মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬

আবরার ফাহাদের আইনজীবী হতে চান ব্যারিস্টার সুমন

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার ০৮:৫৫ পিএম

আবরার ফাহাদের আইনজীবী হতে চান ব্যারিস্টার সুমন

ঢাকা : বুয়েটে তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিকস প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের পরিবারকে যেকোনো আইনী সহায়তা দিতে চান সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

গত রবিবার (৬ অক্টোবর) দিবাগত রাতে বুয়েটের ২০১১ নম্বর কক্ষে কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতা পিটিয়ে হত্যা করে শেরে বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষের আবাসিক ছাত্র ফাহাদকে। পরে রাত ৩টার দিকে হলের একতলা দোতলার মাঝামাঝি সিঁড়ি থেকে লাশ উদ্ধার করে করে পুলিশ।

এদিকে, আবরারকে নির্মমভাবে হত্যা করা আসামিদের দ্রুত বিচার ট্রাইবুনালে বিচার নিশ্চিত করে ভবিষ্যতে ছাত্রদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আহ্বান জানিয়েছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। একইসঙ্গে এই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের বিচার আদায়ে যেকোনো আইনি সহায়তা দিতেও প্রস্তুত আছেন বলেন জানিয়েছেন সুমন।

বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) বুয়েটের সামনে এসে এক ফেসবুক লাইভে এসে শিক্ষার্থীদের দাবির সাথে একাত্মতা পোষণ করে এ কথা বলেন তিনি। এ সময় আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ড বিষয়ে যেকোনো আইনি সহায়তা দিতে প্রস্তুত বলেও জানান তিনি।

বুয়েটের শিক্ষার্থী আবরার হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত সন্দেহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন নিহতের বাবা বরকত উল্লাহ। তিনি গত রবিবার চকবাজার থানায় এ মামলা করেন। মামলার এজাহারভুক্ত আসামিরা প্রত্যকেই বুয়েটের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

এজাহারভূক্ত এই মামলার আসামিরা হলেন- মেহেদী হাসান রাসেল, মুহতাসিম ফুয়াদ, অনিক সরকার,মেহেদী হাসান রবিন, ইফতি মোশারফ সকাল, মনিরুজ্জামন মনির, মো. মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, মাজেদুল ইসলাম, মো. মুজাহিদুল, তানভীর আহমেদ, হোসেন মোহাম্মদ তহা, জিসান, মো. আকাশ, মো. শামীম বিল্লাহ, মো. শাদাত, মো. তানিম, মো. মুরশেদ, মো. মোয়াজ  ও জেমি।

এ দিকে, আবরার হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) বেলা ১১টার দিকে বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের আইন বিষয়ক উপসম্পাদক অমিত সাহাকে রাজধানীর সবুজবাগ এলাকা থেকে গ্রেফতার করে ডিবি। অমিত সাহার ব্যাপারে হত্যাকাণ্ডে যুক্ত থাকার অভিযোগ করে আসছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

এছাড়া মিজানুর রহমান নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মিজানুর রহমান বুয়েটের ওয়াটার রিসোর্সেস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১৬তম ব্যাচের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বুয়েটের শেরেবাংলা হল থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।

প্রসঙ্গত, রবিবার (৬ অক্টোবর) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শেরে বাংলা হলে আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। নিহত ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) শিক্ষার্থী ছিলেন।

সোনালীনিউজ/এএস

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue