শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩

দেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গঠিত হবে

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

দেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গঠিত হবে

দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গঠিত হতে যাচ্ছে। আগামী ২০৩০ সালেরমধ্যে দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় মোট ৩০ হাজার হেক্টর জমি উপর এই বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো প্রতিষ্ঠিত হবে। বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো স্থাপিতহলেতা দেশের শিল্পায়ন তথা অর্থনৈতিক উন্নয়নে তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রাখবে বলে আশা করা হচ্ছে। এতে রপ্তানি আয় ৪০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বৃদ্ধি পাবে এবং প্রায় এক কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হবে। ইতোমধ্যেই ৫৯টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের জন্য স্থান নির্ধারণ  করা হয়েছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিক ভাবে ১০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেছেন। বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গঠনের এই সিদ্ধান্তে সারা দেশের মানুষের মাঝে এক ধরনের উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে বিভিন্ন শ্রেণির উদ্যোক্তারা সরকারি সিদ্ধান্তে অত্যন্ত আনন্দিত হয়েছেন। কারণ আমাদের দেশের উদ্যোক্তারা নানমুখি সমস্যার কারণে বিনিয়োগ করতে পারছেন না। বিশেষ  করে বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে সেবা পেতে তাদের হয়রানির মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

এ ছাড়া রয়েছে শিল্প স্থাপনের মতো উপযোগি জায়গার অভাব। অনেক স্থানেই শিল্প স্থপনের মতো অনুকূল জমি পাওয়া যায় না। কাজেই নতুন অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো  বাস্তবায়িত হলেতা দেশের বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে বিশেষ অবদান রাখবে এতে কোনোই সন্দেহ নেই।
 
আগামী ২০২১ সালেরমধ্যে বাংলাদেশ একটিমধ্যমআয়ের দেশে পরিণত হবার জন্য রাষ্ট্রীয়ভাবেপ্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এ ছাড়া ২০৪১ সালনাগাদ বাংলাদেশ উন্নত দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে বলে আশা করা হচ্ছে। এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে বিনিয়োগ বাড়ানোর কোনো বিকল্প নেই। বর্তমনে দেশের বিনিয়োগের পরিমাণ হচ্ছে জিডিপি’র ২৯ শতাংশের কিছু বেশি। এই স্বল্প বিনিয়োগ নিয়ে আমরা কাঙ্খিত অর্থনৈতিক উন্নয়ন সাধন করতে পারবো না। তাই এ মুহূতের্ বিনিয়োগ বৃদ্ধির কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ ব্যতীত কোনো উপায় নেই। সরকার সেই বিষয়টি উপলব্ধি করেই দেশের বিভিন্ন স্থানে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছেন।

আমরা এই মহতী উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। তবে একটি বিষয় মনে রাখতে হবে তাহলো,শুধু অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করলেই দায়িত্ব শেষ হবে না সেখানে যাতে কার্যকর ‘ ওয়ান স্টপ সার্ভিস প্রদান কর হয় তা নিশ্চিত করতে হবে। দেশের ইপিজেডগুলোর মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রাম ইপিজেড অত্যন্ত ভালোভাবে পরিচালিত হচ্ছে। কিন্তু কোনো কোনো ইপিজেড ইতিবাচক ফল দিতে পারছে না। এ জন্য অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য স্থান নির্বাচনের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে।

সোনালীনিউজ/ঢাকা

add-sm
Sonali Tissue
শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩