রবিবার, ১৬ জুন, ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬

ছাত্রদল তালা দেওয়ার পরও লজ্জা হয় না : নানক

নিজস্ব প্রতিবেদক | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১৩ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার ০২:১৮ পিএম

ছাত্রদল তালা দেওয়ার পরও লজ্জা হয় না : নানক

ঢাকা : বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় দলটির ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন ছাত্রদলের তালা দেওয়ার পরেও তাদের লজ্জা হয় না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক।

বুধবার (১২ জুন) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ‘শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস’ উপলক্ষে যুবলীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি।

নানক বলেন, ‘বিএনপির নেতাদের ছত্রছায়ায় ছাত্রদলের ছেলেরা বিএনপির অফিসেই তালা দিয়েছে, তারপরও আপনাদের লজ্জা হয় না।’

প্রসঙ্গত মঙ্গলবার (১১ জুন) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে বয়সসীমা বাতিলের দাবিতে তালা ঝুলিয়ে দেয় সংগঠনটির বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা। আর এ ঘটনাকে কেন্দ্র করেই বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এই মন্তব্য করেন।

জামায়াতের কারণেই বিএনপিকে জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে বলে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক বলেছেন, এতেও আপনাদের শিক্ষা হয়নি। জামায়াতকে দিয়েই বিএনপির কবর রচনা হয়েছে এবং চূড়ান্ত কবরও রচনা হবে।

একাত্তরের পরাজিত জামায়াত ইসলাম ও জিয়াউর রহমান আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করে দিতে চেয়েছিল বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, শুধু নিশ্চিহ্ন করতেই চায়নি, আওয়ামী লীগকে খন্ড-বিখন্ড করার অপচেষ্টাও চালিয়েছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগের কর্মীরা কখনও ভুল সিদ্ধান্ত নেয়নি।

সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলে শেখ হাসিনার মুক্তি আন্দোলনের কথা তুলে ধরে নানক বলেন, ওই সময় ঢাকায় আত্মগোপনে থেকে নেত্রীর মুক্তি আন্দোলন চালিয়ে গেছেন যুবলীগ নেতাকর্মীরা।

তিনি বলেন, সে সময় আমরা যুবলীগের অফিসে ভিন্নতা সৃষ্টি করেছিলাম। যারা আজকে যুবলীগের নেতৃত্ব দিচ্ছে তাদের নিয়ে সে সময়ে আমরা অসাধ্যকে সাধন করতে পেরেছিলাম। প্রত্যেকটি যুবলীগের নেতা-কর্মী সে সময় কঠিন অবদান রেখেছে।

এক-এগারোর ঘটনার সময় আমরা দেশত্যাগ করিনি বলে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ঢাকা শহরের বিভিন্ন জায়গায় আত্মগোপনে ছিলাম। বর্তমান যুবলীগের চেয়ারম্যান সেই সময়ে নেত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও পরামর্শগুলো আমাদের কাছে পৌঁছে দিতেন।

যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং প্রচার সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ বাবলুর পরিচালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মির্জা আজম, যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. হারুন অর রশীদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা, ঢাকা উত্তর যুবলীগের সভাপতি মইনুল হোসেন খান নিখিল ও সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন।

সোনালীনিউজ/এমটিআই