সোমবার, ২৫ মে, ২০২০, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

ইউএনও’র ত্রাণ তহবিলে ভিক্ষুকের ১০ হাজার টাকা দান

ঝিনাইগাতি (শেরপুর) প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২২ এপ্রিল ২০২০, বুধবার ১২:৪২ পিএম

ইউএনও’র ত্রাণ তহবিলে ভিক্ষুকের ১০ হাজার টাকা দান

শেরপুর : শুধু টাকা নয়, জনসেবার জন্য থাকতে হয় মন-মানবতা। দেশের ক্রান্তিলগ্নে এমনই এক মানবতার দৃষ্টান্ত তৈরি করলেন নাজিম উদ্দিন নামে আশি বছর বয়সী এক ভিক্ষুক। ত্রাণ প্রাপ্তি জন্য তালিকায় নিজের নাম লেখানোর পরিবর্তে ভিক্ষাবৃত্তি করে গত দুই বছরে তিলে তিলে জমানো দশ হাজার টাকা ইউএনও’র ত্রাণ তহবিলে দান করে স্থাপন করলেন তিনি বিরল দৃষ্টান্ত। শুধুমাত্র সামান্য ভিটেমাটি থাকা এ ভিক্ষুকের বাড়ি শেরপুরের ঝিনাইগাতি উপজেলার গান্ধিগাঁও গ্রামে।

জানা গেছে, ঝিনাইগাতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে স্থানীয় ইউপি সদস্যের সঙ্গে ঝিনাইগাতির স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘দি প্যাসিফিক ক্লাব’ এর সদস্যরা গত রোববার সরকারী খাদ্য সহায়তার জন্য গান্ধিগাঁও গ্রামে তালিকা তৈরি করতে কাজ করছিলেন। একপর্যায়ে তারা ভিক্ষুক নাজিম উদ্দিনের বাড়িতে গিয়ে তার জাতীয় পরিচয়পত্র চান। এসময় ভিক্ষুক নাজিমদ্দিন তালিকায় নিজের নাম না দিয়ে উল্টো গত দুই বছরে ভিক্ষাবৃত্তি করে জমানো টাকা করোনার প্রভাবে অসহায় মানুষের জন্য গঠিত ত্রাণ তহবিলে দান করার ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

একপর্যায়ে জমানো টাকা ইউএন’ও ত্রাণ তহবিলে দেওয়ার জন্য তিনি মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) ঝিনাইগাতি আসেন। এখানে আসার পর তিনি জানতে পারেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ অন্য একটি কাজে বাতিয়াগাঁও গ্রামে রয়েছেন। পরে ভিক্ষুক নাজিম উদ্দিন বাতিয়াগাঁও গ্রামে গিয়ে ইউএনও’র হাতে দশ হাজার টাকা তোলে দেন।

এসময় নাজিম উদ্দিন জানান, একখন্ড ভিটেমাটি থাকলেও বসবাস করার মতো ভালো ঘর নেই তার। তাই নিজের থাকার ঘরটি মেরামত করার জন্য তিনি গত দুই বছরে ওই টাকা জমিয়েছেন। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে মানুষ কষ্ট করায় ওই টাকা ত্রাণ তহবিলে দান করে দিলেন। তিনি জানান, তবু মানুষ খেয়ে বাঁচুক।

ঝিনাইগাতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ জানান, নাজিম উদ্দিন মানবতার উৎকৃষ্ট উদাহারণ। তিনি ভিক্ষাবৃত্তির জমানো টাকা দান করে দিলেন। এসময় এভাবে সামর্থবানদেরও দেশের এ দুঃসময়ে এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি।

সোনালীনিউজ/এএস

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue