বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭, ৮ ভাদ্র ১৪২৪

যে পাঁচ লক্ষণ ডেটিংয়ের জন্য অশনিসংকেত

সোনালীনিউজ ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২৮ জুন ২০১৭, বুধবার ১০:৪৬ এএম

যে পাঁচ লক্ষণ ডেটিংয়ের জন্য অশনিসংকেত

ঢাকা: আত্মবিশ্বাসী মানুষদের জন্যেও ডেটিং হতে পারে আতঙ্কের বিষয়। কাউকে না দেখে বা দেখার পরও ডেটিং নিয়ে নানা দুশ্চিন্তা মনে কাজ করে। সবকিছু নিয়ে দুশ্চিন্তা না করে ডেটিংয়ের অশনিসংকেতগুলো চিনে নিন কয়েকটি লক্ষণে। এখানে বিশেষজ্ঞরা দিয়েছেন এমনই ৫টি লক্ষণের কথা।

১. যখন তা তুলনামূলক আলোচনা হবে : এমন হতে পারে ডেটিংয়ে একে অপরকে নিয়ে নানা বিশ্লেষণ করে যাচ্ছেন। এটা এমনিতেই চলে। কিন্তু কে কেমন তা নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার কাজটি শোভন নয়। তা ছাড়া অন্যকে উদাহরণ হিসাবে টেনে তুলনা করা মোটেও ভালো কাজ নয়।

২. শ্রদ্ধাবোধ না থাকা : একের প্রতি অপরের শ্রদ্ধাবোধ কাজ করতে হবে। আগে এসে অপেক্ষার পালাসহ বিভিন্ন আচরণে এ বিষয়টি ফুটে ওঠে। ডেটিংয়ে প্রত্যেকের উদ্দেশ্য থাকে অপরকে খুশি করা। কিন্তু এ কাজে যদি পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ না দেখা যায় তবে সহজেই বুঝতে পারবেন।

৩. স্মার্টফোনেই বেশি আসক্তি : ডেটিংয়ে এসেছেন ঠিকই। কিন্তু দুজনেরই বা যেকোনো একজনের মূল আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু তার স্মার্টফোন। এ ক্ষেত্রে ডেটিংয়ের মর্মার্থ থাকে না। কাজেই খেয়াল করুন, অপরজন আপনাকে ছাড়া অন্য কিছুতে মন দিয়েছেন কিনা।

৪. খুব বেশি বিলম্বে আসা : কারো আসতে বিলম্ব হলে তা খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয়। কিন্তু ১৫-২০ মিনিট দেরি হওয়ার পর অপেক্ষারতকে বিলম্বের কারণ না জানানোটা অভদ্রতার লক্ষণ। দেরি হলে তা জানিয়ে দেওয়া ভালো। আগে থেকে জানালে বিষয়টি মনে আঘাত দেবে না।

৫. প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব : ডেটিংয়ে একজন অপরজনকে বুঝবেন। তারা নিজের অনেক বিষয় করবেন। কিন্তু যার যার অবস্থান নিয়ে প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব কাম্য নয়। কে কি করছেন বা কার চেয়ে কে বেশি গুণী তা ডেটিংয়ের বিষয় নয়। যদি ঘটনা ঘটেই যায় তবে তা ডেটিংয়ের অশনিসংকেত। সূত্র : ইনডিপেনডেন্ট

সোনালীনিউজ/এইচএআর