রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬

‘খালেদাকে জোর করে প্যারোল দেয়ার মত বেকায়দায় পড়েনি সরকার’

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৯ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার ০৬:১৮ পিএম

‘খালেদাকে জোর করে প্যারোল দেয়ার মত বেকায়দায় পড়েনি সরকার’

ঢাকা: আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে জোর করে প্যারোলে পাঠানোর মত বিপদে পড়েনি সরকার।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) সকালে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালায় 'রূপসী বাংলা জাতীয় ফটো প্রদর্শনী, প্রতিযোগিতা ও সম্মাননা প্রদান’ শীর্ষক অনুষ্ঠান এ কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানের আয়োজক বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন।

হাছান মাহমুদ বলেন, সরকার এমন কোনো বেকায়দায় পড়েনি যে খালেদা জিয়াকে জোর করে প্যারোলে মুক্তি দিতে হবে। তিনি যদি প্যারোল চান তবে সরকার ভেবে দেখতে পারে। না চাইলে কাউকে কোনোদিন প্যারোলে মুক্তি দেয়া হয় না।

বিএনপির নির্বাচিত প্রতিনিধিদের শপথ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, জনরায়কে শ্রদ্ধা জানান। যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদের উচিত শপথ নেয়া। শপথ না নিলে জনগণকে অবজ্ঞা করা হবে।

বিএনপিতে অনৈক্যের কথা তুলে ধরে হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির নেতারা বিভিন্ন সভা সমাবেশে নিজেরাই নিজেদের সম্পর্কে বিষোদগার করছেন।তাদের অনৈক্য দৃশ্যমান।

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সূচকে বাংলাদেশের চারধাপ অবনতির বিষয়ে তিনি বলেন, এগুলো ইনডিপেনডেন্ট। তারা নিজেদের মতো করে রিপোর্ট দেয়। অন্য একটি প্রতিষ্ঠান হয়তো জরিপ করে বলবে চারধাপ উন্নতি হয়েছে।

ফটোসাংবাদিকদের কাজের প্রশংসা করে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম বলেন, একটি ছবি একটি বিপ্লব ঘটাতে পারে। অনেক আলোড়ন সৃষ্টি করতে পারে। প্রতিটি ছবি ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে থাকে।

তিনি বলেন, যারা আমাদের অগ্রজ, যারা আজ বেঁচে নেই তাদের মূল্যায়ন করতে হবে। তাহলে যারা মাঠে কাজ করছেন তারাও একদিন মূল্যায়িত হবেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। বিশেষ অতিথি ছিলেন নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম।

অনুষ্ঠানে শিল্পকলা একাডেমির সচিব ড. কাজী আসাদুজ্জামান, ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক কাজল হাজরা প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

অনুষ্ঠানে তিন প্রবীণ ফটোসাংবাদিককে মরণোত্তর সম্মাননা দেয়া হয়। ফটোসাংবাদিক মোশারফ হোসেনের পক্ষে তার ছেলে এস এম গোর্কি, এস এম মোয়াজ্জেম হোসেনের পক্ষে তার ছেলে জাভেদ হোসেন ও জহিরুল হকের পক্ষে তার ছেলে হাসিব জহির সস্মাননা ক্রেস্ট গ্রহণ করেন।

সোনালীনিউজ/এমএইচএম

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue