সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

ঋণের সুদহার কমাতে কঠোর হচ্ছে সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২৪ মে ২০১৯, শুক্রবার ০৫:৫৪ পিএম

ঋণের সুদহার কমাতে কঠোর হচ্ছে সরকার

ঢাকা : ব্যাংকমালিকরা ঋণের সুদ হার কমিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা কার্যকর করেননি। অথচ এ প্রতিশ্রুতি দিয়ে তারা সুবিধা নিয়ে গেছেন সরকারের কাছ থেকে। এমন পরিস্থিতিতে বিনিয়োগ চাঙ্গা করার জন্য ঋণের সুদহার কমাতে কঠোর অবস্থান নিচ্ছে সরকার।

এর অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বাংলাদেশ ব্যাংক এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে, যা পরিপালন করতে এরই মধ্যে তফসিলি ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত ২০ মে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে। যেসব ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণের সুদ হার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনতে পারেনি সেসব ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান আমানত হিসেবে এখন থেকে সরকারের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) অর্থ পাবে না।

সরকারের নিয়ম অনুযায়ী এডিপির অর্থ আমানত হিসেবে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ছয় শতাংশ সুদে গচ্ছিত রাখা হয়। নতুন নিয়মে যেসব ব্যাংক গত বছরের ২ আগস্ট প্রদত্ত প্রতিশ্রুতি মোতাবেক ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে তারা এ সুবিধা পাবে না। বাংলাদেশ ব্যাংক এটি জানিয়ে দিয়েছে ব্যাংকগুলোকে।

সিদ্ধান্ত মোতাবেক, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য এডিপির আওতায় সরকার থেকে পাওয়া তহবিল সব তফসিলি ব্যাংকে, অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানে (এনবিএফআই) অথবা উভয় ধরনের প্রতিষ্ঠানে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে স্পেশাল নোটিশ ডিপোজিট (এসএনডি), সঞ্চয়ী হিসাব স্থায়ী আমানতে (এফডিআর) সর্বোচ্চ ছয় শতাংশ হারে আমানত রাখা যাবে। একইভাবে সরকারি, আধা-সরকারি প্রতিষ্ঠান, স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার মোট নিজস্ব তহবিলের অর্থও একই হারে উল্লিখিত প্রতিষ্ঠানসমূহে আমানত হিসেবে রাখা যাবে। তবে যেসব ব্যাংক গত বছরের ২ আগস্ট প্রদত্ত প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনতে ব্যর্থ হয়েছে তারা এ সুবিধা পাবে না।

গত বছরের ২ মে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের কাছে ব্যাংকমালিকরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তারা ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনবেন। কিন্তু সরকারি ব্যাংক ছাড়া অধিকাংশ ব্যাংক এ প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেনি।

এর আগে গত বছরের ১ আগস্ট আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছিল, বাংলাদেশে ব্যাংকিং ব্যবসায় নিয়োজিত বেসরকারি ব্যাংকসমূহে অথবা ১৪টি অ-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান (এনবিএফ) অথবা উভয় ক্ষেত্রে স্বায়ত্তশাসিত ও আধা-স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য এডিপির আওতায় সরকার থেকে প্রাপ্ত তহবিলের সর্বোচ্চ ৫০ পর্যন্ত আমানত হিসেবে জমা রাখা যাবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঋণের সুদহার ঊর্ধ্বমুখী থাকায় বিনিয়োগ থমকে গেছে। কারণ উচ্চ সুদে ঋণ নিয়ে ব্যবসা করে টিকে থাকা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। বর্তমানে কোনো কোনো ব্যাংক ঋণের ক্ষেত্রে ১৬ থেকে ১৭ শতাংশ সুদও আরোপ করছে।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue