বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই, ২০২০, ১ শ্রাবণ ১৪২৭

ক্রিকেটে যেভাবে এল দিন-রাতের টেস্ট

ক্রীড়া ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৯ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার ০৯:৩৩ পিএম

ক্রিকেটে যেভাবে এল দিন-রাতের টেস্ট

ঢাকা: দক্ষিণ  আফ্রিকার বিরুদ্ধে তিন টেস্টের সিরিজে তিনটা মাঠেই কার্যত ফাঁকা গ্যালারি দেখা গিয়েছিল। সেই গ্যালারি ভরানোর জন্য দিন-রাতের টেস্টের প্রস্তাব একেবারে জাদুবলের মতো কাজ করল। সৌরভ গাঙ্গুলির এই জাদুবলের জন্যই টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে মানুষের চাহিদা একদম তুঙ্গে। ইডেন টেস্টের প্রথম তিন দিনের টিকিট শেষ হয়ে গেছে। সবাই এখন অপেক্ষায় ইডেনের ঐতিহাসিক টেস্টের সাক্ষী থাকতে।

অথচ গত বছরই দিন-রাতের টেস্ট নিয়ে কী চরম অনীহা ছিল ভারতের। তখন অবশ্য বোর্ড প্রশাসন চালাচ্ছিল সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত প্রশাসক কমিটি। তারা সাফ জানিয়ে দেয়, টেস্টের এই নতুন সংস্করণ তারা বিশ্বাস করে না। অস্ট্রেলিয়া চেয়েছিল গত বছর ভারতের বিরুদ্ধে সিরিজে অ্যাডিলেডে একটি দিন-রাতের টেস্ট খেলুক ভারত।

কিন্তু বিসিসিআইয়ের অনীহাতেই সব বানচাল হয়ে যায়। কোচ রবি শাস্ত্রীও জানিয়ে দেন, এখনই দিন-রাতের টেস্ট খেলার জন্য প্রস্তুত নয় ভারত। এই অ্যাডিলেড থেকেই যাত্রা শুরু করেছিল দিন-রাতের টেস্ট। ২০১৫ সালের নভেম্বরে ঐতিহাসিক সেই দিন-রাতের টেস্টে মুখোমুখি হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ড। মাত্র তিন দিনে শেষ হয়ে যাওয়া সেই টেস্টে কাঠখড় পুড়িয়ে জিতেছিল অস্ট্রেলিয়া। এরপর থেকে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে দিন-রাতের টেস্ট নিয়মিত ব্যাপার। সব থেকে সফল দল অস্ট্রেলিয়াই। এখনও পর্যন্ত দিন-রাতের মোট ১১টা টেস্ট হয়েছে, ইডেনেরটা হবে দ্বাদশ টেস্ট। এর মধ্যে পাঁচটা খেলেছে অস্ট্রেলিয়া এবং সবকটিতে তারাই জিতেছে।

অস্ট্রেলিয়ার দেখানো পথ প্রথম অনুসরণ করে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। ২০১৬ সালে দুবাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে দিন-রাতের টেস্ট আয়োজন করে তারা। ওই টেস্টে কিন্তু বোলারদের থেকে ব্যাটসম্যানদের দাপট অনেক বেশি ছিল। ৩০০ রান করেন পাকিস্তানের আজহার আলি। ওই টেস্টে জিতেছিল পাকিস্তান। এর পর একে একে দিন-রাতের টেস্টের তালিকায় নাম লেখাল দক্ষিণ আফ্রিকা, ইংল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ে। কিন্তু ভারতই একমাত্র প্রথম সারির টেস্ট খেলিয়ে দেশ ছিল, যাদের প্রথম থেকেই এই অনীহা। বাংলাদেশেরও অবশ্য দিন-রাতের টেস্ট খেলার কোনও অভিজ্ঞতা ছিল না। এবার দুদলই ইতিহাস তৈরি করতে যাচ্ছে ইডেনে। 

সোনালীনিউজ/আরআইবি/এমএএইচ