শুক্রবার, ২৪ মে, ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

কোন চুমুর কী মানে, জানেন?

লাইফস্টাইল ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৩ মে ২০১৯, সোমবার ১২:০০ পিএম

কোন চুমুর কী মানে, জানেন?

বলা হয় চুমুই হচ্ছে ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ। এর মাধ্যমেই গাঢ় হয় ভালোবাসা।  তাই প্রেমিক-প্রেমিকা, স্বামী-স্ত্রী বিশেষ এই চুমু খেয়ে থাকেন। কিন্তু কখনও কি ভেবে দেখেছেন কোন সময় কোথায় চুুমু দিতে হয় কিংবা কোন চুমুর কী মানে? না জেনে থাকলে এবার জেনে নিন-

পেটে চুম্বন : হাসি তামাশার ছলে পেটে চুমু খাওয়া হয়।

পায়ে চুম্বন : এই চুমুর মানে হচ্ছে-প্রেমের অবকাশে ভালোবাসার আলতো স্পর্শ।

ঠোঁটে চুম্বন : ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি, তোমাকে চাই উন্মত্তের মত’-এই চুমুর মানে।

কাঁধে চুম্বন : এই চুমুর মানে ‘আমি তোমাকে চাই’।

গলায় চুম্বন : এতে বোঝা যাবে প্রেমিক প্রেমিকা একে অপরের অন্তঃপ্রাণ।

গালে চুম্বন : চিরকালীন বন্ধুত্ব-এই চুমুর মানে।

হাতে চুম্বন : ‘ভালোবাসার পুজারি’-এই চুমুর মানে।

কানে চুম্বন : রোমান্টিকতার চূড়ান্ত পর্যায়।

কপালে চুম্বন : এই চুমুর মানে ‘তুমি সারা জীবনের জন্য আমার’।

চুমু খাওয়ার সময় কেন চোখ বন্ধ হয়ে যায়?
প্রেমের গভীর চুমু বা স্নেহের চুমুর সময় বেশির ভাগ সময়ই আমাদের চোখ বন্ধ হয়ে আসে। এবারে জেনে নিন যে কারণে চুমু খাওয়ার সময় চোখ বুঝে যায়।

দীর্ঘদিন নীরোগ থাকা, হার্ট ভাল রাখার অন্যতম উপাদান নাকি জমিয়ে চুমু খাওয়া! বহু যুগ ধরেই নানা গবেষণা এমন দাবি করছে।

গবেষকদের মতে, এই সময় মস্তিষ্কে ভালোলাগার অনুভব ছড়িয়ে পড়ে। মস্তিষ্ক একই সঙ্গে দু’টি কাজ ভালো করে করতে পারে না। তাই দর্শনেন্দ্রিয়র তুলনায় স্পর্শজনিত বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে চোখকে বন্ধ হয়ে যাওয়ার নির্দেশ পাঠায় মস্তিষ্ক।

লন্ডন ইউনিভার্সিটির মনোবিজ্ঞানীদের মতে, দৃষ্টিশক্তি ও বোধশক্তি অন্য দিকে ব্যস্ত থাকলে আমাদের সেন্সরি অর্গানরা আর কোনো ইন্দ্রিয়কে অতো গুরুত্ব দেয় না। তাই চোখ খোলা থাকলে চুমু থেকে সার্বিক আনন্দ মেলে না। জোর করে চুমু খেতে গেলে ঠিক তার উল্টো প্রতিক্রিয়া দেখায় মগজ।

যে কোনো আনন্দদায়ক বিষয়কে উপভোগ করতে গেলে চোখের পেশীরা শিথিল হয়ে যায়। তাই ভালো গান শোনা বা সুস্বাদু রান্না চেখে দেখার সময়ও চুমু খাওয়ার সময়ের মতোই চোখ বন্ধ হয়ে আসে।

ভালোবাসার মানুষের শরীরের প্রতিও স্বাভাবিক চাহিদা থাকে তার পার্টনারের। চুমুর সময় তার শরীরের গন্ধ ও ত্বকের অনুভব দ্রুত মস্তিষ্কে পৌঁছায়। হৃদগতি বেড়ে যায়। এমন সময় চোখ খোলা থাকলে এই গন্ধ ও ত্বকের স্বাদ বয়ে বেড়ানোর পথে বাধা পায় মস্তিষ্ক। তাই চোখ বন্ধ করে ভালোলাগার অনুভবকে সে ছড়িয়ে দেয় মন-শরীর জুড়ে।

মনোবিদদের মতে, চোখ বুজে চুমু খেলে উল্টো দিকের মানুষটার প্রতি আস্থা ও ভরসা প্রদর্শন করা হয়। পার্টনারের প্রতি সুসম্পর্ক থাকলে চুম্বনের সময় আমাদের মনে সেই ভাব আরও প্রকট হয়ে ওঠে। তাই চোখ বুজে যায় সহজে।

কোনো ভয় বা দুশ্চিন্তার সময় ভালোবাসার প্রকাশ আমাদের হার্টকে অনেকটা মজবুত রাখে। নিজের মানুষের প্রতি আত্মসমর্পণের উপায় খুঁজতে থাকে মন। সেই সময় চুমুর ছোঁয়া পেলে হৃদগতি বাড়ে, যৌন উদ্দীপক হরমোন ক্ষরিত হয়। এতে নিজেকে উজাড় করে দেওয়ার বা সবটুকু আনুগত্য প্রকাশ করার ইচ্ছা থেকেই চোখ বন্ধ হয়ে যায়।

আরো এক মজার কারণ এর জন্য দায়ী বলে দাবি মনোবিদদের। তাদের মতে, পাবলিক প্লেসে হোক বা বন্ধ ঘরে- চুমু এতই ব্যক্তিগত বিষয় যে তা অন্য কারও সামনে প্রকাশ করতে নারাজ অনেকেই। তাই গোপনীয়তা বজায় রাখার টেনশন এতটাই গ্রাস করে যে, এমন সময় নিজেরাও চোখ বুজে ফেলি আমরা!

সোনালীনিউজ/এইচএন