রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

নওগাঁর শৈলগাছীর ঐতিহ্যবাহী জমিদার বাড়ি

আপডেট: ১৫ জুন ২০১৬, বুধবার ১২:০৯ পিএম

নওগাঁর শৈলগাছীর ঐতিহ্যবাহী জমিদার বাড়ি

নওগাঁ প্রতিনিধি
সদরের শৈলগাছী জমিদার বাড়িটি সংস্কারের অভাবে এখন বিলুপ্তির পথে। প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী এ নিদর্শন সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে শেষ চিহ্নটুকুও হারাতে বসেছে। ধ্বংস হচ্ছে এই জমিদার বাড়িটির সকল কারুকার্য। ছোট যমুনা নদীর তীরে অবস্থিত মনোরম পরিবেশের এ জমিদার বাড়িটি এলাকায় রাজবাড়ি বলে এটি বেশি পরিচিত।

জমিদার বাড়িটির শুধুমাত্র মূল ভবনটির বর্তমানে কিছু ধ্বংসাবশেষ এখনও টিকে আছে। ঝুঁকিপূর্ণ এই জমিদার বাড়ির মূল ভবনে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এলাকার কিছু ভূমিহীন পরিবার প্রায় ১০ বছর ধরে বসবাস করে আসছে। প্রায় ৬ একর জমির ওপর তৈরি এই জমিদার বাড়িটি এলাকার কতিপয় প্রভাবশালী মহল নামেমাত্র লিজ দেখিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ভোগদখল করে আসছে।

জমিদার বাড়িটির নদীর তীর ঘেঁষে প্রাচীর দিয়ে ঘিরে নেয়া হয়েছে। প্রাচীরের মধ্যে তৈরি করা হয়েছে শৈলগাছী উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি ভবন। এই বিদ্যালয়টির উপরই রয়েছে জমিদার বাড়িটির সকল কিছু রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব।

স্থানীয় বাসিন্দা ডা. মো. মোহসিনুল আলম জানান, ১৯৭১ সালে তিনি অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ছিলেন। তাই তিনি এই জমিদার বাড়ির অনেক কিছুই নিজের চোখে দেখেছেন এবং বাবার কাছ থেকে এই জমিদার বংশ সম্পর্কে অনেক কিছু শুনেছেন।

তিনি জানান, ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগ হওয়ার পর এই জমিদারির জমিদার সুধিন্দ্রনাথ চৌধুরী জমিদারি ছেড়ে পালিয়ে যান শুধু তার ছোট ছেলে সরবিন্দ্রনাথ চৌধুরী ১৯৭১ সাল পর্যন্ত এখানকার জমিদারি দেখাশোনা করতেন। স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে সরবিন্দ্রনাথ চৌধুরীর স্ত্রী-সন্তানসহ সবাই চলে যান ভারতে শুধু তিনি ও তার দুইজন কর্মচারী এখানে থেকে যান। কিন্তু ১৯৭১ সালের ২৭ এপ্রিল স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় জমিদার বাড়ির নদীর ওপর পাশে পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাদের গোলাগুলির শব্দ শুনে ভয়ে সরবিন্দ্রনাথ চৌধুরী হার্ট অ্যাট্যাক করে মৃত্যু বরণ করেন। দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭২ সালে জমিদার সরবিন্দ্রনাথ চৌধুরীর ছেলে মন্টু এখানে ফিরে আসলেও তৎকালীন কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তিদের বিভিন্ন হুমকির ভয়ে এই জমিদারি ছেড়ে চলে যান ভারতে। তখন থেকেই পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকে এই জমিদার বাড়িটি আর ধীরে ধীরে দখল করে নেয় স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালী মহল।

তিনি আরও জানান, নওগাঁর কৃতি সন্তান সাবেক মন্ত্রী আব্দুল জলিল ১৯৭৪ সালে এই জমিদার বাড়িটি সংস্কার করে এখানে হস্তশিল্প গড়ে তোলার জন্য সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে। তৎকালীন সরকারের ক্ষমতা বদলের পর এই প্রকল্প আর আলোর মুখ দেখেনি। এরপর থেকে এই জমিদার বাড়িটি সংস্কারের জন্য সরকারসহ কোনো প্রতিষ্ঠান আর কোনো প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।

জমিদার বাড়ির মূল ভবনের সামনের কয়েকটি গম্বুজ ও সামনের অংশের কিছু কারুকার্য এখনও কোনোমতে মাথা উঁচু করে এই জমিদার বাড়ির স্মৃতি মাথায় নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। জমিদার বাড়ির মূল ভবন ছাড়া সমস্ত জায়গা দখল করে গড়ে ওঠেছে নানান বাড়ি-ঘর ও প্রতিষ্ঠান। দীর্ঘদিন কোনো মেরামত না করার ফলে হাজারও প্রাচীন ঐতিহ্যে ভরা এই জমিদার বাড়িটি এখন বিলুপ্তির পথে। মূল ভবনের ওপর জন্ম নিয়েছে নানান ধরনের আগাছা। যেকোনো মুহূর্তে ধসে পড়তে পারে এই জমিদার বাড়িটি। তবুও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাস করছে কিছু পরিবার।

সংশ্লিষ্ট বিভাগ বা কর্তৃপক্ষ উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করে তাহলে প্রাচীন ঐতিহ্যটির একটি পর্যটকদের জন্য একটি দর্শনীয় স্থান হিসাবে গড়ে উঠতে পারে। তাই সচেতন মহল ও এলাকাবাসীদের জোর দাবি সরকার যেন অতি শিগগিরই এই জমিদার বাড়িটির অবশিষ্ট অংশটুকু সংস্কারের মাধ্যমে টিকিয়ে রাখবে।

এ বিষয়ে নওগাঁ জেলা প্রশাসক ড. মো. আমিনুর রহমান জানান, জমিদার বাড়িটি নতুন করে সংস্কার এবং রক্ষণাবেক্ষণের প্রদক্ষেপ গ্রহণসহ যাবতীয় বিষয় সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে জানানো হয়েছে।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/আকন

add-sm
Sonali Tissue
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩