মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

ব্যায়াম না করেই করুন ডায়েট!

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

ব্যায়াম না করেই করুন ডায়েট!

ডেস্কে বসে কাজ করতে গিয়ে ওজন বেড়ে গেছে? সারাদিন ক্লাস আর পড়ার চাপে ব্যায়াম এর সময় মেলে না? কিংবা ভালোই লাগে না ব্যায়াম করতে?

হতেই পারে এমন, সারাটা দিন তো আমরা আর কম ব্যস্ত সময় কাটাই না। এত কাজের চাপে নিজের শরীরের দিকে খেয়াল করাটা আসলেই মুশকিল হয়ে দাঁড়িয়েছে। আর তাই হয়ত আপনি ভাবছেন ডায়েট করবেন, তাই না?

এতো খুব ভালো সিধান্ত! কিন্তু একটা জিনিস ভুলে গেলে চলবে না যে ডায়েট মানে না খেয়ে থাকা নয়। আর লাঞ্চের সময় ডায়েট মানে তো মোটেই খাওয়া বাদ দেয়া নয়। বরং খেতে হবে সুষম ও পুষ্টিকর খাবার, যা আপনার শরীরে জমবে না কিন্তু এনার্জি যোগাবে।

না খেয়ে খালি পেটে থাকলে কখনও শরীরের কোনও উপকার হয়না, এমনকি তা ওজন কমাতেও সহায়ক নয়। বরং লাঞ্চে যদি না খেয়ে থাকেন তাহলে আর বাকি দিন কাজ বা লেখাপড়ার শক্তি পাবেন না মোটেই। কর্মউদ্যম একেবারেই হারিয়ে যাবে।
আসুন, আজ জেনে নেই লাঞ্চের সময়ে ডায়েট করার কৌশল। তবে অবশ্যই খেয়েই করবেন এই ডায়েট

– লাঞ্চে ডায়েট করতে চাইলে প্রথমেই ভাত- তরকারী খাবার অভ্যাসটা ছেড়ে দিন। ভাতে ক্যালোরি তো বেশী অবশ্যই, সাথে তরকারির কারণে বেশ অনেকটা বাড়তি তেলও খাওয়া হয়। ভাত বা ভাত জাতিত খাবার যেমন রাইস, পোলাও, বিরিয়ানি, খিচুড়ি ইত্যাদি সব ত্যাগ করুন।

– লাঞ্চের আগে- পরে চা কফি খাবার অভ্যাস থাকলে সেখান থেকে চিনি এবং দুধকে বাদ দিন। নতুবা চিনির বিকল্প ব্যবহার করুন।

– ভাত খাবেন না তো কি খাবেন? খেতে পারেন ২/১ টুকরো স্যান্ডুইচ, তবে তা অবশ্যই বাড়িতে বানানো। কেনা স্যান্ডুইচ খেয়ে ডায়েট করা অর্থহীন। চিকেন বা ডিম সিদ্ধর সাথে বেশী করে শসা টমেটো লেটুস দিয়ে বানাতে পারেন স্যান্ডুইচ, সাথে ব্যবহার করবেন কম ক্যালোরি মেয়নিজ। যদি মেয়নিজ বাদ দিতে চান তো অল্প করে সস মাখিয়ে নেবেন রুটিতে, তাহলেই লাগবে মুখরোচক। গ্রিল বা তন্দুরি মুরগী ব্যবহার করলে মেয়নিজ বা সসেরও দরকার পড়বে না মোটেই।

– স্যান্ডুইচ খেতে ভালো লাগলে বা বাসায় বানানো ঝামেলা মনে হলে আছে আরেক সমাধান। ঘরে বানানো আটার রুটির মাঝে অল্প সস বা মেয়নিজ মাখিতে সালাদ ও মাংস কিংবা ডিম ভরে রোল করে নিন। কম ক্যালরিতে চমৎকার লাঞ্চ তৈরি।

– লাঞ্চের খাদ্য তাকিলায় অবশ্যই রাখুন একটি আপেল বা কমলা। আমাদের দেশে যে বাউ কূল বা আপেল কূল পাওয়া যায় সেইগুলোও রাখতে পারেন। দামে সস্তা, খেতেও খুব ভালো। খেতে পারেন তরমুজ, আনারসও।

– ফল খেতে গিয়ে কলা, আম, পাকা পেঁপে, আতা ইত্যাদি ফল খেয়ে ফেলবেন না। এদেরকে পরিহার করুন।

– লাঞ্চের পর সফট ড্রিঙ্ক খাবার অভ্যাস থাকলে তা একেবারেই ছেড়ে দিন।

– একটি স্যান্ডুইচে মন না ভরলে কয়েকটি কম ক্যালোরি ক্রাকারস (চিনি ছাড়া) খেতে পারেন সাথে।

– এখন ছোট কাপে দই কিনতে পাওয়া যায়, অভ্যাস করতে পারেন তেমন দই খাবার। তবে টক দই অবশ্যই।

– জুস খেতে চাইলে কেনা জুস একদমই পরিহা করুন। কেনা জুসে চিনি আর কেমিক্যাল ছাড়া কিছু থাকে না। ওজন কমাবার বদলে উলটো ওজন বাড়িয়ে ফেলবে। জুস খেতে চাইলে ডাবের পানিই সেরা সমাধান। ক্যালোরি যেমন নেই, তেমনি আছে পটাশিয়াম সহ প্রয়োজনীয় বেশ কিছু উপাদান। যা আপনার শরীরকে চনমনে রাখবে।

– সময় থাকলে চিকেন সালাদ বানিয়ে খেতে পারেন লাঞ্চ হিশাবে।

একটু চেষ্টা করেই দেখুন না। লাঞ্চে নে খেয়ে থাকবার বদলে পেট পুড়ে খেয়েই আপনার কেমন ওজন কমে… ব্যাপারটা লক্ষ্য করে আপনি নিজেই বিস্মিত হবেন নিশ্চিত।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/আকন

মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩