সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

যেভাবে আসবে বাজেটের টাকা

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৪:০৫ পিএম

যেভাবে আসবে বাজেটের টাকা

২০১৫-১৬ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেটের মূল ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা। যা জিডিপির ১৭ দশমিক ৪ শতাংশ। অনুন্নয়নমূলক ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ২৩ হাজার ৫৭৮ কোটি টাকা। উন্নয়নমূলক ব্যয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ১৭ হাজার ২১ কোটি টাকা। স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের ব্যয়সহ এবারের বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) জন্য মোট বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১ লাখ ১০ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতনভাতা বাবদ ব্যয় হবে ৫২ হাজার ৮৭০ কোটি টাকা। যা বাজেটের মোট বরাদ্দের ১৫ দশমিক ৫২ শতাংশ।

ঘাটতি বাজেটের পরিমাণ ৯৭ হাজার ৮৫৩ কোটি টাকা। যা জিডিপির ৫ শতাংশ।
বাজেটে বাস্তবায়নে অর্থ প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বৈদেশিক অনুদান ১ দশমিক ৬ শতাংশ। বৈদেশিক ঋণ ৯ শতাংশ। অভ্যন্তরীণ অর্থায়ন ১৮ দশমিক ১ শতাংশ। কর বহির্ভূত প্রাপ্তি ৯ দশমিক ৫ শতাংশ। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড বহির্ভূত কর ২ দশমিক ১ শতাংশ এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ড নিয়ন্ত্রিত কর ৫৯ দশমিক ৭ শতাংশ।

সরকারের আয়ের ক্ষেত্রে বড় খাত হচ্ছে রাজস্ব আদায়। ২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে মোট রাজস্ব আয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৪২ হাজার ৭৫২ কোটি টাকা। রাজস্ব আয়ের মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে ২ লাখ ০৩ হাজার ১৫২ কোটি টাকার কর রাজস্ব বাবদ সরকারের আয় ধরা হয়েছে। এনবিআর বহিবর্ভূত কর খাত থেকে পাওয়া যাবে ৭ হাজার ৫ হাজার ২৫০ কোটি টাকা। এ বছর এই ঘাটতি মেটাতে বৈদেশিক সহায়তা বাবদ পাওয়া যাবে ৪০ হাজার কোটি টাকা। যা জিডিপির মাত্র ১ দশমিক ৮ শতাংশ।

অভ্যন্তরীণ সূত্র থেকে ধার করতে হবে ৬১ হাজার ৫৪৮ কোটি টাকা। অভ্যন্তরীন উৎস্য থেকে পাওয়া যাবে ৫৬ হাজার ৫২৩ কোটি টাকা যা জিডিপির ৩ দশমিক ৩ শতাংশ। অভ্যন্তরীণ উৎসের মধ্যে ব্যাংক থেকে ব্যাংক থেকে ঋন নেওয়া হবে ৩৮ হাজার ৯৩৮ কোটি টাকা। যা জিডিপির ২ দশমিক ২ শতাংশ। সঞ্চয়পত্র ও অন্যান্য ব্যাংক বহির্ভূত খাত থেকে পাওয়া যাবে ২২ হাজার কোটি টাকা। যা জিডিপির ১ শতাংশের কিছু বেশি।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/জেডআরসি/এমটিআই

add-sm
Sonali Tissue
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩