শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩

নাগরিক নিরাপত্তায় ডিএনসিসি’র উদ্যোগ

ঢাকা উত্তরে ৩ হাজার সিসি ক্যামেরা

জুবায়ের রহমান চৌধুরী, বিশেষ প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

ঢাকা উত্তরে ৩ হাজার সিসি ক্যামেরা

নিরাপদ ঢাকা গড়ে তোলার লক্ষ্যে ঢাকা উত্তর সিটি বরপোরেশনের (ডিএনসিসি) আওতাধীন বিভিন্ন এলাকায় মোট তিন হাজার ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা স্থাপনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই ১ হাজার ১শ’ টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন ও একটি নতুন কন্ট্রোল রুম চালু করেছে ডিএনসিসি।

জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বুধবার ( ২৫ মে ) ঢাকায় গুলশান ইয়ুথ ক্লাব মাঠে ডিএনসিসি মেয়র দায়িত্ব গ্রহণের বর্ষপূর্তিতে গুলশান, বারিধারা, বনানী, নিকেতন সোসাইটি ও গুলশান ইয়ুথ ক্লাবের সহায়তায় এলওসিসি, ডিএমপি ও ডিএনসিসিসি’র প্রচেষ্টায় উত্তর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন সর্বাধুনিক কন্ট্রোলরুমসহ সিসি টিভি ক্যামেরা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেছেন। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন, সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহ, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন, আইজিপি এ কে এম শহিদুল হক, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মো. আব্দুল মালেক এবং র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বক্তৃতা করেন।

এ সময় স্পিকার বলেন, ঢাকা সিটি করপোরেশন কর্তৃক গৃহীত সকল কার্যক্রমের মধ্যে সিসিটিভি কার্যক্রম একটি উল্লেখযোগ্য ও চমকপ্রদ অনন্য কার্যক্রম।

তিনি বলেন, উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন সর্বাধুনিক কন্ট্রোলরুম থেকে সিসিটিভির মাধ্যমে যে কার্যক্রম মনিটর করা হবে তা শুধু জনগনের নিরাপত্তাই বিধান করবে না বরং এর মাধ্যমে সিটি করপোরেশনের কোথায় কি হচ্ছে, কোথায় যানজট সৃষ্টি হচ্ছে, কোথায় অপরাধ সংঘঠিত হচ্ছে, মালবাহী গাড়ীগুলো সঠিকভাবে বর্জ্য অপসারণ করছে কিনা তা প্রত্যক্ষ করার মাধ্যমে জনসেবা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী দুই সিটি কর্পোরেশনের মেয়রদের কার্যক্রমের প্রশংসা করে আরো বলেন, এ কার্যক্রমের মাধ্যমে একটি অভিনব পার্টনারশিপ কার্যক্রম প্রত্যক্ষ করা সম্ভব হয়েছে। এর মাধ্যমে সরকারি চাকুরীজীবী, সিভিল সোসাইটি, জনপ্রতিনিধি ও সাধারণ জনগণের সম্মিলিত প্রয়াসে সার্বিক পরিকল্পনা প্রণয়নের মাধ্যমে একটি পরিচ্ছন্ন, মনোরম, তিলোত্তমা ও সবুজ ঢাকা উপহার দেবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন।

ডিএনসিসি’র মেয়র আনিসুল হক জানালেন, এত বিপুল সংখ্যক ক্যামেরা কেনা ও রক্ষণাবেক্ষণ খরচ মেটাতে সরকার ও ডিএনসিসি এর নিজস্ব অর্থ খরচ করতে হবে না। মেয়রের আহ্বানে ব্যবসায়ীরা আর্থিক সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। মেয়র আনিসুল হকের অদম্য ইচ্ছে শক্তিতে নিশ্চিত হচ্ছে ঢাকা উত্তরের নাগরিক নিরাপত্তা।

এর আগে আধুনিকমনা ও স্মার্ট মেয়র ফেসবুকের মাধ্যমে নিজেই নগরবাসীকে এ খবর দিয়েছেন। তিনি তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘১১০০ সিসিটিভি ক্যামেরাসহ নতুন কন্ট্রোল রুম চালু করা হয়েছে। ক্যামেরাগুলো কিনতে এবং রক্ষণাবেক্ষণ করতে ডিএনসিসি এবং সরকারকে কোনো অর্থ ব্যয় করতে হচ্ছে না। আমরা নিরাপদ ঢাকা গড়ার দিকে আরেক ধাপ এগিয়ে গেলাম। আপনাদের সবাইকে ধন্যবাদ আমার সাথে থাকার জন্য।’

ফেসবুকে এ পোস্ট দেয়ার পর নাগরিকরা তার গৃহিত বিভিন্ন কার্যক্রমের প্রশংসা করার পাশাপাশি বিভিন্ন কমেন্ট করলে তিনি তাদের প্রশ্নের উত্তর দেন। এ সব সিসিটিভি ক্যামেরা পুলিশের মাধ্যমে পরিচালিত ও একটি বেসরকারি কোম্পানি ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকবে বলে জানান।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/জেডআরসি/এমটিআই

add-sm
Sonali Tissue
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩