রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫

কেসিসি নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে: ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ মে ২০১৮, বুধবার ০৭:৫০ পিএম

কেসিসি নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে: ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ

ঢাকা: বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে বড় ধরণের কোনো সহিংসতা বা অনিয়মের ঘটনা ঘটেনি।

খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচন পর্যবেক্ষণ সংক্রান্ত প্রাথমিক বিবৃতিতে এ কথা জানিয়েছে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অধিকতর স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতের লক্ষ্যে ২৮টি সিভিল সোসাইটি প্রতিষ্ঠান বা সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত ইলেকশন ওয়ার্কিং গ্রুপ (ইডব্লিউজি)।

বুধবার (১৬ মে) জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন ইডব্লিউজির পরিচালক ড. মো. আব্দুল আলিম। এ সময় ইডব্লিউজির সদস্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ বলেন, বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ছাড়া কেসিসি নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে। এটি ছিল স্থানীয় সরকার নির্বাচন। চলতি বছর নির্বাচনের বছর হিসেবে এই নির্বাচনের গুরুত্ব অনেক ছিল।

তিনি আরও বলেন, এর আগে অনুষ্ঠিত রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন এই সময়ের মধ্যে অন্যতম সেরা ভোট অনুষ্ঠান হয়েছে। সেই হিসেবে খুলনার নির্বাচন পিছিয়ে আছে। যা কোনোভাবেই কাঙ্ক্ষিত নয়।

মূল প্রবন্ধে ড. মো. আব্দুল আলীম জানান, খুলনার নির্বাচনে ভোট প্রদানের হার ৬৪ দশমিক ৮ শতাংশ। সকাল ১০টায় এ হার ছিল ১৯ দশমিক ৩ শতাংশ, দুপুর ১টায় ছিল ৪৭ শতাংশ, বিকেল ৩টায় ভোট প্রদানের হার ছিল ৫৮ দশমিক ৭ শতাংশ। প্রতিবন্ধী ভোটারদের জন্য ৭৮ দশমিক ৬ শতাংশ কেন্দ্র উপযুক্ত ছিল। ৪টি ভোট কেন্দ্রের ও ১২টি কেন্দ্রের বাইরে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। ভোট দেয়ায় বাধার ঘটনা ছিল ১৮টি, ভোট কেন্দ্রের ৪শ’ গজের মধ্যে নির্বাচনী প্রচারণার ঘটনা ১০টি।  ইডব্লিউজি ২৮৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১৪৫টি অর্থাৎ ৫০ দশমিক ০২ শতাংশ ভোটকেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করেছে।

ইডব্লিউজি জানান, ভোট গ্রহণ করার সময় ইডব্লিউজির পর্যবেক্ষকরা ৯৯ দশমিক ৩ শতাংশ ভোট কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট এবং ৮৮ দশমিক ৮ শতাংশ ভোট কেন্দ্রে বিএনপি মেয়র প্রার্থীর এজেন্টদের দেখতে পেয়েছেন। ভোটকেন্দ্রে পোলিং এজেন্ট ও পর্যবেক্ষকদের সামনে ব্যালট বাক্স খোলা হয়েছিল।

ড. আব্দুল আলীম জানান, ভোটগ্রহণের সময় ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোটারের লম্বা লাইন দেখা গেছে। এর মধ্যে ৩৭ শতাংশ লাইনে ১ থেকে ২০ জন, ২৭ শতাংশ লাইনে ২১ থেকে ৪০ জন, ৩৪ শতাংশ কেন্দ্রে ৪০ জনের বেশি ভোটার ভোট প্রদানের জন্য লম্বা লাইনে দাঁড়ানো ছিলেন। ৯৭ শতাংশ কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসার, পোলিং এজেন্ট ও পর্যবেক্ষকদের প্রবেশ নিশ্চিত করে ভোট গণনা শুরু করা হয়েছে।

সোনালীনিউজ/এমএইচএম

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue