সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

চাঁদ দেখে রোজা ও ঈদ পালনের আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

চাঁদ দেখে রোজা ও ঈদ পালনের আহ্বান

শরিয়ত অনুসারে চাঁদ দেখে রোজা পালন ও ঈদ উদযাপন করতে হবে, সৌদি আরবকে অনুসরণ বা অনুকরণ করে নয়। সবাইকে এ আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ কোরআন ও হাদিস গবেষণা ফাউন্ডেশন।

গতাকল শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘শরিয়ত মোতাবেক চাঁদ দেখে রোজা রাখুন ও ঈদ উদযাপন করুন’ শীর্ষক বিশেষ সেমিনারে এ আহ্বান জানানো হয়। সেমিনারে বক্তারা নবী করিম (সা.) এর উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, প্রিয় নবী করিম (সা.) বলেছেন, তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করা হয়েছে। তোমরা চাঁদ দেখে রোজা রাখো আর চাঁদ দেখে ইফতার করো, ঈদ উদযাপন করো। তোমরা একটি বা দু’টি রোজা দ্বারা রমজানের অগ্রগামী হয়ো না। অর্থাৎ, ২৯ শাবান চাঁদ দেখেই রমজানের রোজা শুরু করতে হবে। ওই দিন চাঁদ দেখা না গেলে শাবান মাসকে ৩০ দিন পূর্ণ করতে হবে। হাদিস, কোরআন ও ফেকাহ’র কিতাবগুলোতে কোথাও এ কথা বলা হয়নি যে, সৌদি আরবে চাঁদ উঠলেই বাংলাদেশে রোজা ফরজ হয়ে যাবে। স্মরণ রাখতে হবে, চান্দ্র মাস ২৯ ও ৩০ দিনে হয়, ২৮ বা ৩১ দিনে হয় না।

বাংলাদেশের আকাশে ২৯ শাবান বা ৩০ শাবান রমজানের চাঁদ দেখা গেলে রমজানের রোজা ফরজ হবে। বিশিষ্ট মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ড. মুফতি মাওলানা কফিল উদ্দিন সরকার সালেহি সেমিনারে বলেন, এটা একটা জ্ঞানবহিভূর্ত প্রস্তাব। আমরা কেনো তাদের সঙ্গে মিল রেখে রোজা-ঈদ পালন করবো? হাদিসে স্পস্ট বলে দেওয়া আছে যে, চাঁদ দেখে রোজা ও ঈদ পালন করতে হবে, আমরা চাঁদ দেখেই করবো। এটাই সহিহ। সিদ্ধেশ্বরী জামে মসজিদের খতিব মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মাওলানা আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, আপনারা আংশিক পালন করবেন আর বাকিগুলো করবেন না, তা তো হয় না। তিনি বলেন, আপনারা যদি রোজা আর ঈদ সৌদি আরবকে অনুসরণ করে পালন করেন, তাহলে ইফতার, সেহেরি, তারাবি সবকিছুই তারা যে সময় করেন, তখন করবেন।

সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের গভর্নর ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা মিছবাহুর রহমান চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কোরআন ও হাদিস গবেষণা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুফতি মাওলানা মো. শহীদুল্লাহ পাটোয়ারী।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/এমটিআই

add-sm
Sonali Tissue
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩