রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

মার্কিন নৌ-ঘাঁটিতে মধ্যরাতে কারফিউ জারি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

মার্কিন নৌ-ঘাঁটিতে মধ্যরাতে কারফিউ জারি

জাপানের ওকিনাওয়া দ্বীপে অবস্থিত মার্কিন নৌ-ঘাঁটিতে মধ্যরাতে কারফিউ জারি এবং সেই সঙ্গে অ্যালকোহল সেবন নিষিদ্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। সাবেক এক মার্কিন মেরিন সেনা জাপানের এক নারীকে হত্যার পর এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হলো। নিষেধাজ্ঞা চলবে ২৪ জুন পর্যন্ত।

সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এখন থেকে মধ্যরাতের পর ওই ঘাঁটির বাইরে কোনো পানশালায় সেনা সদস্যদের বাইরে এবং ঘাঁটির বাইরে মদপানে নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হলো। যেহেতু ওকিনাওয়ার জনগণ শোকাচ্ছন্ন তাই ওই সময়ে মার্কিন ঘাঁটিতে কোনো উৎসবের আয়োজন করা যাবে না।

জাপানে মার্কিন মেরিন সেনা কমান্ডার লে. জে. লরেন্স নিকলসন এক সংবাদ সম্মেলনে ওকিনাওয়া দ্বীপের নারী নিহতের ঘটনায় শোক প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, দ্বীপের মানুষের সঙ্গে শোকে একাত্ম হবে মার্কিন সেনারা। মধ্যরাতের পর ঘাঁটির বাইরে কোনো ক্লাব বা বারে মদপান থেকে বিরত থাকবে সেনারা। এ ছাড়া ঘাঁটিতে পূর্ব নির্ধারিত কনসার্ট নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

ওকিনাওয়া দ্বীপের মার্কিন ঘাঁটিতে ৩০ হাজারে মতো মার্কিন সেনা থাকে, যা জাপানে থাকা মোট মার্কিন সেনাদের অর্ধেক। জাপানি নারী হত্যার ঘটনায় সাবেক মার্কিন সেনা কেনেথ শিনজাটোকে (৩২) গত ১৯ মে আটক করা হয়। তবে এখনো তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।

জাপানি নারী নিহত হওয়া এবং এর সঙ্গে সাবেক মার্কিন সেনা জড়িত থাকার ঘটনায় ওকিনাওয়া দ্বীপের মার্কিন ঘাঁটি নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভ দেখা গেছে। সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ‘জি-সেভেন’ সম্মেলনের জন্য জাপান গেলে দেশটির প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে ওকিনাওয়া দ্বীপে নারী নিহতের ঘটনার কথা উত্থাপন করেন।

ওকিনাওয়া দ্বীপে মার্কিন সেনাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ নতুন কিছু নয়। এর আগে ২০১৩ সালে মার্কিন মেরিন সেনা কর্তৃক এক নারী ধর্ষিতা হয়েছে- এমন অভিযোগের ভিত্তিতে একবার রাত্রিকালীন কারফিউ জারি করা হয়েছিল সেখানে। এছাড়া ১৯৯৫ সালে এক মার্কিন কর্মচারী ১২ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ করলে ব্যাপক আন্দোলনের সূত্রপাত হয়।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/আকন

add-sm
Sonali Tissue
রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩