শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

ইফতারের ফজিলত

 ধর্মচিন্তা ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৭ মে ২০১৯, মঙ্গলবার ১১:৫৫ এএম

ইফতারের ফজিলত

ঢাকা: সারাদিন ক্ষুধার্ত থাকার পর শরীর ক্লান্ত হয়ে যায়। শরীরের শক্তি কমে যায়। রোজাদার ব্যক্তির ব্লাডপ্রেশার, প্যারালাইসিস, ফ্যাসিয়াল প্যারালাইসিস এবং মাথা ঘোরাঘুরি ইত্যাদি খাদ্যের অভাবে হয়। এসব ব্যক্তির আয়রন যথেষ্ট প্রয়োজন।

অতএব এমন কিছু জিনিস দ্বারা ইফতার করা উচিত, যা শরীরের শক্তি বাড়ায়। যেমন খেজুর, ফলফলাদি, ডাবের পানি। খেজুরে প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে।

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আল্লাহ তায়ালা রোজাদার ব্যক্তির সমান সওয়াব দেবেন (ওই ব্যক্তিকে) যে ব্যক্তি রোজাদারকে কিছু খেজুর বা সামান্য পানির শরবত কিংবা একঢোক দুধ দ্বারা ইফতার করায়।’ (সহিহ ইবনে খুজাইমা)।

‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি রমজান মাসে কোনো রোজাদার ব্যক্তিকে ইফতার করায়, সেটা তার গোনাহ মোচন এবং দোজখের আগুন থেকে মুক্তির কারণ হবে।’ (সহিহ ইবনে খুজাইমা)।

ইফতারকারী আল্লাহর নাম নিয়ে ইফতার করবেন এবং এই দোয়া পড়বেন

‘আল্লাহুম্মা লাকা ছুমতু ওয়া আলা রিযক্বিকা আফতারতু বিরাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহিমিন। অর্থ, হে আল্লাহ! আমি তোমারই সন্তুষ্টির জন্য রোজা রেখেছি এবং তোমারই দেওয়া রিজিক দ্বারা ইফতার করছি।

লেখক:  মুহাম্মাদ কামালুদ্দীন ফারুকী

সোনালীনউজ/ঢাকা/এসআই