মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০১৮, ১০ মাঘ ১৪২৪

নিম্ন আদালতে কর্মচারীর শূন্যপদ পূরণে ছাড়পত্র লাগবে না

সোনালীনিউজ অনলাইন
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০১ পিএম

নিম্ন আদালতে কর্মচারীর শূন্যপদ পূরণে ছাড়পত্র লাগবে না

এখন থেকে দেশের নিম্ন আদালতসূমহে সহায়ক কর্মচারীর শূন্যপদ পূরণের পূর্বে আইন বা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ছাড়পত্র গ্রহণের প্রয়োজন পড়বে না।
 
সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের এ সংক্রান্ত রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের করা আবেদন খারিজ করে দেয়া হয়েছে। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ মঙ্গলবার এই রায় দেন।
 
কিশোরগঞ্জের জেলা জজ আদালতে ৫জন কর্মচারী নিয়োগ দেয়া হয়। ওই নিয়োগের সাত মাস পর ২০০৭ সালের ২৪ জুলাই আইন মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে তা বাতিল করা হয়। মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পর নিয়োগ দেয়ার ক্ষেত্রে নির্ধারিত সময়সীমা অতিক্রম করায় ওই বাতিল আদেশ দেয়া হয়। এই সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন মো. আবুল কালাম আজাদসহ ওই কর্মচারীরা।
 
হাইকোর্ট ওই নিয়োগ বাতিলের সিদ্ধান্তকে অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেয়। এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে আইন মন্ত্রণালয়। গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর আপিল বিভাগ শুনানি শেষে হাইকোর্টের রায় বহাল রাখে।
 
রায়ে বলা হয়, অধস্তন আদালতসমূহ আইন মন্ত্রণালয় অথবা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ কোন বিভাগ নয়, এটি সুপ্রিম কোর্টের অধীনস্থ। সংবিধানের ১০৯ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, সকল অধীনস্থ আদালত ও ট্রাইব্যুনাল সমূহের ওপর হাইকোর্ট বিভাগের নিয়ন্ত্রণ ও তত্ত্বাবধান থাকবে। আবার সংবিধানের ১১১ অনুচ্ছেদেও জেলা জজ আদালতসমূহ কার অধীনস্থ থাকবে তা পরিষ্কার করা হয়েছে। মাসদার হোসেন মামলার রায় উল্লেখ করে বলা হয়েছে, বিচার বিভাগ একটি স্বতন্ত্র বিভাগ। কার্যক্রম এবং কাঠামোগতভাবে বিচার বিভাগ প্রজাতন্ত্রের বেসামরিক প্রশাসন ও নির্বাহী বিভাগ থেকে আলাদা।
 
আদালত তার রায়ে আরো বলে, আইন মন্ত্রণালয় জেলা ও দায়রা জজ আদালতকে এই ধরণের আদেশ আইনগতভাবে দিতে পারে-এমন কল্পনার কোন সুযোগ নেই। আপিল বিভাগের এই রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে আবেদন করে মন্ত্রণালয়। ওই পুনর্বিবেচনা আবেদনের শুনানি নিয়ে আপিল বিভাগ তা খারিজ করে দেয়।
 
আইনজীবীরা জানিয়েছেন, আপিল বিভাগের এই রায়ের ফলে নিম্ন আদালতসমূহে সহায়ক কর্মচারী নিয়োগের ক্ষেত্রে এখন থেকে আর কোন মন্ত্রণালয়ের পূর্বানুমতির বা ছাড়পত্র গ্রহণের প্রয়োজন পড়বে না।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/আকন