শনিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬

অবশেষে জানা গেল খাদ্যমন্ত্রীর জামাইর মৃত্যুর কারণ

আদালত প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১০ মে ২০১৯, শুক্রবার ০৬:১৮ পিএম

অবশেষে জানা গেল খাদ্যমন্ত্রীর জামাইর মৃত্যুর কারণ

ঢাকা : গত ১৬ মার্চ চেম্বার শেষে বাসায় ফেরার পর মারা যান খাদ্যমন্ত্রী সাধন কুমার মজুমদারের মেয়ে জামাই ডা. রাজন কর্মকার। দাম্পত্য কলহের অভিযোগ থাকায় তার মৃত্যুকে ‘অস্বাভাবিক’ বলে অভিযোগ করেন তার সহকর্মী-শিক্ষার্থীরা। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত করা হয়।

অবশেষে ভিসেরা পরীক্ষার প্রতিবেদনে সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. রাজন কর্মকারের মৃত্যুর কারণ বের হয়েছে।

ভিসেরা প্রতিবেদন পেয়ে চিকিৎসকরা নিশ্চিত হয়েছে, তার মৃত্যু হার্ট অ্যাটাকে হয়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছে, তার মৃত্যু কার্ডিওমায়োপ্যাথি অ্যাটাকে হয়েছে। মানে স্বাভাবিক মৃত্যু।

বৃহস্পতিবার (৯ মে) এ কথা জানিয়েছেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সেলিম রেজা। ভিসেরা প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার কথাও বলেন তিনি।

ডা. সেলিম রেজা বলেন, ‘ভিসেরা রিপোর্টে আমরা যেটা পেয়েছি এটি তাঁর (ডা. রাজন) কার্ডিওমায়োপ্যাথি। স্বাভাবিক মৃত্যু।’

উল্লেখ্য, এর আগে রাজনের পরিবার থেকে অভিযোগ করা হয়, রাজনের স্ত্রী তাকে হত্যার হুমকি দিয়েছিল।

তাদের অভিযোগ ডা. রাজন কর্মকারের স্ত্রী কৃষ্ণা মজুমদার রুপা হত্যার হুমকি দিয়ে বলেছেন, ‘আপনার ছেলেকে (ডা. রাজন কর্মকার) আপনাকে (শ্বাশুড়ি), হত্যা করবো, তারপর নিজে আত্মহত্যা করবো।’ মোবাইল ফোনে এভাবে শাশুড়ি খুকু রানী কর্মকারকে হুমকি দেন কৃষ্ণা।

ডা. রাজনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে এমন অভিযোগ করে তার মামা সুজন কর্মকার বলেন সাংবাদিকদের বলেন, কৃষ্ণা মোবাইলে উত্তেজিত ভাষায় আমার বোন খুকুর সঙ্গে কথা বলে। কৃষ্ণা ফোনে রাজনকে হত্যার হুমকি দেয়। মোবাইলে কৃষ্ণা আমার বোনকে বলেন, আপনি ও আপনার ছেলেকে আমি হত্যা করবো, তারপর নিজে আত্মহত্যা করবো।

‘কেন এই হুমকি দিলেন কৃষ্ণা’ এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাদের আগে থেকেই পারিবারিক দ্বন্দ্ব ছিল। রাজনের সঙ্গে তার পরিবারের কোনো যোগাযোগ ছিল না। ৪ বছর ধরে রাজন একবারও নোয়াখালীর বাড়িতে যায়নি। তার পরিবারের সঙ্গে তাকে যোগাযোগ করতে দিতেন না কৃষ্ণা।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue