সোমবার, ১৪ অক্টোবর, ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

গ্যাস সংকটের সমাধান কোন পথে 

সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ২০ ডিসেম্বর ২০১৬, মঙ্গলবার ০৯:৪৩ এএম

গ্যাস সংকটের সমাধান কোন পথে 

শীত এলেই দেশে তৈরি হয় গ্যাস সংকট। আর তাতে সব থেকে বেশি ভোগান্তিতে পড়ে নগরীর রান্নাঘরের বাসিন্দারা। বিকল্প কম থাকায় রাজধানীতে এই সংকট তীব্র হয়। অসহনীয় হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। এবারের শীতেও এর ব্যত্যয় হয়নি। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রাজধানীর বেশিরভাগ এলাকায় ঠিকমতো চুলা জ্বলে না। জ্বললেও গ্যাসের চাপ একেবারেই কম। ফলে অনেক পরিবারকেই রান্না করতে হচ্ছে গভীর রাতে। এবং করতে হয়। এ পরিস্থিতিতে যাদের বিকল্প আছে, তারা রান্না করছেন কেরোসিন ও লাকড়ির চুলায়। 

বিশেষজ্ঞদের মতে, দেশের বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোয় বেশি গ্যাস দেয়ার কারণে এ সংকট সৃষ্টি হয়েছে। তবে শীতও একটি কারণ। কেননা এই সময়ে সাধারণভাবেই গ্যাসের চাপ কিছুটা কম থাকে। এ সমস্যার সমাধান জরুরি। মনে রাখতে হবে নাগরিকসেবায় বিদ্যুৎ যেমন অপরিহার্য, তেমনই গ্যাসও। অতএব কোনোটাকেই অবহেলা করার সুযোগ নেই। বরং উভয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে, যাতে মানুষের দুর্ভোগ লাঘব হয়।   
  
এ সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো কার্যকর উদ্যোগ নজরে পড়ছে না। অথচ জনদুর্ভোগ বেড়েই চলেছে। ঢাকা দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ আবাসিক ও বাণিজ্যিক অঞ্চল। এখানে গ্যাস সংকট অব্যাহত থাকলে একদিকে যেমন জনদুর্ভোগ বৃদ্ধি পাবে, অন্যদিকে কল-কারখানার উৎপাদন হ্রাস পাবে, যা দেশের জন্য মঙ্গল বয়ে আনবে না। কর্তৃপক্ষের যে করেই হোক রাজধানীতে গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে হবে। মনে রাখতে হবে- রাজধানীতে গৃহস্থালি কাজে ব্যবহৃত প্রধান জ্বালানি হচ্ছে গ্যাস। বর্তমান প্রেক্ষাপটে গ্যাস শুধু শিল্প-কারখানাগুলোতেই নয়; বরং বাসাবাড়িতেও প্রতিদিন ব্যবহৃত হচ্ছে। বিশেষ করে ঢাকা মহানগরীতে গ্যাস ছাড়া জীবনযাপন চিন্তাও করা যায় না। ফলে গ্যাস সরবরাহ বারবার বিঘ্নিত হলে জনজীবনে চরম দুর্ভোগ নেমে আসবে। তিতাসের তথ্যানুযায়ী, রাজধানীতে তাদের আওতাধীন এলাকায় দৈনিক গ্যাসের চাহিদা প্রায় ১৫০ কোটি ঘনফুটের মতো। এর মধ্যে ১৩০ কোটি ঘনফুটের মতো সরবরাহ পাওয়া যায়। এতে বোঝা যায়, উৎপাদন আর চাহিদার পার্থক্যের বিষয়টি। কিন্তু যেভাবেই হোক এ পার্থক্য ঘোচানোর চেষ্টা করতে হবে। পাশাপাশি আঞ্চলিক ও বাণিজ্যিক গুরুত্ব বিবেচনা করে গ্যাস সরবরাহের লাইন আরো বাড়াতে হবে। একই সঙ্গে নতুন নতুন গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কারের বিষয়টিও সরকারকে ভাবতে হবে। 

বাণিজ্যিক কারণেই হোক আর আবাসিক গ্রাহকদের জন্যই হোক- গ্যাসের কোনো বিকল্প নেই। এর উপযোগিতা ও চাহিদার কথা চিন্তা করে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণই এ মুহূর্তে প্রয়োজন। এ ব্যাপারে অবহেলা বা উদাসীনতার কোনো সুযোগ নেই। তাতে জনজীবনেই কেবল দুর্ভোগ নেমে আসবে না, দেশের অর্থনীতিতেও  নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। 

সোনালীনিউজ/ঢাকা