রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

পরিবার-পরিজন হেফাজতে যা করবেন

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৩:৫৬ পিএম

পরিবার-পরিজন হেফাজতে যা করবেন

সোনালীনিউজ ডেস্ক

আল্লাহর অশেষ শুকরিয়া যে, ভূমিকম্পসহ সকল প্রকার প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে আল্লাহ আমাদের হেফাজত করেছেন। হযরত ইবরাহিম আলাইহিওয়াস সালাম যখন আল্লাহর নির্দেশে তাঁর শিশু সন্তান ইসমাঈলকে ও তাঁর প্রিয়তমা স্ত্রী হযরত হাযেরাকে জনমানবশূন্য প্রান্তর বর্তমান কাবা ও যমযম কূপের কাছে রেখে আসেন, তখন আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের নিকট নিবেদন করেছিলেন- তিনি যেন এই জনমানবহীন মরুপ্রান্তরে নিজ পরিবার-পরিজনের জন্য একটি শান্তির শহরে পরিণত করে দেন। তাঁদের বসবাসে যেন ভীতিজনক না হয় এবং প্রয়োজনীয় জিনিসের সহজলভ্য হয়। শহরটি যেন হত্যা, লুণ্ঠন, অত্যাচারিতের অত্যাচার, বিপদাপদ থেকে সুরক্ষিত ও নিরাপদ হয়।

হযরত ইবরাহিম আলাইহিওয়াস সালামের দোয়ার ফলেই আল্লাহ তাআলা মক্কা নগরীকে সম্মানিত করেছেন এবং নিরাপদ রেখেছেন, ভরে দিয়েছেন সুখ শান্তিতে। যা তিনি কুরআনুল কারীমের মধ্যে আমাদের শিক্ষার জন্য দোয়া হিসেবে উল্লেখ করেছেন। তাইতো আমরা আল্লাহর শেখানো ভাষায় আল্লাহর কাছে নিবেদন করবো।

আল্লাহ বলেন- `রাব্বিজআ’ল হা-যা বালাদান, আ-মিনাও ওয়ারঝুক্ব আহলাহু মিনাছ্ছামারা-তি মান আ-মানা মিনহুম বিল্লা-হি ওয়াল ইয়াওমিল আ-খিরি।`

অর্থ : পরওয়ারদেগার মাওলা! এ স্থানকে তুমি শান্তির স্থান করে দিও এবং এর অধিবাসীদের মধ্যে যারা আল্লাহ ও ক্বিয়ামতের প্রতি বিশ্বাস করে তাদেরকে ফলমূল দ্বারা রিযিক দান করো। (সূরা বাক্বারাহ : আয়াত- ১২৬)

সুতরাং আমরা যেখানে চলি, বসবাস করি, চাকরি করি, আমাদের সন্তান-সন্ততি যে স্থানে পড়াশুনা করে, আমাদের পাড়া প্রতিবেশী যেখানে বসবাস করে আল্লাহ যেন আমাদের সকল আবাসস্থলকে নিরাপদ রাখেন এবং হালাল ও নির্ভেজাল রুটি-রুজির ব্যবস্থা করেন। আমীন, ছুম্মা আমীন।

তথ্যসূত্র : তাফসীরে ইবনে কাছীর ও সহিহ বুখারী।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/আকন

রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩