মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬

আবরার হত্যার প্রতিবাদে সরব তারকারাও

বিনোদন প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৯ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার ০৩:০০ পিএম

আবরার হত্যার প্রতিবাদে সরব তারকারাও

ঢাকা : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে (২১) পিটিয়ে হত্যা করেন ছাত্রলীগের কয়েক নেতা। এ হত্যার প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে দেশের ছাত্রসমাজ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকেও চলছে প্রতিবাদ। সাধারণ শিক্ষার্থীসহ দেশের আপামর জনতা আবরার হত্যার সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করছেন।

একই দাবিতে সুর মিলিয়েছেন দেশের তারকারাও। সংগীত, চলচ্চিত্র ও নাট্য জগতের তারকাদের ছুঁয়ে গেছে এই হত্যাকাণ্ড। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরব হয়েছেন অনেকেই।

আবরার হত্যার প্রতিবাদে কথা বলেছেন দেশের জনপ্রিয় সিনেমা নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী।

নিজের ফেসবুক ওয়ালে তিনি লেখেন, ‘বুয়েটের নিউজটা মাত্র দেখলাম। দেখে গলাটা শুকাইয়া গেল। এই সমাজই তো আমরা সবাই মিলে বানাচ্ছি, নাকি? যেখানে আমার মতের বিরোধী হলে তাকে নির্মূল করা আমার পবিত্র দায়িত্ব।

আমাদের সামাজিক-রাজনৈতিক-ধর্মীয় নেতারা সবাই মিলে তো এত বছর এই কাজই করছি, এইভাবেই একটা প্রজন্ম বানাইছি! আর আমাদের এই নির্মূলবাদী মন বানানো হইছে বাংলার বুদ্ধিজীবীদের ওয়ার্কশপে! তাই আমি তোমাদের অভিশাপ দিই! আমি অভিশাপ দিই কারণ তুমি এই ঘৃণা আর নির্মূল তত্ত্বকে মহৎ বানিয়ে প্রচার করেছো দেশের নামে, জাতীয়তার নামে, ধর্মের নামে, লিঙ্গের নামে, আমার নামে, তোমার নামে!

আমি অভিশাপ দিই তাদের যারা আমাদের সমাজটাকে এই জায়গায় এনে দাঁড় করালো যেখানে অপ্রিয় কথা বলার জন্য সহপাঠীকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়! আমি অভিশাপ দিই! অভিশাপ দিই! অভিশাপ দিই! কারণ আমার কিচ্ছু করার ক্ষমতা নাই, কেবল অভিশাপ দেয়া ছাড়া!’

আবরারের মৃত্যুতে শঙ্কিত দেশের প্রখ্যাত গীতিকার প্রিন্স মাহমুদ। এই ইস্যুতে নিজের শঙ্কার কথা জানিয়ে ফেসবুকে তিনি লেখেন, ‘আবরার ফাহাদ দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের ছাত্র। সে ঢাকা মেডিকেলেও চান্স পেয়েছিল। ঘুমানোর আগে অন্তত একটা প্রতিবাদ করে ঘুমান। আমাদের বাচ্চারাও বড় হচ্ছে।’

আবরারের মা ও বাবার ক্রন্দনরত দুটি ছবি শেয়ার করে নাট্যকার মাসুম রেজা লিখেছেন, ‘কান্দিগো মা, কান্দি পিতা, কাঁদিয়া জুড়াই প্রাণ/কবরে শুইয়েছো যারে সেতো আমাদেরও সন্তান।’

আবরারকে সন্তানতুল্য জ্ঞান করে নাট্যনির্মাতা চয়নিকা চৌধুরী লেখেন, ‘শুভ বিজয়ার এই দিনে মন ভালো নেই। বনানী ছাড়া কোথাও যাইনি, কোথাও না। শুধুই মনে হচ্ছে, এই ছেলেটি (আবরার) আমার সন্তান হতে পারত। প্লিজ মতের মিল না হলে আমাকে মেরে ফেলেন না, আমাদের সন্তানের ওপরেও এই কাজ করেন না। প্লিজ। মা-বাবারা সহ্য করতে পারেন না। আমি লজ্জিত, ভীত। সকল সন্তান নিরাপদ থাকুক।’

আবরারের খুনের বিচার দাবি করে নির্মাতা রেদওয়ান রনি লেখেন, ‘এ কোন বাংলাদেশের দিকে যাচ্ছি আমরা? ভিন্নমত হলেই পিটিয়ে মেরে ফেলবেন? অতি উৎসাহী জানোয়ারগুলো দেশের কত বড় ক্ষতি করছে জানে? দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই, অবিলম্বে।’

চিত্রনায়ক জায়েদ খান লেখেন, ‘যার সন্তান আছে শুধু তারাই কিছুটা হলেও অনুভব করতে পারবেন। দুঃখিত বাবা। আফসোস মানবতা কোথায়!’

সংগীতশিল্পী কোনাল লিখেছেন, ‘দুবাই ট্রানজিটে বসে চোখে পড়ল নিউজফিডজুড়ে আবরারকে নিয়ে হাহাকার। বিভিন্ন পোর্টালে চোখ বুলাতেই আমি স্তব্ধ! দেশে ফেরার আকুতিটা কেমন যেন ম্লান হয়ে গেল! আমরা মানুষ হয়ে আর কত অমানুষ হব?’

নিজের ছোট ভাইয়ের সঙ্গে আবরারের তুলনা করে অভিনেত্রী মৌসুমী হামিদ লেখেন, ‘আবরার ছেলেটা মিমের (আমার ভাই) বয়সী। যতবার ওর নিউজ পড়ছি, আবরারের জায়গায় আমার ভাইটার চেহারা দেখেছি। অসুস্থ লাগছে এখন।’

সোনালীনিউজ/এমটিআই