শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩

‘পুলিশের চাঁদাবাজির’প্রতিবাদে অটোরিকশ

আপডেট: ১৬ জুন ২০১৬, বৃহস্পতিবার ০৩:৪৩ পিএম

‘পুলিশের চাঁদাবাজির’প্রতিবাদে অটোরিকশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
পুলিশের চাঁদাবাজির প্রতিবাদে ও গ্যাস নেওয়ার সময় বাড়ানোর দাবিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও কুমিল্লায় বিক্ষোভ করেছেন সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক-মালিকরা।

আজ শুক্রবার সকাল আটটা থেকে এ বিক্ষোভ শুরু হয়। বিকেল পাঁচটার দিকে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত এ বিক্ষোভ চলছিল।

তবে পুলিশের পক্ষ থেকে এ  চাঁদাবাজির অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

এদিকে বিক্ষোভের অংশ হিসেবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর এবং কুমিল্লার গৌরীপুর ও হোমনা সড়কে অটোরিকশা চলাচল বন্ধ রেখেছেন চালক-মালিকেরা। ফলে দুর্ভোগে পড়েছে যাত্রীরা।

অটোরিকশা চালক-মালিক সূত্র জানায়, কুমিল্লার গৌরীপুরসংলগ্ন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে সিএনজি স্টেশন থেকে গ্যাস নেন চালকেরা। গ্যাস নেওয়ার জন্য সরকারের নির্ধারিত সময় সকাল ছয়টা-আটটা পর্যন্ত। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের একটু হেরফের হলেই কুমিল্লার দাউদকান্দি মহাসড়কে গেলে পুলিশ চালকদের হয়রানি করে চাঁদা আদায় করে। চাঁদা না দিলে প্রত্যেক অটোরিকশায় সাড়ে আট হাজার টাকার মামলা দেওয়া হয়।
আজ বেলা ১১টার দিকে সরেজমিনে দেখা গেছে, কুমিল্লার হোমনা বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে অটোরিকশার চালকেরা বি‌ক্ষোভ মিছিল করে বাঞ্ছারামপুর, হোমনা ও গৌরীপুর সড়কে অবস্থান নেন। তাঁদের দাবির সপক্ষে বিভিন্ন স্লোগান দেন তাঁরা।

এ ব্যাপারে এক অটোরিক্রা চালক জানান, গ্যাস নেওয়ার সময় বাড়ানো এবং পুলিশের চাঁদাবাজির প্রতিবাদে সকাল আটটা থেকে সকল গাড়ি বন্ধ রেখে আমরা বিক্ষোভ করছি।

এদিকে অবরোধের কারণে সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচল বন্ধ থাকায় যাত্রীদের বেশ দুর্ভোগে পড়তে হয়। হোমনা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় কয়েকজন যাত্রী বলেন, সিএনজি অটোরিকশা না চলায় তাঁরা বিভিন্ন গাড়ি পরিবর্তন করে গন্তব্যে পৌঁছছেন।
দাউদকান্দি হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল আউয়াল বলেন, চাঁদাবাজির অভিযোগটি সঠিক নয়। গ্যাস নিতে নির্দিষ্ট সময়ের কিছু পরেও আমরা ছাড় দিই। কিন্তু সকাল ১০টার পরেও যদি কোনো অটোরিকশা মহাসড়কে যাত্রী নিয়ে চলাচল করে সে ‌ক্ষেত্রে আইন অনুযায়ী আমাদেরকে ব্যবস্থা নিতে হয়।

 

সোনালীনিউজ/ঢাকা/মে

 

add-sm
Sonali Tissue
শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, ১৯ অগ্রাহায়ণ ১৪২৩