শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭, ৫ কার্তিক ১৪২৪

খালেদা জিয়ার প্রতিক্রিয়া জানতে চায় জনগণ : হানিফ

সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০১ পিএম

খালেদা জিয়ার প্রতিক্রিয়া জানতে চায় জনগণ : হানিফ

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, যুদ্ধাপরাধে মতিউর রহমান নিজামীয় ফাঁসির রায় কার্যকর হওয়ার পর দেশের জনগণ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার প্রতিক্রিয়া জানতে চায়।

হানিফ আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে আল-হেরা কমিউিনিটি সেন্টারে নবগঠিত ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে দেওয়া এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। কামরাঙ্গীর চর থানা আওয়ামী লীগ এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নুরে আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন, খাদ্যমন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমাবায় বিষয়ক সম্পাদক ড. আব্দুর রাজ্জাক, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণের সভাপতি আবুল হাসানত, সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান প্রমুখ।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসি হওয়ার পর প্রত্যেকবার বিএনপি নেত্রী চুপ ছিলেন। এবারও তিনি চুপ আছেন। কিন্তু আমি ব্যাকুল হয়ে অপেক্ষা করছি, নিজামীর ফাঁসি নিয়ে তার প্রতিক্রিয়া জানার। কারণ এবারতো তার ঘনিষ্ট রাজনৈতিক মিত্রের ফাঁসি হয়েছে, যে শীর্ষ রাজাকারকে তিনি মন্ত্রী বানিয়েছিলেন, ত্রিশ লক্ষ শহীদের সঙ্গে বেঈমানী করে গাড়িতে জাতীয় পতাকা তুলে দিয়েছিলেন। তার ফাঁসির পর জনগণ খালেদা জিয়ার প্রতিক্রিয়া জানতে চায়।

তিনি বলেন, নিজামীর ফাঁসি হওয়ায় প্রতিবাদ ও নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে পাকিস্তান। কারণ মুক্তিযদ্ধের সময় তাদের অপকর্মের সহযোগি ছিলো নিজামীদের মতো নরপিশাচরা।

হানিফ আরও বলেন, এই দেশটি সবসময়ই বাইরের বিষয়ে নাক গলিয়েছে। আর সবসময়ই নির্লজ্জ মিথ্যাচারে লিপ্ত, কারণ এই ব্যর্থ রাষ্ট্রের জন্মই মিথ্যাচার দিয়ে। তাদের এই ধৃষ্টতার তীব্র ধিক্কার জানাই। ফের যদি তারা এই ধরণের দু:সাহস দেখায় তাহলে দেশটির সঙ্গে আমাদের কূটনৈতিক সম্পর্ক আমরা রাখবো কিনা তা বাংলার জনগণ ভেবে দেখবে।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, পাকিস্তানের যদি এতই দরদ, তবে তাদের দোসর প্রিয় ব্যক্তিদের বাংলাদেশ থেকে নিয়ে গিয়ে তাদের দেশের নাগরিকত্ব দিক। আমরা এই দেশে কোনো যুদ্ধাপরাধী ও পাকিস্তানের প্রেতাত্মাদের দেখতে চাইনা।

এ সময় খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম বলেন, দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করে সন্ত্রাস ও বোমা মেরে জঙ্গিরাষ্ট্র বানাতে দেশি-বিদেশি চক্রান্ত চলছে, আগুন সন্ত্রাস করে মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে। কিন্তু ষড়যন্ত্রকারীদের কোনো প্রচেষ্টাই সফল হবে না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে সব চক্রান্তকারীরা পরাজিত হতে বাধ্য।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/মে