রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

‘দর্শক ধরে রাখতে না পারার দায় চ্যানেলগুলোরই,

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৩:৩০ পিএম

‘দর্শক ধরে রাখতে না পারার দায় চ্যানেলগুলোরই,

সোনালীনিউজ ডেস্ক

মোশাররফ করিম। অভিনয় জগতের একজন প্রিয় মুখ। এ সময়ের একজন ব্যস্ত অভিনেতা তিনি। বছরের প্রায় প্রতিটি দিনই তার কাটে শুটিংস্পটে। তিনি সমান পরিচিত তার অসাধারণ অভিনয় ক্ষমতা, উচ্চারণ দক্ষতার জন্য। ক্যারিয়ারে নাটকের পাশাপাশি চলচ্চিত্রেও সুনাম কুড়িয়েছেন এই অভিনেতা। সম্প্রতি একটি চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছে তার। যেটা বেশ প্রশংসিত হয়েছে। তার সাম্প্রতিক ব্যস্ততা, টিভি নাটকের বর্তমান অবস্থাসহ মিডিয়ার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন তিনি।

আপনার বর্তমান ব্যস্ততা সম্পর্কে বলুন
আমি অভিনয়ের মানুষ। যেহেতেু অভিনয় আমার পেশা তাই নিয়মিতভাবে নাটকে কাজ করে যাচ্ছি। সপ্তাহে সাত দিন, মাসে ত্রিশ দিনই বলতে গেলে শুটিং করতে হচ্ছে। এরমধ্যে একক নাটক ও টেলিছবি রয়েছে একের পর এক। পাশাপাশি আবার ধারাবাহিকেও কাজ করছি। সব মিলিয়ে খুবই ব্যস্ত সময় পার করছি বলা যায়।

আপনি তো প্রায় সারাবছরই শুটিং করেন। একটানা এভাবে শুটিং করা শারীরিকভাবে কতটা চ্যালেঞ্জিং?
একটানা এভাবে বিরামহীনভাবে কাজ করে যাওয়া অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং। আসলে আমি এতোটা টাইট সিডিউল নিয়ে কাজ করতে চাইও না। মাঝে মাঝে নিজের জন্য, পরিবারের জন্য একান্ত কিছু সময় বের করতে ইচ্ছে করে। তাই কখনও কখনও সিডিউল ফাঁকা রাখি। কিন্তু কিছু কিছু কাছের মানুষের অনুরোধে সেই দিনগুলোতও সিডিউল না দিয়ে পারি না। যে কারণে মন সায় না দিলেও কাজ করতে বাধ্য হই।

বর্তমানে তো অনেক টিভি নাটক প্রচারিত হচ্ছে, এর মানের বিষয়ে কী বলবেন আপনি?
এক কথায় বলবো বাজেটের চেয়ে নাটকের মান ভালো হচ্ছে। কারণ বর্তমানে একটি নাটকের জন্য যে পরিমাণ বাজেট ধরা হয় তা অত্যন্ত কম। এতো অল্প বাজেটে নাটক করা আসলে খুব কঠিন। কিন্তু বাধ্য হয়ে প্রতিনিয়ত তা আমাদের করতে হচ্ছে।

এখন আমাদের দেশে অনেকগুলো টিভি চ্যানেল। কিন্তু তারা দর্শক ধরে রাখতে পারছে না। এর কারণ কী বলে মনে করেন?
দর্শক ধরে রাখতে না পারার দায় চ্যানেলগুলোরই, নাটক এর জন্য দায়ী নয়। কারণ আমাদের দেশের দর্শক আমাদের চ্যানেল দেখতে চায়। কিন্তু চ্যানেলগুলো তাদের কৌশলগত দুর্বলতার কারণেই দর্শক ধরে রাখতে পারছে না। গত সপ্তাহে কলকাতার একজন সাংস্কৃতিক কর্মী এসেছিলেন আমাদের শুটিংস্পটে। তিনি জানালেন, কলকাতার মানুষ আমাদের নাটক দেখতে চায়। কিন্তু আমাদের চ্যানেলগুলো সেখানে দেখা যায় না। যে কারণে আমরা দর্শকের একট বড় অংশ হতে বঞ্চিত।

চলচ্চিত্রের ব্যস্ততা সম্পর্কে বলুন
এই মুহূর্তে দুটি সিনেমাতে কাজের বিষয়ে কথা চলছে। তবে এখনও কাজের বিষয়টি চূড়ান্ত হয়নি। আমি সিনেমা দুটির গল্প, বাজেট ও অন্যান্য বিষয়গুলো নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করে দেখছি। এদিকে নাটকের টাইট সিডিউলের কারণে সময় বের করে নেওয়াটা খুব কঠিন বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে সবকিছু যদি ঠিক মনে হয় তবেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবো।

বাণিজ্যিক সিনেমাতে আপনাকে দেখা যায় না কেনো?
বাণিজ্যিক সিনেমাতে কাজ করতে আমার কোনো অসুবিধা নেই। আমি সব ধরনের সিনেমাতেই কাজের জন্য প্রস্তুত আছি। এ ধরনের সিনেমাতে বড় বাজেটের প্রয়োজন। গল্পের ধরনেও ভিন্নতা রয়েছে। বাণিজ্যিক সিনেমার জন্য সেই রকম প্রস্তুতিসহ প্রস্তাব এলে আমি কাজ করবো। তবে বাণিজ্যিক সিনেমাতে কাজের বিষয়ে আমার কোনো তাড়া নেই।

আপনি ও আপনার সহধর্মীনি দু’জনই অভিনয় করছেন। কাজের ক্ষেত্রে বোঝাপড়াটা কেমন?
আমার সহধর্মীনি খুব বেশি কাজ করতে পারে না। কারণ আমার সংসারের ঝামেলা পুরোটাই তাকে দেখতে হয়। তবে কাজের ক্ষেত্রে ও খুবই সহযোগী। আমাদের বোঝাপড়াটা খুব ভালো। জুঁইয়ের সঙ্গে আমার কাজ খুব বেশি করা হয় না। তবে ওর সঙ্গে কাজ করলে সুবিধা হচ্ছে ওকে আমি ভালো বুঝি। তাই অভিনয়ের ক্ষেত্রে সহজ হয়।

রবিবার, ০৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, ২০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩