শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

ঢাকা মাতালেন আতিফ আসলাম

বিনোদন ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

ঢাকা মাতালেন আতিফ আসলাম

ঢাকার দর্শকদের মধ্যে রোমান্টিসিজম ছড়িয়ে দেয়ার মন্ত্র নিয়েই বোধ হয় এবারের বাংলাদেশ মিশনে এসেছিলেন পাকিস্তানি বংশজাত বলিউডের তুমুল জনপ্রিয় শিল্পী আতিফ আসলাম ও ভারতের দুই সঙ্গীতশিল্পী আকৃতি কাক্কর ও মমতা শর্মা। রোববার মধ্যরাত পর্যন্ত ‘এটিএন এন্টারটেইনমেন্ট’-এর আয়োজনে রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সিটির নবরাত্রি হলে বাংলাদেশের দর্শক ভক্তদের পুরো চার ঘন্টা প্রেমের হাওয়ায় ভাসালেন তারা!

রোববার। রাত তখন ১০টা ৫০! নবরাত্রি হলের মঞ্চ তখন পুরো অন্ধকার! এদিকে মঞ্চের সামনে অসংখ্য তরুণ তরুণীর তীব্র অপেক্ষা! হঠাৎ মাইক্রোফোনে বরাবরের মত চমৎকার ঢঙে দর্শক শ্রোতাদের উদ্দেশে উপস্থাপক আমব্রিন বলে উঠলেন ‘হ্যালো!’, মানুষের সমস্ত মনযোগ তখন মঞ্চে কালো গাউনে মাইক্রোফোন হাতে দাঁড়িয়ে থাকা আমব্রিনের দিকে। যদিও তার পাশে মাইক্রোফোন হাতে দাঁড়িয়েছিলেন আরেক জনপ্রিয় উপস্থাপক দেবাশিষ বিশ্বাস। এই মুহূর্তে উপস্থিত মানুষ জানে এই দুই উপস্থাপক মঞ্চে কাকে ডাকবে? কিন্তু তারপরেও যেন তাদের মুখ থেকে শুনতে চাইছে প্রিয় নামটি! হ্যাঁ। যুগল উপস্থাপক অপেক্ষার প্রহর দীর্ঘ না করে মঞ্চে ডাকলেন উপমহাদেশের তুমুল জনপ্রিয় শিল্পী ও এটিএন-এর আয়োজনে ‘রিদম ফর অল’-এর প্রধান আকর্ষণ আতিফ আসলামকে! মঞ্চ কালো করে দিয়ে আবারও চলে গেলেন দুই উপস্থাপক!

একটু পর মঞ্চ আলোকিত হতেই দেখা গেল ব্যাজ গীটার, একুয়েস্টিক গীটার, ইলেকট্রিক গীটার, কিবোর্ড আর ড্রামস নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে অপরিচিত কিছু মানুষ। অথচ তারা প্রত্যেকেই তুমুল জনপ্রিয়। কিন্তু মানুষতো কনসার্টে মিউজিশিয়ানদের আকর্ষণে আসে না। আসে শিল্পীর আকর্ষণে। সবাইতো আছে। অথচ যার জন্য অপেক্ষা সেই আরাধ্য শিল্পী আতিফ আসলাম কই?

মঞ্চের পেছনের দিকের স্ক্রিনে যখন বড় বড় হরফে বারবার আতিফ আসলাম নামটি ঘুরছে তখন, এবং এই মুহূর্তটাকে ঘিরে উপস্থিত দর্শক শ্রোতার উত্তেজনা যখন কিছুটা ধুকপুক করছে ঠিক তখনই এক দৌড়ে এসে আতিফ আসলাম হাতে নিলেন মাইক্রোফোন! হৈচৈ পড়ে গেল পুরো হলরুমে। অথচ এইসব বিষয় পাত্তা না দিয়েই আতিফ আসলাম গেয়ে উঠলেন বলিউডের সিনেমার জনপ্রিয় গান ‘ইয়া রাহা হু ম্যায়’। প্রথম গানের মধ্য দিয়েই এক ধরনের রোমান্টিক একটি পরিবেশ মুহূর্তেই সবার মধ্যে যেন জিইয়ে দিলেন আতিফ!

এরপর সেই রোমান্টিসিজমকে আরো তীব্র থেকে তীব্রতর পর্যায়ে নিয়ে গেলেন বিরতি না নিয়েই একের পর এক বলিউডের তুমুল প্রেমের গান গেয়ে। তুহি সহি যায়ে না, তেরাহনে লাগা, তু চাহিয়ে এ, তুম হি হু, ও জানে যা, কাভি কাভি মেরে দিলমে গানগুলোর মধ্য দিয়ে প্রেমের হাওয়া নবরাত্রি ছাড়িয়ে যেন পুরো বসুন্ধরায় মৌ মৌ করতে লাগলো।

হঠাৎ মাইক্রোফোন ছেড়ে গলায় গীটার নিলেন আতিফ। তবে রোমান্টিকতা ছেড়ে বের হওয়া সম্ভব হলো না তার। আবারও গাইলেন হুয়া তেরে পেয়ার, ম্যায় রঙ সরবত কা, জিয়া জিয়া মেরে, প্রিয়ারে প্রিয়ারে ওরে প্রিয়া, হাম কিস গলি রেহি হ্যায়, তু জানে না, না জানে কাভসের মত হৃদয় দোলানো গান।

মাঝখানে ককটেলে গাইলেন বাংলাদেশের কিংবদন্তি শিল্পী রুনা লায়লার জনপ্রিয় গান 'দমাদম মাস্ত কালান্দার'। চারদিকে রোমান্টিকতা ছড়িয়ে আতিফ যখন কনসার্টের সমাপ্তি ঘোষণা করবেন ঘড়িতে সময় তখন রাত প্রায় সোয়া ১২টা। বসুন্ধরা বনভেনশনে এতো রাতব্যাপী কোনো কনসার্ট বোধয় এটায় প্রথম!

সোনালীনিউজ/ঢাকা/এমটিআই

add-sm
Sonali Tissue
শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩