সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬

কাশ্মীর ইস্যুতে সরকারের সময় নেয়া উচিত

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৩ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার ০৮:৫০ পিএম

কাশ্মীর ইস্যুতে সরকারের সময় নেয়া উচিত

ঢাকা : জম্মু-কাশ্মীর ইস্যু খুবই সংবেদনশীল একটি বিষয় তাই বিষয়টি নিয়ে সরকারের সময় নেয়া উচিত বলে জানিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। কাশ্মীরের একটি আঞ্চলিক দলের করা পিটিশনের প্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্ট মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) এমনটাই বলেছেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

এনডিটিভির প্রতিবেদন অনুযায়ী সুপ্রিম কোর্ট বলেছেন, ‘আমরা স্বাভাবিক অবস্থা প্রত্যাশা করি। কিন্তু এক রাতের মধ্যে সব কাজ করা যাবে না। কেউ জানে না কী হবে। সরকারের ওপরও কাউকে না কাউকে নির্ভর করতে হবে। আর এটা (কাশ্মীর) খুবই সংবেদনশীল একটি ইস্যু।’

ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল ও দুইভাগ করে দেশটির সরকার সংসদে যে বিল পাস করেছে তা চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে গত শনিবার পিটিশন দাখিল করে কাশ্মীরের আঞ্চলিক দল ন্যাশনাল কনফারেন্স।

পিটিশন দাখিলের তিনদিন পর সুপ্রিম কোর্টে এ নিয়ে প্রথম শুনানি হলো। প্রথম শুনানির পর আদালত পরবর্তী শুনানির দিন নির্ধারণে করেছেন দুই সপ্তাহ পর। গত ৫ আগস্টের পর যেসব আঞ্চলিক নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের মুক্তি দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

গত ১০ আগস্ট ন্যাশনাল কনফারেন্সের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টে পিটিশনটি দাখিল করেন দলটির জ্যেষ্ঠ নেতা ও সাংসদ মোহাম্মদ আকবর লোন এবং হাসনাইন মাহসুদ। পিটিশনে বলা হয়, ‘সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মাধ্যমে কাশ্মীর বিশেষ মর্যাদা রদের সরকারি সিদ্ধান্ত অবৈধ।’

গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় কাশ্মীর সংক্রান্ত সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের বিলটি পাস হয়। তার আগের রাতে কাশ্মীরের সাবেক দুই মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি ও ওমর আবদুল্লাহকে গ্রেফতার করা হয়। ওমর আবদুল্লাহ ন্যাশনাল কনফারেন্সের প্রধান।

পিটিশনতে বলা হচ্ছে, ‘সংবিধানের ৩৭০ (১) (ঘ) অনুচ্ছেদে জম্মু-কাশ্মীরের সংবিধানকে পাইকারিভাবে পুনস্থাপিত করার কোনো ক্ষমতা দেয়া হয়নি।’ সুপ্রিম কোর্টকে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে অনুরোধ করা হয়েছে।

পিটিশন অনুযায়ী, রাজ্যের মানুষ এবং তাদের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের (কাশ্মীরের বিধানসভা) সঙ্গে আলোচনা ও কোনো ধরনের সম্মতি না নিয়েই জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা একতরফাভাবে রদ করা হয়েছে। যার মাধ্যমে মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার এবং স্বাধীনতাকে সামান্যতম মূল্যায়ন করা হয়নি।

গত ৫ আগস্ট কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা প্রদানকারী ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকার। শুধু বিশেষ মর্যাদা বাতিল নয় কাশ্মীরকে জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখ নামে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করা হয়।

সোনালীনিউজ/এমটিআই