রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

জেএসসিতে জিপিএ-৫ ও পাসের হার বেড়েছে যশোরে

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ১১:৩৭ এএম

জেএসসিতে জিপিএ-৫ ও পাসের হার বেড়েছে যশোরে

সোনালীনিউজ ডেস্ক : যশোর মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় গত পাঁচ বছরের মধ্যে ২০১৫ সালে সবচেয়ে ভালো ফলাফল অর্জন করেছে।

এ বছর বোর্ডের অধীনে খুলনা বিভাগের ২ হাজার ৮৬৭ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শতকরা ৯৫ দশমিক ৪৪ ভাগ পরীক্ষা উত্তীর্ণ হয়েছে। একই সাথে গেলবারের চেয়ে এবার ৭ হাজার ১৪৬ শিক্ষার্থী বেশি জিপিএ-৫ পেয়েছেন। অর্থ্যাৎ ২০১৪ সালে ১০ হাজার ৬৮৫ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেলেও ২০১৫ সালে পেয়েছে ১৭ হাজার ৮৩১ জন। বোর্ড থেকে শিক্ষকদের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পাঠ্যবইমুখী করতে পারায় এ সফলতা এসেছে বলে দাবি করেছেন যশোর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র।

শিক্ষা বোর্ড সূত্র মতে, ২০১০ সালে জেএসসিতে যশোর শিক্ষা বোর্ডে পাসের হার ছিল ৬২ দশমিক ৪৫ ভাগ। ২০১১ সালে তা বেড়ে হয় ৭৯ দশমিক ৮৭। ২০১৩ সালে পাসের হার হয় ৮৯ দশমিক শূন্য তিন। আর ২০১৪ সালে ৯১ দশমিক ৯৬ ভাগ শিক্ষার্থী পাস করলেও সর্বশেষ ২০১৫ সালে শতকরা ৯৫ দশমিক ৪৪ ভাগ পরীক্ষা উত্তীর্ণ হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরে প্রকাশিত আনুষ্ঠানিক ফলাফলে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এ সময় বোর্ডের সচিব ড. মোল্লা আমির হোসেন, উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (মাধ্যমিক) সৈয়দ রকিবুল ইসলাম, বিদ্যালয় পরিদর্শক ড. আহসান হাবীব উপস্থিত ছিলেন।

বোর্ডের প্রকাশিত ফলাফল অনুযায়ী, চলতি বছর ২ লাখ ৯ হাজার ৮৩৮ জন শিক্ষার্থী জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। এদের মধ্যে ছাত্র ১ লাখ ৮৩৩ ও ছাত্রী ১ লাখ ৯ হাজার ৫। এরমধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ২ লাখ ২৭৮ জন। এর মধ্যে ছাত্র ৯৫ হাজার ৯৯৪ ও ছাত্রী ১ লাখ ৪ হাজার ২৮৪ জন। আর গত বছর এ বোর্ড থেকে ১ লাখ ৮৮ হাজার ৭৮৪ জন শিক্ষার্থী জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। এরমধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছিল ১ লাখ ৭৩ হাজার ৫৯৯ জন।

এবার জেএসসির ফলাফল সম্পর্কে যশোর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাধব চন্দ্র রুদ্র জানান, এ বছর জেএসসি পরীক্ষার পাসের হার ও জিপিএ-৫ প্রাপ্তি দু’টোই বেড়েছে। পরীক্ষার ফলাফল ভালো করার জন্য বোর্ড কর্তৃপক্ষ কয়েকটি পদক্ষেপও নিয়েছে। তারা বিভিন্ন স্কুল পরিদর্শন করে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সাথে কারিকুলাম, প্রশ্নের ধারা সম্পর্কে আলোচনা করেছেন এবং শিক্ষার্থীদের মূল পাঠ্যবইয়ে ফিরে আসার জন্য উদ্বুদ্ধ করেছেন। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের সমস্যা ও দুর্বলতার জায়গা চিহ্নিত করে তা দূর করার জন্যও পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এসব কারণে যশোর বোর্ডের ফলাফল গত কয়েক বছরের তুলনায় ভালো হয়েছে।

এদিকে, বোর্ডের ফলাফলে দেখা গেছে, এবার বোর্ডের ৮২৬টি স্কুল থেকে শতভাগ শিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে। গতবছর এ সংখ্যা ছিল ৭২০। আর গতবছর তিনটি বিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীই অনুত্তীর্ণ হয়েছিল। কিন্তু এ বছর শূন্যভাগ পাসের হারের কোনো স্কুল নেই।

add-sm
Sonali Tissue
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩