শনিবার, ২০ জানুয়ারি, ২০১৮, ৭ মাঘ ১৪২৪

‘মেডিক্যাল কলেজ, হাসপাতাল ধুমপানমুক্ত রাখার নির্দেশ’

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

‘মেডিক্যাল কলেজ, হাসপাতাল ধুমপানমুক্ত রাখার নির্দেশ’

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম দেশের সব মেডিকেল কলেজ, হাসপাতাল ও ক্লিনিককে ধুমপানমুক্ত রাখতে কর্তৃপক্ষকে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, কাউকে হাসপাতাল, ক্লিনিক বা মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে ধূমপান বা তামাক সেবন করতে দেখলে সাথে সাথে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এক্ষেত্রে হাসপাতালের চিকিৎসক বা কলেজের অধ্যাপকদেরকে বেশি সতর্ক থাকতে হবে। চিকিৎসায় নিয়োজিত চিকিৎসক বা অধ্যাপক যদি নিজেই ধূমপানের মতো ক্ষতিকারক নেশায় আসক্ত থাকেন, সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য উন্নয়নে তিনি কোন ভূমিকাই রাখতে পারেন না। তাঁদের বিরুদ্ধে ক্যাম্পাসে ধূমপানের অভিযোগ পাওয়া গেলে শাস্তিমূলক বদলি করা হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মঙ্গলবার (৩১ মে) ঢাকায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ‘বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

স্বাস্থ্য সচিব সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মোহাম্মদ নূরুল হক, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মাহমুদ হাসান, মহাসচিব অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আমি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেওয়ার পরই ঘোষণা দিয়েছিলাম, যারা মেডিকেলে ভর্তি হবে তাদেরকে অবশ্যই ধূমপানমুক্ত থাকার সার্টিফিকেট হাজির করতে হবে। এখন বলতে চাই যারা বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে লেখাপড়া করছে তাদের সবাইকে ধূমপানমুক্ত থাকতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটানো যাবে না।

এ সময়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী সরকারি কর্মকর্তা, শিক্ষক, রাজনীতিবিদ, ছাত্র-ছাত্রী, প্রকৌশলী, ইমাম, চিকিৎসক, সাংবাদিকসহ সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে ধূমপানমুক্ত থাকতে এবং মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছেন ২০৪০ সালের মধ্যে দেশকে ধূমপানমুক্ত করবেন। তিনি একা এটা করতে পারবেন না। আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

অনুষ্ঠানে দেশে তামাক নিয়ন্ত্রণে গণসচেতনতা বৃদ্ধিসহ নানাবিধ কার্যক্রমে অবদান রাখার জন্য বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তিবর্গকে বিশেষ সম্মাননা পদক দেওয়া হয়।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/এমএইচএম