শুক্রবার, ১৯ জুলাই, ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিকস শো ২০১৯

এবারের যত আকর্ষণ

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৭ জানুয়ারি ২০১৯, সোমবার ০১:২১ পিএম

এবারের যত আকর্ষণ

ঢাকা : আর মাত্র একদিন পরেই শুরু হচ্ছে প্রযুক্তি বিশ্বের অন্যতম বড় আয়োজন কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিকস শো ২০১৯। এ আয়োজনে বিশ্বের নামকরা প্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর পাশাপাশি অংশ নেবে বিভিন্ন স্টার্টআপও। প্রযুক্তি ভিত্তিক নতুন নতুন পণ্য ও উদ্ভাবন এখানে বিশ্বের সামনে তুলে ধরবে প্রতিষ্ঠানগুলো।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে স্মার্টফোনের পাশাপাশি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং রোবটও এই আয়োজনের একটি অন্যতম বড় অংশ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

ছোট-বড় প্রায় সব প্রতিষ্ঠানও আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের উদ্ভাবন বাজারে ছাড়ার আগে এখান থেকে সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দেবে। এ বছর সিইএসে অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে থাকতে পারে ভাঁজযোগ্য স্মার্টফোন এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা।

এর বাইরে এবারের সম্ভাব্য আরও কিছু পণ্য ও প্রযুক্তির খবর থাকছে আজ-

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা : এ বছর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিকস শোতে হাজির হবে অন্তত ষাটটি প্রতিষ্ঠান। মূলু দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহূত বিভিন্ন পণ্যে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার নিয়ে চমক দেখাতে পারে এ প্রতিষ্ঠানগুলো। অর্থাৎ ইন্টারনেট অব থিংস বা আইওটির বড় চমকও থাকবে এবার।

বড় পর্দার টিভি : সিইএসের প্রতি আয়োজনেই টিভি নিয়ে কোনো না কোনো চমক থাকেই। ব্যতিক্রম হবে না এবারও। ৪কে নিয়ে মাতামাতি শেষে এবার দেখা মিলতে পারে ৮কে প্রযুক্তির। স্যামসাং, সনি, এলজি, তোশিবা, শার্প প্রভৃতি প্রতিষ্ঠান তাদের সর্বশেষ উদ্ভাবিত টেলিভিশন প্রযুক্তি নিয়ে হাজির হবে লাস ভেগাসে। এছাড়া এবার ৮০ ইঞ্চির বড় পর্দার টিভির দেখা মিলতে পারে। এছাড়া ইমেজ কোয়ালিটি আগের থেকে উন্নত করার জন্য এইচডিআর এবং মাইক্রোএলইডি টিভিও দেখা যেতে পারে।

গতি পাবে ফাইভজি : কয়েক বছর ধরেই আলোচনায় আছে ফাইভজি। ইতোমধ্যেই বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে পরীক্ষামূলকভাবে ফাইভজি নেটওয়ার্ক চালু করা হয়েছে। এ বছরের মধ্যেই আরও কিছু স্থানে আনুষ্ঠানিকভাবে ফাইভজি প্রযুক্তি চালু করা হবে। এছাড়া ফাইভজি সমর্থিত স্মার্টফোনও বাজারে আসবে চলতি বছরেই। এবারের কনজ্যুমার ইলেক্ট্রনিকস শো থেকে চিপ নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ফাইভজি চিপ নিয়ে গবেষণা ও উদ্ভাবনের খবর দেবে। এছাড়া ফাইভজি সমর্থিত ডিভাইসের বিষয়েও জানা যাবে এখানে। দেখা মিলতে পারে ফাইভজি স্মার্টফোনেরও।

স্মার্ট স্পিকার ও ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট : অ্যামাজনের অ্যালেক্সা এবং গুগলের ভয়েস অ্যাসিস্ট্যান্টের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন পণ্য সামপ্রতিক বছরগুলোতে বাজারে এসেছে। এসব পণ্য গত বছর দুয়েক ধরেই সিইএসের অন্যতম আকর্ষণ হিসেবে ছিল। এছাড়া টিভিতে অ্যালেক্সা যুক্ত করার জন্য বর্তমানে কাজ করছে অ্যামাজন। এর বাইরে আরও বিভিন্ন পণ্যে ভয়েস অ্যাসিস্ট্যান্ট যুক্ত করার জন্য কাজ করছে প্রতিষ্ঠান দুটি। সিইএসে এসব প্রযুক্তির সর্বশেষ আপডেট পাওয়া যাবে।

ইলেকট্রিক ও স্বয়ংক্রিয় গাড়ি : এবারের অন্যতম আকর্ষণ হবে ইলেকট্রিক গাড়ি ও চালকবিহীন গাড়ি। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের রাস্তায় পরীক্ষামূলকভাবে চলছে চালকবিহীন গাড়ি। এছাড়া পণ্যবাহী ড্রোন, রোবট ও ইলেকট্রিক স্কেটবোর্ড রয়েছে আলোচনায়। ইলেকট্রিক স্কুটারও জনপ্রিয়তা পাচ্ছে উন্নত দেশগুলোতে। এ সবকিছুই এখনও আলোচনায় রয়েছে।

আলোচনায় চীন : এবারের আয়োজনে চীন যে আলোচনায় থাকবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। যুক্তরাষ্ট্রের সাথে বাণিজ্য যুদ্ধে অনেক প্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠানই বিপাকে পড়েছে। অ্যাপলের মতো প্রতিষ্ঠানও বেশ নাকানি চুবানি খেয়েছে এরই মধ্যে। তাই এবার অনেক প্রতিষ্ঠানেরই নজর থাকবে চীনা প্রতিষ্ঠানগুলোর দিকে। তাদের নতুন উদ্ভাবিত প্রযুক্তি কী এবং এর বিপরীতে নতুন কী আনা যায়, তা মাথায় রাখবে মার্কিন প্রতিষ্ঠানগুলো।

সোনালীনিউজ/এমটিআই