বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৮, ৫ পৌষ ১৪২৫

যমজ সন্তান নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে তরুণী!

নেত্রকোনা প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১২ আগস্ট ২০১৮, রবিবার ০৮:৩৮ পিএম

যমজ সন্তান নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে তরুণী!

নেত্রকোনা: যমজ সন্তান নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নিয়েছেন সালেহা আক্তার (২২) নামে এক তরুণী। আর এ ঘটনাটি ঘটেছে নেত্রকোনার কমলাকান্দা উপজেলায়।

বুধবার (৯ আগস্ট) থেকে ওই তরুণী উপজেলার কৈলাটী ইউনিয়নের বেলতলী গ্রামের আফসর উদ্দিনের ছেলে প্রেমিক মজনু মিয়ার (২৫) বাড়িতে স্ত্রীর অধিকার ও যমজ সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের দাবিতে অবস্থান করছেন।

এদিকে ওই ঘটনায় সালেহার বাবা সাফাজ্জল হোসেনের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে শনিবার (১১ আগস্ট) রাতে মজনু মিয়ার মা জাকিয়া আক্তার শোভাষকে আটক করেছে পুলিশ।

সালেহার পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, প্রায় ছয় মাস আগে ওই এলাকার সাফাজ্জল হোসেনের মেয়ে সালেহা আক্তারের সঙ্গে সামাজিক ও পারস্পারিক আলোচনার মাধ্যমে একই ইউনিয়নের বীর সিধলী গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে বিল্লাল হোসেনের (৩০) বিয়ে হয়। গত ২১ জুলাই সালেহা তার বাবার বাড়িতে যমজ দুই ছেলে সন্তানের জন্ম দেন। এরপর এনিয়ে ওই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়।

সালেহা আক্তারের স্বামী বিল্লাল হোসেন জানান, চলতি বছরের ১৫ ফেব্রুয়ারি সালেহা আক্তারকে বিয়ে করেন তিনি। এখন তাদের বিয়ের বয়স ছয় মাস। কিন্তু সালেহা যে যমজ দুই সন্তানের জন্ম দিয়েছে তাদের বয়স নয় মাস। তাই তিনি ওই যমজ সন্তানের বাবা নন।

তিনি আরো জানান, বিয়ের আগে একই গ্রামের আফসর উদ্দিনের ছেলে মজনু তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেন। এ প্রস্তাবে সাড়া দিয়ে তিনি মজনুর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলেন। এরই একপর্যায়ে মজনু তাকে বিয়ে করবে বলে তার সঙ্গে দৈহিক সম্পর্কে লিপ্ত হয়। এই দুই যমজ সন্তানের বাবা মজনু।

বুধবার (৯ আগস্ট) থেকে তিনি সন্তানদের অধিকারের দাবিতে মজনুর বাড়িতে অবস্থান করছেন। কিন্তু মজনুর পরিবারের কেউ তাকে ও তার সন্তানদের মেনে নিচ্ছে না। উল্টো বাড়ি থেকে যমজ সন্তানসহ তাকে মারপিট করে টেনে হিঁচড়ে বের করে দিতে চাইলে প্রতিবেশীরা বাধা দেয়।

সালেহার মা জুবেদা খাতুন বলেন, সালেহার প্রেমের কথা জানা ছিল না। আর তার গর্ভে যে সন্তান রয়েছে শরীর দেখে আমি তা বুঝতে পারিনি। বিষয়টি না জেনেই আমরা সালেহাকে বিল্লালের সঙ্গে বিয়ে দিয়েছিলাম।

এ বিষয়ে মজনুর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যানি। তবে মজনুর বোন মিতু আক্তারের দাবি- সালেহার গর্ভের সন্তানদের বাবা তার ভাই মজনু নয়।

কলমাকান্দা থানার ওসি একেএম মিজানুর রহমান অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, মজনুর মাকে আটক করা হয়েছে। এলাকাবাসী বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা চালাচ্ছে।

সোনালীনিউজ/এমএইচএম

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue