শুক্রবার, ২৮ জুলাই, ২০১৭, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৪

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে সীমাহীন ঔদ্ধত্যের প্রতিবাদ

তুরস্ক-পাকিস্তানের পতাকা পুড়াল স্বাধীনতা সাংবাদিক পরিষদ

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০১ পিএম

তুরস্ক-পাকিস্তানের পতাকা পুড়াল স্বাধীনতা সাংবাদিক পরিষদ

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে তুরস্ক-পাকিস্তানের সীমাহীন ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণের প্রতিবাদ জানিয়েছে স্বাধীনতা সাংবাদিক পরিষদ (স্বাসাপ)। প্রতিবাদের অংশ হিসেবে মানববন্ধন শেষে দেশ দুটির জাতীয় পতাকা পুড়িয়েছে সংগঠনটি।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী নিজামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পর তুরস্ক ও পাকিস্তান সীমাহীন ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করেছে। বাংলাদেশে চলমান যুদ্ধাপরাধের বিচার বিষয়ে তাদের যে কোনো মন্তব্য ধৃষ্টতারই শামিল। মানববন্ধনে পাকিস্তানের ১৯৫ জন যুদ্ধাপরাধীর বিচার নিশ্চিতসহ মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের প্রাপ্য ক্ষতিপূরণেও দাবি জানানো হয়। তুরস্ক-পাকিস্তানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন এবং অনতিবিলম্বে স্বাধীনতা বিরোধীদের রাজনীতি নিষিদ্ধ করার দাবি জানান সাংবাদিকেরা।

বুধবার (১৮ মে) দুপুর ১২ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে স্বাধীনতা সাংবাদিক পরিষদ (স্বাসাপ)। স্বাসাপের আহবায়ক বরুন ভৌমিক নয়নের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব হামিদ মোহাম্মদ জসিমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহম্মদ শফিকুর রহমান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক মহাসচিব আবদুল জলিল ভূঁইয়া, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক স্বপন সাহা, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাবেক সাধারণ সম্পাদক কুদ্দুস আফ্রাদ, ডিইউজে'র সহ সভাপতি আতিকুর রহমান চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক শাহানা শিউলী, জনকল্যাণ সম্পাদক উম্মুল ওয়ারা সুইটি, নির্বাহী সদস্য মাহমুদুর রহমান খোকন, স্বাধীনতা সাংবাদিক পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মাহবুব রেজা, লতিফুল বারী হামীম, তাপস রায়হান ও জুবায়ের রহমান চৌধুরী প্রমুখ।  অনুষ্ঠানে বিপুুলসংখ্যক সাংবাদিক অংশগ্রহণ করেন।

জাতীয় প্রেসক্লাব-এর সভাপতি মুহম্মদ শফিকুর রহমান তার বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীন হয়েছে। অনেক সাংবাদিকও মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন। আমরা নিশ্চুপ বসে থাকতে পারি না। পাকিস্তান ও তুরস্কের সীমাহীন ঔদ্ধত্য মেনে নেয়া যায় না।

শফিকুর রহমান বলেন, উন্মুক্ত আদালতে বিচার হচ্ছে। অথচ দেশ দুটি যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। যেসব যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হচ্ছে, তারা কোনো আলেম না, এরা মানবতাবিরোধী অপরাধী, ঠাণ্ডা মাথার খুনি, চক্রান্তকারী এবং দেশদ্রোহী। এরা বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না। দেশকে পাকিস্তান বানাতে চায়।

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কুদ্দুস আফ্রাদ বলেন, অনেক ত্যাগের বিনিময়ে আমাদের স্বাধীনতা। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সরকার এখন ক্ষমতায়। দেশ উন্নয়নের ধারায় অগ্রসর হচ্ছে। আর সেই উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে দেশে-বিদেশে চক্রান্ত চলছে। দেশি-বিদেশি যে কোনো চক্রান্তই মোকাবেলা করতে প্রস্তুত আছে সচেতন সাংবাদিক সমাজ।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/জেডআরসি/এমটিআই

 

Sonali Bazar

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue