বৃহস্পতিবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৮, ১ ভাদ্র ১৪২৫

পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে রাজি কিম

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১২ জুন ২০১৮, মঙ্গলবার ০২:৪১ পিএম

পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে রাজি কিম

ঢাকা: সম্পূর্ণ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণে রাজি হয়েছে উত্তর কোরিয়া। এমনটাই জানা গেলো সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত ট্রাম্প কিমের ঐতিহাসিক বৈঠক থেকে। খবর বিবিসির।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন দুইজনই একটি দ্বিপাক্ষিক ‘সমন্বিত’ দলিলে স্বাক্ষর করেছেন। তবে এই দলিলটি দুই কোরিয়ার মধ্যে শান্তিচুক্তি নাকি দুই দেশের মধ্যে মানবাধিকার, অর্থনৈতিক ও ব্যবসায়িক যোগাযোগ স্থাপনের চুক্তি সে সম্পর্কে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া না গেলেও বিবিসির একটি ছবি থেকে জানা গেলে সেই দলিলের চারটি পয়েন্ট।

ট্রাম্প-কিম বৈঠকের প্রধান চারটি পয়েন্ট হলো
১. যুক্তরাষ্ট্র ও গণপ্রজাতন্ত্রী কোরিয়া নতুনভাবে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক স্থাপনে উদ্যোগী হবে, যাতে দুই দেশের মানুষের দীর্ঘমেয়াদি শান্তি ও উন্নতির বিষয়টি প্রতিফলিত হবে।

২. কোরীয় উপদ্বীপে স্থিতিশীল ও শান্তিপূর্ণ শাসনব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে যৌথভাবে কাজ করবে যুক্তরাষ্ট্র ও গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রী কোরিয়া।

৩. ২৭শে এপ্রিল ২০১৮’র পানমুনজাম বিবৃতিতে কোরীয় উপদ্বীপকে সম্পূর্ণ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের অঙ্গীকার রক্ষা করবে গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রী কোরিয়া।

৪. যুক্তরাষ্ট্র ও গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রী কোরিয়া যুদ্ধবন্দীদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে ভূমিকা রাখবে এবং এরই মধ্যে যেসব যুদ্ধবন্দী চিহ্নিত হয়েছেন, তাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া অতিসত্তর শুরু করবে।

চীনের আনুষ্ঠানিক সংবাদ সংস্থা শিনহুয়া নিউজ এজেন্সি কিম-ট্রাম্প বৈঠক সম্পর্কে বলেছে, এই বৈঠক ‘কোরিয় উপদ্বীপের পারমাণবিক অস্ত্র ইস্যুর একটি রাজনৈতিক সমাধানের’ আশা তৈরি করেছে।

তবে তারা আরও বলেছে, অর্ধদিবসের এই বৈঠক যে দুই দেশের বহুদিনের বৈরিতা ও অবিশ্বাসের মানসিকতা মুছে ফেলে সৌহার্দ্যের পথে নিয়ে যাবে তেমনটা কেউ আশা করছে না।

সংবাদমাধ্যমটি আরও জানায়, পারমাণবিক অস্ত্রমুক্ত উপদ্বীপ গঠন ও আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা করে উন্নয়নের পথে যাত্রার জন্য প্রয়োজন জ্ঞান ও ধৈর্য্য। এরকম ক্ষেত্রে প্রথম পদক্ষেপটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও কঠিন।


সোনালীনিউজ/ঢাকা/আকন