শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭, ৬ কার্তিক ১৪২৪

নিউইয়র্ক সিটির আইডি পেলেন বাংলাদেশীসহ অন্যান্য অধি

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৩:৩৪ পিএম

নিউইয়র্ক সিটির আইডি পেলেন বাংলাদেশীসহ অন্যান্য অধি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রথম বছরে ৭ লাখ ৩২ হাজার ৬৩০ জন নিয়েছেন নিউইয়র্ক সিটির পরিচয়পত্র। ‘মিউনিসিপ্যাল আইডি’ নামক এই পরিচয়পত্র ইস্যু করা হচ্ছে এই সিটিতে বসবাসরত সকল অধিবাসীকে অর্থাৎ লক্ষাধিক বাংলাদেশিসহ বৈধ-অবৈধ নির্বিশেষে সকল অভিবাসীর জন্যেই অবাধে ইস্যু করা হচ্ছে। আইডি ইস্যুকারীরা সিটি মেয়র বিল ডি ব্লাসিয়ো এবং সিটি কাউন্সিলের স্পিকার মেলিসা মার্ক ভিবেরিটোকে গত সপ্তাহে এ তথ্য জানিয়েছেন।
ইস্যুকৃত কাডের মধ্যে কুইন্স কাউন্টি শীর্ষে রয়েছে। এ সংখ্যা ২ লাখ ৩১ হাজার ১২১। দ্বিতীয় শীর্ষে রয়েছে ব্রুকলিন ২ লাখ ১৫ হাজার ৬২৩। ম্যানহাটানে এক লাখ ৩৬ হাজার ৫৫৫ এবং ব্রঙ্কসের এক লাখ ৩১ হাজার ২৪২ জন নিয়েছেন এ কার্ড। সবচেয়ে কম হচ্ছে স্ট্যাটেন আইল্যান্ডে-১৮ হাজার ৬৭। এই কার্ড বহনকারীরা সিটির নানা সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে। বিশেষ করে স্টেট আইডি অথবা ড্রাইভিং লাইসেন্স পাবার যোগ্যতা যাদের নেই অর্থাৎ যারা অবৈধভাবে বসবাস করছেন, তাদের জন্যে এটি বিশেষ অবলম্বনে পরিণত হয়েছে। যদিও অনেকের সন্দেহ রয়েছে যে, এই আইডি নেয়ার সময় দেয়া তথ্য ফেডারেল অথরিটিকে প্রদান করা হতে পারে।
এ ধরনের সন্দেহ অথবা ধারণাকে একেবারেই পাত্তা না দিয়ে সিটি মেয়রের অফিস দৃঢ়তার সাথে মিডিয়াকে জানিয়েছে যে, মিউনিসিপ্যাল আইডি তৈরির সময়ে যে নীতি নির্ধারণ করা হয়েছে সেখানেই স্পষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে যে, কোন তথ্য অন্য কোন অথরিটিতে সরবরাহ করা হবে না। ইতোমধ্যেই অন্তত ৩টি নোটিশ পেয়েছিল সিটি কর্তৃপক্ষ। সে নোটিশের ব্যাপারেও সাড়া দিতে বাধ্য নয় সিটি কর্তৃপক্ষ।

এই কার্ড ব্যবহার করা হচ্ছে ড্রাইভিং লাইসেন্সের বিকল্প হিসেবে। ব্রঙ্কস চিড়িয়াখানা, মেট্রপলিটন মিউজিয়াম এবং ব্রুকলিন একাডেমি অব মিউজিকে টিকিট ছাড়াই প্রবেশাধিকার পেয়েছেন এক লাখ ৬০ হাজার কার্ডধারী। টেনিস খেলার টিকিটে ডিসকাউন্ট পেয়েছেন ১৬০০ কার্ডধারী। এম্পায়ার এস্টেট বিল্ডিং এবং স্ট্যাচু অব লিবার্টি প্রদক্ষিণের ক্ষেত্রে ডিসকাউন্ট পেয়েছেন আরও ১২ হাজার ৭৭ জন।

সিটি কর্তৃপক্ষ জানায়, এই কার্ড ইস্যুর ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ গোপনীয়তা অবলম্বনের পাশাপাশি ভূয়া নাম-ঠিকানা কিংবা ছবি দিয়ে যাতে কেউ কার্ড নিতে না পারে সে ব্যবস্থাও রয়েছে। গত এক বছরে ৭১৩০ জনের আবেদন নাকচ করা হয়েছে প্রতারণার আশ্রয় নেয়ার কারণে।

সোনালীনিউজ/ঢাকা