মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ হ্যাকিং : ফিলিপাইনে শনাক্ত

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৩:৩৪ পিএম

বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ হ্যাকিং : ফিলিপাইনে শনাক্ত

সোনালীনিউজ ডেস্ক

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ হ্যাক করে ৮০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় ছয়জনকে শনাক্তের পর তদন্ত শুরু করেছে ফিলিপাইনের এন্টি-মানিলন্ডারিং বিভাগ (এএমএলসি)। খবর ফিলিপাইন ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ইনকিউয়ার ডট নেটের।

সংবাদমাধ্যমটির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এএমএলসি প্রাথমিকভাবে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনায় মিশেল ফান্সসিসকো ক্রুজ, জেসি ক্রিস্টোফার ল্যাগরোসাস, আলফ্রেড সানটস ভারগারা, এনরিকো টিওডোরো বাসকিউজ, উইলিয়াম সোগো এবং কিম ওং কে শনাক্ত করেছে।

সংবাদ মাধ্যমটির প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ক্রুজ, লেগরোসাস, ভারগারা ও ভাসকুইজ প্রত্যেকে গত বছরের ১৫ মে ৫০০ ডলার দিয়ে ফিলিপাইনের স্থানীয় ত্রিজেল কমার্শিয়াল ব্যাংক করপোরেশন (আরসিবিসি) ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট খোলেন। দীর্ঘদিন এসব অ্যাকাউন্টে কোনো লেনদেন হয়নি। এরপর ৫ ফ্রেব্রুয়ারি পর্যন্ত উল্লেখিত চার ব্যক্তির আরবিসির ব্যাংক হিসাবে ৮১ মিলিয়ন ডলার যোগ হয়। অথচ এর আগ পর্যন্ত এ সব হিসাবে কোনো লেনদেন হয়নি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ক্রুজ, লেগরোসাস, ভারগারা ও ভাসকুইজের কোনো নির্দিষ্ট আয়ের উৎস নেই। অথচ একদিনে তাদের অ্যাকাউন্টে ৮১ মিলিয়ন ডলার যোগ হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ঘটনাটি টের পাওয়ার আগেই তারা অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা তুলে নেন।

ফিলিপাইনের দৈনিক দি ইনকোয়েরার পত্রিকা ২৯ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ থেকে ১০ কোটি ডলার মানি লন্ডারিং হয়েছে বলে খবর প্রকাশ করে। ওই খবরে বলা হয়, দেশটির মাকাতি শহরে অবস্থিত রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং করপোরেশনের একটি শাখার মাধ্যমে ওই অর্থ ফিলিপাইনে আসে। চিনা হ্যাকাররা বাংলাদেশ ব্যাংক অথবা সেখানকার কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে এ অর্থ হাতিয়ে নেয়। হ্যাকার দল এ অর্থ প্রথমে ফিলিপাইনে পাচার করে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, অর্থ পাচারের এ ঘটনা তদন্ত করছে ফিলিপাইনের অ্যান্টি-মানি লন্ডারিং কাউন্সিল। বিভিন্ন তথ্যসূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, পরে ওই অর্থ সেখান থেকে ক্যাসিনোসহ একাধিক হাত ঘুরে অন্য দেশে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

সোনালীনিউজ/আমা

add-sm
Sonali Tissue
মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩