বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

বিমল হত্যা মামলায় সাতজনের যাবজ্জীবন

ফেনী প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

বিমল হত্যা মামলায় সাতজনের যাবজ্জীবন

ফেনীর আলোচিত বিমল হত্যা মামলায় ১৮ বছর পর সাতজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ দুই লাখ টাকা করে জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও দুই বছর করে সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১ জুন) দুপুরে ফেনীর অতিরিক্ত দায়রা জজ নিলুফার সুলতানা এ রায় ঘোষণা করেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলো- নোমান ওরফে আবদুল নোমান, সবুজ, মোশারফ হোসেন প্রকাশ জসিম, জাসম উদ্দিন ওরফে বলি, জহীর, খোরশেদ আলম ওরফে খুরশিদ ও আবদুল মোতালেব ওরফে সবুজ। মামলার অপর আট আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়াও একই আদালত অপর একটি ধারায় নোমান ওরফে আবদুল নোমান, সবুজ, জাসম উদ্দিন ওরফে বলি, জহীর ও আবদুল মোতালেব ওরফে সবুজ এবং আবদুর রহিম নামে অপর একজনকে সাত বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড, ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও ছয় মাস করে কারাদণ্ডাদেশ দেন।

রায়ে বলা হয়, আসামিদের হাজতবাস দণ্ডাদেশ থেকে বাদ যাবে। সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা সবাই পলাতক থাকায় গ্রেফতারি অথবা আত্মসমর্পণের পর থেকে সাজা কার্যকর হবে।

আদালতের সহকারী সরকারি কৌঁসুলি (এপিপি) দ্বিজেন্দ্র কুমার কংসবণিক রায়ের খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বিবরণীতে সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৭ সালের ২৭ অক্টোবর ফেনীর ফুলগাজীর শ্রীচন্দ্রপুর গ্রামের বিমল চন্দ্র রায়কে ইট দিয়ে আঘাত করে এবং শরীরের বিভিন্ন স্থানে ড্রিল মেশিন দিয়ে ছিদ্র করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় তাঁর ভাই পরিমল চন্দ্র বাদী হয়ে ৩৬ জনের নাম উল্লেখ করে ফুলগাজী থানায় একটি মামলা করেন। মামলাটি পরে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগে (সিআইডি) স্থানান্তর করা হয়। সিআইডি ১৯৯৯ সালের ৩ এপ্রিল ১৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২০০৯ সালে মামলার ১ নম্বর আসামি নিজাম উদ্দিন ওরফে নিজাম ডাকাত র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়। একই বছর রফিকুল ইসলাম মজুমদার নামের অপর একজন আসামির মৃত্যু হয়।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/এমএইচএম

 

add-sm
Sonali Tissue
বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৪ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩