রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

হুমকিতে জনস্বাস্থ্য

ওষুধে মোটা হচ্ছে কোরবানির গরু

বিশেষ প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৮ জুলাই ২০১৯, সোমবার ০২:০০ পিএম

ওষুধে মোটা হচ্ছে কোরবানির গরু

ঢাকা : ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ ও ইনজেকশন প্রয়োগে গরু-মহিষ মোটাতাজা করা হচ্ছে চট্টগ্রামে। কিছু অসাধু অর্থলোভী খামারি এ ধরনের কাজ করছেন। বেশি দামে পশু বিক্রির জন্য খামারিরা এ পন্থা অবলম্বন করছেন।

এদিকে গরু মোটাতাজাকরণের নিষিদ্ধ ওষুধ প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে ফার্মেসি থেকে শুরু করে হাট-বাজারে। সহজলভ্য হওয়ার এ সুযোগ কাজে লাগাচ্ছেন খামারিরা।

অন্যদিকে চিকিৎসকরা জানান, স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ খাওয়ানো গরুর মাংস খেলে মানুষের শরীরে স্টেরয়েডের উপাদান ঢোকে। এতে কিডনির সমস্যাসহ নানান জটিল রোগে আক্রান্তের শঙ্কা রয়েছে। তারা জানান, এ ধরনের ওষুধ খেয়ে গরুগুলো রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। ফলে মোটাতাজার বিপরীতে অনেক গরুর মৃত্যু হচ্ছে। এতে লাভের তুলনায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন অনেক খামারি।

এর মাঝেই কিছু খামারির ধারণা, স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ পশু মোটাতাজা করতে সহায়ক। তবে তারা এটির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া জানেন না। আবার অনেক খামারি জেনেই এ পন্থা অবলম্বন করছেন।

হাটহাজারীর ফতেয়াবাদ ১নং দক্ষিণ পাহাড়তলি এলাকার খামারি ফারুক আহমেদ দীর্ঘদিন পশুপালন করছেন। তিনি কোরবানি উপলক্ষে প্রতি বছর উত্তরবঙ্গের জেলাগুলো থেকে গরু আনেন। এগুলো কয়েক মাস লালন-পালন করে বিক্রি করেন। এ ব্যবসার শুরুর দিকে গরুকে স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ খাওয়াতেন তিনি।

ফারুক বলেন, ‘কোরবানির হাটে বিক্রির উদ্দেশ্যে এক বছরে ৩০টি গরু এনেছি। একটি ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধির কথা শুনে গরুকে খাওয়াই। ওই বছর আমার তিনটি গরু মারা যায়। ফলে লোকসানে পড়ি।’ আবদুর রহিম নামে এক খামারি বলেন, ‘ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধিদের প্রলোভনে অনেকে এ জাতীয় ওষুধ খাওয়ায় গরুকে।’

কয়েকজন খামারি জানান, লোকমুখে শোনার পর তারা এসব ওষুধ গরুকে খাইয়েছেন। খাওয়ানোর পর দ্রুত সময়ের মধ্যে গরুর শরীর মোটা হয়েছিল। এতে করে তারা কিছু টাকা বেশি পেয়েছেন।

জেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের তথ্যমতে, মিরসরাইয়ে ১৫২, সীতাকুণ্ডে ৭৫, সন্দ্বীপে ৬৫, ফটিকছড়িতে ১৫৫, রাউজানে ২৪০, রাঙ্গুনিয়ায় ২০৫, হাটহাজারীতে ৩৪০, বোয়ালখালীতে ১৫৪, পটিয়ায় ৪৯০, চন্দনাইশে ৬০০, আনোয়ারায় ৪৫৫, সাতকানিয়ায় ২০৫, লোহাগাড়ায় ৫০০, বাঁশখালীতে ১৫৪, কোতোয়ালিতে ৬৯, ডবলমুরিংয়ে ৭৭ ও পাঁচলাইশে ৬৯টি খামার রয়েছে। এসব খামারে প্রায় ৫ লাখ গরু মোটাতাজা করা হচ্ছে।

জানা গেছে, স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধের মধ্যে পশুকে ডেক্সামেথাসন, বেটামেথাসন ও পেরিঅ্যাকটিন খাওয়ানো হয় বেশি।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রেয়াজুল হক বলেন, সংকটাপন্ন জীবন বাঁচাতে ওষুধ হিসেবে অনেক সময় স্টেরয়েড দেওয়া হয়। কিন্তু ভালো পশুকে এ ধরনের ওষুধ খাওয়ানো হচ্ছে। তবে এ প্রবণতা কমে এসেছে। মানুষ আগের তুলনায় সচেতন। পাশাপাশি যেহেতু অনেক সময় ওষুধ খাওয়ানোর পর অনেকের গরু মারা গেছে, তাই লোকসানের ভয়ে খামারিরা ঝুঁকি নিচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, দেখা যায় স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ খাওয়ানোর পর ওই পশুর মাংস অনেক খামারির ঘরের রান্না করে। ফলে ওই খামারি নিজেই ফাঁদে পড়ছেন। তাই নিজেকে সচেতন হতে হবে।

ডা. রেয়াজুল হক জানান, স্বাভাবিক পদ্ধতিতে যে গরু মোটাতাজা হয়েছে, সেটির শরীরে চাপ দিলে সঙ্গে সঙ্গে সেটি আগের অবস্থায় ফিরে যাবে। কিন্তু ওষুধ খাওয়ানো গরুর ক্ষেত্রে সেটি ধীরগতিতে হবে। তিনি বলেন, এ ধরনের গরু সারাক্ষণ নীরব থাকে, নাড়াচাড়া খুবই কম করে। গরুর পায়ুপথে রক্তের দেখা মিলতে পারে, যেহেতু ওষুধ খাওয়ানো বেশিরভাগ গরুর পাকস্থলীতে ক্ষতের সৃষ্টি হয়, এজন্য রক্ত পায়খানা হয়।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, এসব ওষুধ খাওয়ানোর ফলে পশুর কিডনি ও লিভারের কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়। ফলে শরীর থেকে পানি বের হতে পারে না। ওই পানিগুলো সরাসরি পশুর মাংসে যায়। এ কারণে আকৃতিগতভাবে গরুকে মোটা মনে হয়। তিনি আরো বলেন, তবে আসলে ওইগুলো মাংস নয়। জবাইয়ের পর পানি বের হয়ে গেলে ওই গরুর মাংস কমে যায়। এজন্য অনেক কোরবানি দাতাকে হাঁসফাঁস করতে দেখা যায়, পশুর মাংস কম হয়েছে। আসলে ওই পশুকে স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ খাওয়ানো হয়েছে।

সোনালীনিউজ/এমটিআই