মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১০ বৈশাখ ১৪২৬

নাইজেরিয়ান পত্রিকা

এবার বিশ্বের অন্যতম সংযমী নেতা শেখ হাসিনা

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৫ এপ্রিল ২০১৯, সোমবার ০২:৫০ পিএম

এবার বিশ্বের অন্যতম সংযমী নেতা শেখ হাসিনা

ঢাকা : বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ্বের অন্যতম সংযমী নেতা হিসেবে আখ্যায়িত করেছে নাইজেরিয়ার প্রভাবশালী সংবাদপত্র দ্য ডেইলি লিডারশিপ। এমনটি জানিয়েছে নাইজেরিয়ার বাংলাদেশ হাইকমিশন।

হাইকমিশন জানায়, নাইজেরিয়ার সবচেয়ে প্রভাবশালী সংবাদপত্র দ্য ডেইলি লিডারশিপ রোববার (১৪ এপ্রিল) মাত্র পাঁচজন বিশ্বনেতাকে নিয়ে ‘ওয়ার্ল্ডস মোস্ট অস্টিয়ার প্রেসিডেন্টস’ শীর্ষক একটি ফিচার প্রকাশ করে।

প্রতিবেদনটিতে শেখ হাসিনার খুব সাদামাটা মাসিক বেতনের (৮০০ মার্কিন ডলার) বিষয়টি উল্লেখ করা হয়। সেই সঙ্গে জানানো হয় যে ফোর্বসের ‘বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাশালী একশ নারী’র তালিকায় তিনি ৫৯তম অবস্থানে আছেন।

পত্রিকাটি আরও জানায়, শেখ হাসিনার সবচেয়ে অসাধারণ দুটি অর্জন হলো তার নেতৃত্বের ভূমিকা এবং বঙ্গবন্ধুর খুনি ও ১৯৭১ সালে মানবতাবিরোধী অপরাধকারীদের বিচারের সফলতা।

এবার উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় ‘২য় স্থানে’ বাংলাদেশ : গত বছর জাতিসংঘ থেকে উন্নয়নশীল দেশের প্রাথমিক স্বীকৃতি পাওয়ার পর এবার দ্রুততম উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে উঠে এল বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) আইএমএফ এই তালিকা প্রকাশ করেছে। ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তারা বলছেন, এসব অর্জনকে সুসংহত করতে ব্যাংকসহ আর্থিক খাতকে চাঙ্গা করে তুলতে হবে। আর অর্থনীতিবিদের পরামর্শ, নতুন নতুন রপ্তানি পণ্য ও বাজার ধরে অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে বিশ্ব অর্থনীতিতে।

২০১৫ সালের জুলাই মাসে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে উঠে আসা বাংলাদেশকে, গেল বছর মার্চে উন্নয়নশীল দেশের প্রাথমিক স্বীকৃতি দেয় জাতিসংঘ। আর এবার আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল- আইএমএফ-এর প্রতিবেদনে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি নিয়ে দ্রুততম উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে বাংলাদেশ। তালিকায় তৃতীয় স্থানে আছে ভারত আর ৭ দশমিক ৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে তালিকার শীর্ষে রয়েছে রুয়ান্ডা।

মাথাপিছু আয়, মানব সম্পদ ও অর্থনৈতিক ঝুঁকি সূচকে এগিয়ে চলা বাংলাদেশের এসব উন্নয়নকে আরও গতিশীল করার জন্য নতুন বিনিয়োগ টানতে কাজ করার আহ্বান ব্যবসায়ীদের।

অর্থনীতিবিদদের পরামর্শ, অভ্যন্তরীণ অবকাঠামো শক্তিশালী করার পাশাপাশি মনোযোগ দিতে হবে রপ্তানি বাজারে অংশগ্রহণ বাড়ানোর দিকে।

২০২১ সালে জাতিসংঘের করা মধ্যবর্তী পর্যালোচনায় টিকে গেলে, ২০২৪ সালে হবে আরও একটি মূল্যায়ন; সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ঐ বছরই উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশ পাবে চূড়ান্ত স্বীকৃতি।

সোনালীনিউজ/এমটিআই