রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

নিয়ামাতের শুকরিয়া আদায় বান্দার অনুগ্রহ লাভের মাধ্যম

প্রকাশিত: ১৫ আগস্ট, ২০১৬ ০৩:৪৩পিএম | আপডেট: ১৫ আগস্ট, ২০১৬ ০৬:০৩পিএম

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে সঠিক পথে পরিচালিত হওয়ার জন্য কুরআন দান করেছেন। কুরআন অনুযায়ী জীবন পরিচালনার সকল দিক-নির্দেশনাসহ উপদেশ দিয়েছেন। আল্লাহ অবাধ্য হতে নিষেধ করেছেন। আল্লাহ তাআলাকে সদা-সর্বদা স্মরণ করার তাগিদ দিয়ে বান্দার প্রতি বিধি-নিষেধ আরোপ করেছেন। যারা তাকে স্মরণ করবে, তার নিয়ামাতের শুকরিয়া আদায় করবেন, কেবলমাত্র তারাই অনুগ্রহ লাভে ধন্য হবেন। আল্লাহ বলেন-

কলমা শুধু মুখে নয় অন্তরেও থাকতে হবে

প্রকাশিত: ১৩ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৩৫পিএম | আপডেট: ১৩ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৩৫পিএম

‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ ইমানের মূল ভিত্তি। তবে এ কলমা মুখে উচ্চারণ করাই যথেষ্ট নয়, অন্তরে বলিষ্ঠ বিশ্বাস রাখতে হবে। যদি এরূপ বলিষ্ঠতা অন্তরে অনুভব না করা যায় এবং সেখানে কোনোরকমের দ্বিধা-দ্বন্দ্ব বা সন্দেহের উদয় হয়, তবে তা সুস্পষ্ট মুনাফেকি। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আল্লাহ ছাড়া সত্য কোনো উপাস্য নেই এবং আমি আল্লাহর রসুল। যে বান্দাই সন্দেহমুক্ত অবস্থায় এ দুটি কথা নিয়ে আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাত্ করবে, সে জান্নাতে প্রবেশ করবে।’ (মুসলিম)।

একটাই ভরসা বিশ্বনবির শাফায়াত

প্রকাশিত: ১১ আগস্ট, ২০১৬ ০৮:১৩পিএম | আপডেট: ১১ আগস্ট, ২০১৬ ০৮:১৩পিএম

পরকালে বিচার দিবস নিয়ে সবাই চিন্তিত। সবারই একটাই ভরসা বিশ্বনবির শাফায়াত। যে দিন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ব্যতিত সকল নবি-রাসুলগণই নাফসি নাফসি করবে। আল্লাহ তাআলার দরবারে নিজেদের হিসাব প্রদানে থাকবে ভীত-সন্ত্রস্ত। সে বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর উম্মতের সহযোগিতায় তিন স্থানে থাকবেন। যা তুলে ধরা হলো-
 

ইসলামে জঙ্গিবাদ নিষিদ্ধ হওয়ার কারণ

প্রকাশিত: ১০ আগস্ট, ২০১৬ ০৬:৫৬পিএম | আপডেট: ১০ আগস্ট, ২০১৬ ০৬:৫৬পিএম

ইসলাম শব্দটি আরবি ‘সিলমুন’ শব্দ থেকে উত্কলিত। এর অর্থ শান্তি, নিরাপত্তা, আনুগত্য, আত্মসর্ম্পণ, সন্ধি, বিরোধিতা, পরিত্যাগ ইত্যাদি। ইসলাম ন্যায় ও সাম্যের ধর্ম। ইসলামী উম্মাহকে মধ্যমপন্থী তথা উত্তম ও ন্যায়পরায়ণ উম্মাহ হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে। মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে আশরাফুল মাখলুকাত তথা সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে।

সম্পদ কম হলে আখিরাতে হিসাবও কম

প্রকাশিত: ০৯ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৫৭পিএম | আপডেট: ০৯ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৫৭পিএম

ধন-সম্পদ আল্লাহর নেয়ামত। মহান প্রভু এর দ্বারা মানুষকে পরীক্ষা করেন। কাউকে তিনি দুনিয়াতে সম্পদ দিয়ে পরীক্ষা করেন। আবার কাউকে ধন-দৌলত না দিয়ে পরীক্ষা করেন। তবে যাকে ধন-সম্পদ দান করা হয়েছে তার পরীক্ষা তুলনামূলক কঠিন। কারণ যার ধন-সম্পদ নেই তার হিসাব-নিকাশের ঝামেলা নেই। দুনিয়ার জীবন একভাবে না একভাবে কেটেই যাবে। সময় কারও জন্য বসে থাকবে না।

পিতা-মাতা অসন্তুষ্ট হলে, জাহান্নাম সুনিশ্চিত

প্রকাশিত: ০৮ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৩৪পিএম | আপডেট: ০৯ আগস্ট, ২০১৬ ১০:২৭এএম

ইসলামের দৃষ্টিতে পিতা-মাতাকে কষ্ট দেয়া কোনোভাবেই বৈধ নয়। সন্তান যদি একনিষ্ঠতার সঙ্গে আল্লাহ তাআলার ইবাদাত করার পাশাপাশি পিতা-মাতার সেবাযত্ন, খেদমত এবং উত্তম আচরণ করে; তবে সে দুনিয়া ও পরকালে মহাসফলতা লাভ করবে। আর যদি পিতা-মাতার সঙ্গে অসদাচরণ করে অথবা সন্তানের কোনো কাজের কারণে পিতা-মাতা অসন্তুষ্ট হন, তবে তার জন্য জাহান্নাম সুনিশ্চিত। পিতা-মাতার সঙ্গে উত্তম ব্যবহারের বিষয়ে কুরআন ও হাদিসের কথা সংক্ষেপে তুলে ধরা হলো-

অর্থাভাবে মানুষ কুফরি করতেও দিধা করে না

প্রকাশিত: ০৬ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৫৮পিএম | আপডেট: ০৬ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৫৮পিএম

অভাব মানুষকে পাপের পথে পরিচালিত করে। শুধু তাই নয়, অর্থাভাবে মানুষ কুফরি করতেও দিধা করে না। সুতরাং সমাজ থেকে অভাব-অনটন তথা দারিদ্র্যতা বিমোচনের যথাযথ উপায় অবলম্বন করা জরুরি। দারিদ্রতা থেকে মুক্ত হতে অন্যায় পথে অর্থ উপার্জনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা বৈধ নয়। তাই দারিদ্রতা বিমোচনের উপায় হিসেবে সঠিক পথে থেকে উপর্জন করার মাধ্যমে স্বচ্ছলতা লাভ করার কিছু ইসলামি নিয়ম-নীতি তুলে ধরা হলো-
 

মানুষের মৃত্যু-পরবর্তী জীবন হলো অনন্ত জীবন

প্রকাশিত: ০৫ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৫৪পিএম | আপডেট: ০৫ আগস্ট, ২০১৬ ০৪:৫৪পিএম

পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করা হয়েছে, ‘আল্লাহর সত্তা ব্যতীত সব কিছুই মরণশীল। কোনো জীবের পক্ষে মৃত্যুকে এড়ানো অসম্ভব। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার অনুসারীদের মৃত্যুর কথা বেশি বেশি স্মরণ করা এবং মৃত্যুর জন্য প্রস্তুতি গ্রহণের তাগিদ দিয়েছেন।

বিতরের নামাজ পড়া আবশ্যক

প্রকাশিত: ০৪ আগস্ট, ২০১৬ ০৫:২৫পিএম | আপডেট: ০৪ আগস্ট, ২০১৬ ০৫:২৫পিএম

বিতর (وتر) শব্দটি আরবি। অর্থ হচ্ছে বিজোড়। এ নামাজ তিন রাকাআত বিধায় এটিকে বিতর বলা হয়। কেউ কেউ বিতরের নামাজ এক রাকাআতও পড়ে থাকেন। ইশার নামাজের পরপরই এ নামাজ পড়া ওয়াজিব। আর রমজান মাসে তারাবিহ নামাজ পড়ার পর জামাআতবদ্ধভাবে ইমামের সঙ্গে বিতর নামাজ পড়া যায়। বিতরের নামাজ পড়ার ব্যাপারে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিশেষ তাগিদ দিয়ে বলেন, বিতরের নামাজ পড়া আবশ্যক। যে ব্যক্তি বিতর আদায় করবে না, আমাদের জামাআতের সাথে তাঁর কোনো সম্পর্ক নেই। (আবু দাউদ)

হজে যাওয়ার আগে যা জেনে রাখা ভালো

প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট, ২০১৬ ০৫:৪৫পিএম | আপডেট: ০৩ আগস্ট, ২০১৬ ০৫:৪৫পিএম

হজ প্রত্যেক শারীরিক ও আর্থিক সামর্থবানদের ওপর ফরজ ইবাদাত। আর প্রত্যেক মুসলমানের জীবনের সর্বোচ্চ আশা-আকাংঙ্খার কেন্দ্রবিন্দুও হজ। তাই প্রত্যেক মুসলমান জীবনে একবার হলেও পবিত্র নগরী মক্কায় অবস্থিত বাইতুল্লাহ ও হৃদয়ের স্পন্দন নবির শহর মদিনায় যাওয়ার আশা পোষণ করে। হজের অফিসিয়াল কার্যক্রম সম্পন্ন করে যাদের হজে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত তাদের আরো কিছু তথ্য দেশে থাকতেই জেনে নেয়া দরকার।

রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩