সোমবার, ২১ মে, ২০১৮, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫

ওয়াসার ‘শান্তি’ও রয়েছে তালিকায়

বাজারে নামি কোম্পানির মানহীন পণ্য

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ মে ২০১৮, বুধবার ০৬:০৬ পিএম

বাজারে নামি কোম্পানির মানহীন পণ্য

ঢাকা : গুণগত মান বজায় না রেখেই অনেক নামিদামি কোম্পানি বাজারে তাদের পণ্য বিক্রি করছে। ক্রেতারা তুলনামূলক বেশি দামে এসব পণ্য কিনে ঠকছেন নিয়মিত। পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণকারী রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান বিএসটিআই সম্প্রতি বেশ কয়েকটি কোম্পানির পণ্যের নমুনা বাজার থেকে সংগ্রহ করে নিজস্ব ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করে এ ফল পেয়েছে। রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান ঢাকা ওয়াসার উৎপাদিত ‘শান্তি’ ব্র্যান্ডের পানিও রয়েছে মানহীন পণ্যের তালিকায়।

আসন্ন রমজান উপলক্ষে খাদ্যপণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে বিএসটিআইয়ের গৃহীত বিশেষ কার্যক্রম সম্পর্কে মঙ্গলবার (১৫ মে) শিল্প মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু রমজান উপলক্ষে বিএসটিআইয়ের কার্যক্রম তুলে ধরেন।

এ সময় শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিবের রুটিন দায়িত্ব পালনরত (অতিরিক্ত সচিব) মো. দবিরুল ইসলাম, বিএসটিআইয়ের মহাপরিচালক সরদার আবুল কালামসহ শিল্প মন্ত্রণালয় ও বিএসটিআইয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। মানহীন পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- আকিজ ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের উৎপাদিত ফার্ম ফ্রেশ মিল্ক, আফতাব মিল্ক অ্যান্ড মিল্ক প্রোডাক্ট লিমিটেডের আফতাব মিল্ক, বগুড়া স্পেশাল কোম্পানি উৎপাদিত বগুড়া স্পেশাল ঘি, ভাই ভাই ফুড প্রোডাক্ট অ্যান্ড কোম্পানির উৎপাদিত অরিজিনাল বাঘাবাড়ী ঘি, ড্যানিশ ফুড লিমিটেডের উৎপাদিত ড্যানিশ লাচ্ছা সেমাই, এস আলম সুপার এডিবল অয়েল লিমিটেড ও এস আলম ভেজিটেবল অয়েল লিমিটেডের উৎপাদিত ফর্টিফাইড পাম অলিন ও ফর্টিফাইড সয়াবিন তেল, শবনম ভেজিটেবল অয়েল লিমিটেডের ফর্টিফাইড সয়াবিন তেল, অন্তর ড্রিংকিং ওয়াটারের উৎপাদিত ‘অন্তর পানি’, এ ওয়ান ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের ‘ওয়াটার আলপিনা’, মেজবান রেস্টুরেন্টের উৎপাদিত ‘রিয়েল ফাস্ট’ ব্র্যান্ড পানি।

রমজানে ইফতার ও সাহরিতে অধিক পরিমাণ ব্যবহৃত হয় এ ধরনের ২৪টি পণ্যের মোট ২৮৬টি নমুনা বাজার থেকে সংগ্রহ করে বিএসটিআই। এর মধ্যে ১৭৫টির নমুনা রিপোর্ট পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে উপরোলি­খিত কোম্পানিগুলোসহ মোট ৩৬টি কোম্পানির পণ্য মানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেনি।

পণ্যের গুণগত মান না থাকার বিষয়ে বিএসটিআইয়ের পরিচালক (সিএম) প্রকৌশলী এসএম ইসহাক বলেন, নমুনা পরীক্ষা করে পণ্যগুলোতে কোনো ধরনের ভেজাল পাইনি। তবে মান অনুযায়ী পণ্যগুলোতে যে পরিমাণ উপাদান থাকার কথা তা পাওয়া যায়নি। ফলে এগুলোকে আমরা মানহীন পণ্য বলে অভিহিত করছি। যেসব কোম্পানি মানহীন পণ্য উৎপাদন করছে তাদেরকে নোটিশ পাঠিয়েছি। নোটিশের জবাব পাওয়ার পর তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

রমজানে সারা দেশে মোবাইল কোর্ট : রমজানে ভেজাল ও নিæমানের খাদ্যপণ্য প্রস্তুত ও বিপণন রোধে ঢাকাসহ সারা দেশে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। রোজাদাররা সচরাচর যে ধরনের খাদ্য ও পানীয় গ্রহণ করে থাকেন অভিযানে সেসব পণ্যের ওপর বিশেষ নজর রাখা হবে বলে জানান তিনি।

ফরমালিন পাওয়া যায়নি : বিএসটিআইয়ের নিরবচ্ছিন্ন অভিযানের কারণে মৌসুমী ফলে ফরমালিন ব্যবহার প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে বলে দাবি করেন শিল্পমন্ত্রী। তিনি বলেন, বিএসটিআইয়ের রুটিন ওয়ার্কের পাশাপাশি হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী সার্ভিল্যান্সের মাধ্যমে বাজার থেকে ফলমূল কিনে ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করা হচ্ছে। চলতি অর্থবছরে বিভিন্ন ধরনের ৪৩০টি ফলমূল কিনে পরীক্ষা করা হয়েছে। এর কোনোটিতে ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।

সোনালীনিউজ/এমটিআই