শনিবার, ১১ জুলাই, ২০২০, ২৭ আষাঢ় ১৪২৭

খ্যাতিমান নায়িকা এখন হতদরিদ্র 

বিনোদন ডেস্ক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৮ মে ২০২০, সোমবার ০২:১৪ পিএম

খ্যাতিমান নায়িকা এখন হতদরিদ্র 

ঢাকা : চলচ্চিত্রে নতুন নতুন মুখের আগমন ঘটে প্রতিবছর। কিন্তু বছর ঘুরতেই তাদের অনেককেই খুঁজে পাওয়া যায় না। কেউ কেউ নিজ গুণে টিকতে পারেন, আবার কেউ কেউ তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে চলচ্চিত্রাঙ্গন ছেড়ে চলে যান৷ 

‘সোহরাব রুস্তম’ সিনেমাখ্যাত নায়িকা বনশ্রী। এ সিনেমার মধ্য দিয়ে ১৯৯৪ সালে চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু করেন তিনি। পরিচালক ছিলেন মমতাজ আলী। প্রথম সিনেমায় নায়ক হিসেবে পান তখনকার সুপারস্টার ইলিয়াস কাঞ্চনকে।

একই বছর মুক্তি পায় দ্বিতীয় সিনেমা ‘মহা ভূমিকম্প’। সুভাষ ঘোষ পরিচালিত এই চলচ্চিত্রে চিত্রনায়ক মান্না ও আমিন খানের বিপরীতে অভিনয় করেন বনশ্রী। নায়ক রুবেলের সঙ্গে জুটি বেঁধেও তিনি অভিনয় করেছেন। কম সময়ে খ্যাতি পেয়েছিলেন এই নায়িকা। হঠাৎ সব হারিয়ে আড়ালে চলে যান। রাস্তায় ফুল বিক্রি করে সংসার চালিয়েছেন। বর্তমানে তার অবস্থা শোচনীয়। ত্রাণ নিয়ে সংসার চালাচ্ছেন। রাতারাতি তারকা বনে যাওয়া বনশ্রী এখন হতদরিদ্র!

করোনাভাইরাসের প্রকোপ শুরু হওয়ার পর থেকেই তাকে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কাছ থেকে ত্রাণ গ্রহণ করতে দেখা যায়। এর আগে ২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে ২০ লাখ টাকার সঞ্চয়ী তহবিল গ্রহণ করেন বনশ্রী। এতে কিছুটা স্বস্তি ফিরে আসে তার জীবনে।

বর্তমানে অভাব-অনটনের মধ্য দিয়ে দিন পার করছেন বনশ্রী। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কয়েক বছর ধরে প্রতি মাসে ১৭ হাজার ৩৮০ টাকা পাচ্ছি। বাকি টাকা ট্যাক্স হিসেবে কেটে রাখা হয়। এই টাকা দিয়ে আমি বাড়ি ভাড়া দিচ্ছি। আমার ছেলের পড়াশোনা চালাচ্ছি। আমার বড় কয়েকটি অসুখ রয়েছে। তার চিকিৎসা করাতেই মাসে আট-দশ হাজার টাকা চলে যায়। প্রতি সপ্তাহে ইনসুলিন নিতে হয়। সব মিলিয়ে কোনোরকম সংসারটা টেনে নিচ্ছি। পাশাপাশি ঘরে বসেই সেলাইয়ের কাজ করছিলাম। কিন্তু করোনাভাইরাস আসার পর আর সেলাইয়ের কাজ পাই না। যে কারণে এফডিসিতে গিয়ে ত্রাণ নিতে হয়।’

বনশ্রী আরো বলেন, ‘শিল্পী সমিতি ও জায়েদ খানকে ধন্যবাদ। আমি সমিতির সদস্য না হওয়ার পরও তারা আমাকে ফোন দিয়ে ত্রাণ সংগ্রহ করতে বলেন।’

সোনালীনিউজ/এএস

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue