বুধবার, ০১ এপ্রিল, ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬

করোনায় ব্যবসা বন্ধ, থেমে নেই এনজিও কর্মীদের কিস্তির টাকা আদায়

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২২ মার্চ ২০২০, রবিবার ০৫:৩২ পিএম

করোনায় ব্যবসা বন্ধ, থেমে নেই এনজিও কর্মীদের কিস্তির টাকা আদায়

সাতক্ষীরা : সাতক্ষীরায় আইসক্রিম বিক্রি করতে নিষেধ করেছে পুলিশ প্রশাসন। এদিকে এনজিওকর্মীরা তাদের কিস্তির টাকা নিতে আইসক্রিম বিক্রেতাদের বাড়িতে এসে বসে আছে। তারা এখন টাকা কোথায় পাবে? এভাবে দুঃখের কথাগুলো বলেছেন সাতক্ষীরার সদর উপজেলার আগড়দাড়ি ইউনিয়নের কয়েকজন আইসক্রিম ব্যবসায়ী।

ভাদড়া গ্রামের আইসক্রিম বিক্রেতা রেজাউল ইসলাম বলেন, এনজিও নওয়াবেকী ফাউন্ডেশন থেকে ৪০ হাজার টাকা তুলে আইসক্রিম ব্যবসা শুরু করেছি। এরই মধ্যে করোনা ভাইরাসের কারণে আইসক্রিম বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ। বাড়িতে থাকতে বলেছে। আইসক্রিম বিক্রি বন্ধ হয়ে গেছে। এখন টাকা নেই। সপ্তাহে এক হাজার টাকা কিস্তি। এনজিওর লোকজন বলছেন, কিস্তির টাকা দিতেই হবে, মাফ নেই।

এদিকে বিছানা পেতে, খাতাপত্র নিয়ে কিস্তির টাকা আদায় করছেন এনজিও সংস্থা নওয়াবেকী ফাউন্ডেশনের মাঠকর্মী আলমগীর হোসেন ও আগরদাড়ি শাখার ম্যানেজার মনিরুজ্জামান।

আজ রোববার দুপরে সাতক্ষীরা সদরের কুশখালি গ্রামের ভাদড়া গ্রামে দেখা যায় এমন চিত্র। কিস্তি আদায়কারী দুই এনজিওকর্মীর সামনে মোনিনুর রহমান নামের অপর একজন বলেন, মানুষের এখন কাজ নেই। আমরা টাকা দেব কিভাবে। সরকার বাড়িতে থাকতে বলেছে। এনজিওরা কিস্তি আদায় করছে। সরকারের কাছে আপাতত কিস্তি আদায় বন্ধের জন্য অনুরোধ করছি।

তবে এসব কিছু মানতে নারাজ এনজিওকর্মী আলমগীর হোসেন। তিনি বলেন, আমাদের এনজিও অফিস থেকে এখনও কোনো নির্দেশনা আসেনি। আমাদের কাজ টাকা আদায় করা, আমরা সেটা করছি। নির্দেশনা আসলে বন্ধ করে দেব।

এ বিষয়ে সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল বলেন, এনজিও পরিচালকদের সঙ্গে আমাদের এখনও চুড়ান্ত মিটিং হয়নি। তবে ইতোমধ্যে এনজিও কর্মীদের জোর করে কিস্তির টাকা আদায় করতে নিষেধ করা হয়েছে। যারা দিতে সমর্থ তারাই কেবল দিবেন। এছাড়া তাদের আপাতত এক মাস কিস্তি আদায় বন্ধ রাখার জন্য বলা হবে অতি শিঘ্রই।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue