রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩

হীরা হাসে দুর্বা ঘাসে

আপডেট: ১৫ জুন ২০১৬, বুধবার ১২:০৯ পিএম

হীরা হাসে দুর্বা ঘাসে

সোনালীনিউজ ডেস্ক
খেজুর রসে মুড়ি ভাসিয়ে খাওয়া চলে অধিকাংশ তুরতুরে শীতের সকালে। মায়ের হাতে শীতের কাপড় পরা। তারপর কাঁধে স্কুল ব্যাগ নিয়ে গাঁয়ের পথ ধরে হেঁটে চলা। চলতি পথে সদ্য ওঠা সূর্যটা এসে চোখের ওপর কীরণ ছড়ায়। বুঝতে বাকি থাকে না- এ তার নিতান্তই দুষ্টুমি। চোখ সরিয়ে মেঠো পথে নামাতেই অপেক্ষা আরেক ঝিলিকের। ওমা! দুর্বা ঘাসের মাথায় বিন্দু বিন্দু চোখ ধাঁধানো ঝিকিমিকি। মা-দাদীর কাছে শোনা গল্পের হীরা হয়তো এভাবেই ঝলকায়। গল্প বুঝি এবার সত্যি হয়ে ধরা দিল, এই হীরা আমার চাই-ই।

দুর্বার মাথায় হাসছে রূপকথার জ্বলজ্বলে হীরা-মানিক্য। হিমেল হাওয়ায় কেউ কেউ উড়েও পালাচ্ছে। কিন্তু তাকে তো আর পালিয়ে যেতে দেয়া যায় না। সহপাঠীদের সঙ্গে মত্ত হয়ে হীরা ধরার পালা। হীরা ধরতে গিয়ে স্কুল যাওয়ার কথা মনেই নেই। এদিকে কচি হাতের স্পর্শ পেতে না পেতেই নেতিয়ে পড়ে হীরার টুকরো, পানি হয়ে ঝরে টুপটুপ।

শিশিরে ভেজা ধুলো কাদা হয়ে লেপটে যায় পায়ে, জামা-জুতোয়। ওদিকে স্কুলের ঘণ্টা বেজে ক্লাস শুরু হয়ে গেছে। দলবেধে দৌড় এবার ক্লাসের দিকে। দেরি করার জন্য কতো যে মার খাওয়া। ছোটবেলায় শীতের সকালে এমন হীরার পানিতে হাত, জামা, জুতা ভেজানোর গল্প- আজ অনেকের জীবনে শুধুই স্মৃতি।

কর্পোরেট দুনিয়ায় কাজের তাগিদে ছুটে চলা। শীত বা গরমের তীব্রতা কোনোটায় কাঙ্ক্ষিত না। তাছাড়া শীত বা গরম কবে এলো আর কবে গেল তার হিসেব রাখা যেন কারো জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়। ছুটে চলা শুধু ছোটার তাগিদে। কিন্তু ছোট বেলার এই এক টুকরো স্মৃতি এতোটায় জোরাল, এক ঝটকায় যে কাউকে নিয়ে যেতে পারে ফেলে আসা অতীতে।

অফিসের সামনে ফুলের বাগানে মাথা তুলে থাকা দুয়েকটি দুর্বা ঘাসের ওপর হীরার হাসি মনে করিয়ে দিতে পারে ছোটবেলাকে। জামাকাপড়ে মুড়ে শীতের সকালে বাবার হাত ধরে হেঁটে চলাকে। আস্তে করে নিজের হাত ছাড়িয়ে হীরা ধরতে যাওয়ার চেষ্টাকে। বাবার রাশভারী কণ্ঠের ‘না, ধরো না, ঠাণ্ডা লাগবে’ কথাটা এখনো মনে কাঁপন তোলে। তাই হয়তো অফিসে ঢোঁকার আগে আর হীরা ছোঁয়া হয় না।

শহুরে বাচ্চাদের চিকমিকে হীরায় সজ্জিত রাস্তা দেখার অভ্যাস নেই। দেখলেও হয়তো বড় বড় দালানে আলোকসজ্জার ধাঁধা তাদের কিছুই বুঝে উঠতে দেয় না। কচি পায়ে তাদের আর শিশির মাড়ানো হয় না। রমনীরাও বঞ্চিত হন শিশিরে আলতা রাঙা পা ধোয়ার অনাবিল অনুভূতি থেকে।

তারপরও, প্রতি বছর শীত এলে ছুটে যেতে ইচ্ছে করে গায়ের সেই ধুলো মাখা পথে। যে পথের ধারে মাথা উচিয়ে এখনো দাঁড়িয়ে আছে দুর্বা ঘাসের দল। সেসব ঘাসের এখনো যৌবন আছে জ্বলজ্বলে হীরায় সজ্জিত হওয়ার। ছুটে যেতে ইচ্ছা করে ফেলে আসা ছোট বেলায়। তুরতুরে শীতের সকাল শিশির ধোয়া ধানক্ষেত, আমগাছ, কাঁঠালগাছ, ভাটি ফুল দেখার ইচ্ছা এখনো ব্যাকুল করে কর্মব্যস্ত মনকে। আর চোখের সামনে ভাসতে থাকে দুর্বা ঘাসের মাথায় হীরার ঝিকিমিকি হাসি।

সোনালীনিউজ/ঢাকা/আকন

রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩