শনিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

ছাত্রলীগ নেতার নিয়ন্ত্রণে অবৈধ পশুর হাট, বন্ধে ব্যর্থ প্রশাসন

বিশেষ প্রতিনিধি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ০৭ আগস্ট ২০১৯, বুধবার ০৮:৫৩ পিএম

ছাত্রলীগ নেতার নিয়ন্ত্রণে অবৈধ পশুর হাট, বন্ধে ব্যর্থ প্রশাসন

ঢাকা: সরকারের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও সাভার উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতির নিয়ন্ত্রণে সাভারের উলাইল এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে গড়ে ওঠা অস্থায়ী কোরবানির পশুর হাট পরিচালিত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

এদিকে দফায় দফায় উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মহাসড়কের পাশে গড়ে তোলা এই হাট বন্ধে অভিযান পরিচালনার কথা বলা হলেও এখন পর্যন্ত এই অবৈধ এই হাটটি বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, দফায় দফায় হাটটি বন্ধে অভিযানে গেলেও হাটে গিয়ে সংশ্লিষ্ট কাউকে খুজে না পেয়ে সতর্ক করেই ফিরে আসতে বাধ্য হচ্ছেন তারা।

এ বিষয়ে সাভার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: আব্দুল্লাহ আল মাহফুজ বলেন, "মঙ্গলবার (৬ জুলাই) জেলা প্রশাসন থেকে নির্দেশনা পাওয়ার পর থেকেই আমরা চিঠি দেওয়ার পাশাপাশি কয়েক দফায় হাটটি বন্ধে অভিযান চালিয়েছি। কিন্তু আমরা যখনই অভিযানে যাচ্ছি, তখন দু একজন শ্রমিক ছাড়া আর কাউকে খুজে পাওয়া যাচ্ছে না। যার কারনে বাধ্য হয়েই আমাদের সতর্ক করে ফিরে আসতে হচ্ছে। সর্বশেষ আজ (৭ জুলাই) দুপুরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে আমি আবারো অভিযানে যাই। তবে হাট সংশ্লিষ্ট কাউকে না পেয়ে হাটের প্রচারণায় ব্যবহৃত মাইক, হাসিলের চালান জব্দ করে হাট পরিচালনা করলে পরবর্তীতে জেল জরিমানা করা হবে বলে সতর্ক করে আসি।"

এদিকে, উপজেলা প্রশাসনের এই কর্মকর্তা হাটটিতে গিয়ে কাউকে না পাওয়ার কথা জানালেও হাটে এই কর্মকর্তা উপস্থিত থাকার সময় তার আশেপাশে সাভার উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমানসহ আরও বেশ কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী হাটে কেন অবস্থান করেছিলো এমন প্রশ্নে প্রশাসনের এই কর্মকর্তা বলেন, "সেখানে যারা ছিলো তাদের মধ্যে ছাত্রলীগের কেউ ছিলো কিনা তা আমার জানা নেই। তবে যারা ছিলো জানতে চাইলে তারা নিজেদের দর্শক বলে দাবি করে।"

তবে প্রশাসনের এই কর্মকর্তা অবৈধ এই পশুর হাট থেকে প্রচারণায় ব্যবহৃত মাইক ও হাসিলের কাগজ জব্দ করার কথা বললেও অভিযানের সময় উপস্থিত প্রত্যক্ষদর্শীরা হাট থেকে মাইক জব্দ করা হয়নি বলে জানান।

এর আগে গত সোমবার বিকালে (৫ জুলাই) অবৈধ এই পশুর হাটটি প্রসঙ্গে এর কথিত ইজারাদার সাইফুর রহমান সুমনের সাথে কথা বলতে হাটে গেলে সেখানে হাসিলঘরে থাকা উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, "আমিই সুমন, যা বলার আমাকে বলেন"।

এসময় উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতির কাছে হাটের বৈধতা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি হাটটি জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে ইজারা নেওয়া হয়েছে বলে জানান। তবে ইজারার বৈধ কোন কাগজ তিনি সাংবাদিকদের দেখাতে পারেননি।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, বিগত বছরগুলোতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে অবস্থিত এই হাটটি পৌরসভা কর্তৃক প্রায় কোটি টাকা মূল্যে ইজারা দেওয়া হলেও এবছর জেলা প্রশাসনের অনুমতি না পাওয়ায় কোন ইজারা ছাড়াই স্থানীয় এক প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতার ছত্রছায়ায় বর্তমান উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আতিকুর রহমান এই হাটটি পরিচালনা করছে। মাঝ থেকে ইজারা না হওয়ায় অন্তত অর্ধকোটি টাকা রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হলো সরকার।

অপরদিকে, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দফায় দফায় অবৈধ এই পশুর হাট বন্ধে অভিযান পরিচালনা করার পরেও হাটটি বন্ধ না হওয়ায় স্থানীয় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে।

সোনালীনিউজ/এমএএইচ