনারেল আব্দেলামির আল-শামারি ঘটনা স্থলে সাংবাদিকদের বলেন, সেখানে পরিস্থিতি দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে।
বাগদাদ পুলিশ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কয়েকজন কর্মকর্তার প্রতিবেদন তিনি অস্বীকার করে বলেন, হামলাকারীরা জাহরাত বাগদাদ মলের পাশে অনেককে জিম্মি করেছে।
তবে পুলিশের এক সিনিয়র কর্মকর্তা নিহতের সংখ্যার ব্যাপারে দ্বিমত পোষণ করে বলেন, হামলাকারীরা ওই মলে প্রবেশ করে লোকজনকে জিম্মি করার আগে রাজপথে বেপরোয়া গুলিবর্ষণ করে এবং গাড়ি বোমার বিস্ফোর ঘটায়।
তিনি বলেন, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা কাছাকাছি আসা মাত্র তারা তিন জিম্মিকে হত্যা করে। হামলার অবস্থার ব্যাপারে এখনো স্পষ্ট কিছু জানা যায়নি। তবে জিহাদিরা তাদের অনলাইনে এসব হামলার কিছু বর্ণনা দিয়েছে।
সেখানে বলা হয়, খেলাফতের চার সদস্য শিয়াদের লক্ষ্যকরে এ হামলা চালায়। সেখানে আরো বলা হয়, আইএসের এক সদস্য বিস্ফোরক ভর্তি একটি গাড়িতে নিজেকে উড়িয়ে দেয়। আইএস জানায়, হামলায় মোট ৯০ জন নিহত বা আহত হয়েছে।
দিয়ালায় বোমা হামলা : ফাদেল নামের অপর এক প্রত্যক্ষদর্শী বাগদাদের পার্শ্ববর্তী শিয়া অধ্যুষিত আল-জাদিদা থেকে বলেন, এসব লোক বেপরোয়াভাবে গুলিবর্ষণ করছিল। সেখানে তাদের একজনের কাছে রকেট চালিত একটি গ্রেনেড ছিল। তিনি বলেন, আমি সেখানে একটি ছোট শিশুর লাশ পড়ে থাকতে দেখেছি। পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, এ হামলায় কমপক্ষে ১২ জন নিহত ও আরো ৩০ জনের বেশী লোক আহত হয়। উল্লেখ্য, বিগত কয়েক মাসে বাগদাদে যতগুলো হামলা হয়েছে তার মধ্যে এটি ছিল অন্যতম।
নিরাপত্তা কর্মকর্তারা জানান, প্রায় একই সময় বাগদাদের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় মুকদাদিয়া শহরে একটি ক্যাফেতে বোমা হামলায় কমপক্ষে ২০ জন নিহত হয়।
এক পুলিশ ক্যাপ্টেন ও এক আর্মি কর্নেল জানান, প্রথমে ওই ক্যাফেতে একটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয় এবং পরে সেখানে লোকজন জড়ো হলে এক আতœঘাতী বোমা হামলাকারী বিস্ফোরক ভর্তি এক গাড়ির বিস্ফোরণ ঘটায়।
আইএস মুকদাদিয়ার হামলারও দায় স্বীকার করেছে। তাদের এই হামলাকারীর নাম আবু আব্দুল্লাহ। সে ইরাকি নাগরিক। যুক্তরাষ্ট্র এসব হামলাকে বর্বর সন্ত্রাসী কর্মকান্ড হিসেবে উল্লেখ করে এর কঠোর নিন্দা জানায়।
সোনালীনিউজ/ঢাকা