শুক্রবার, ২৩ আগস্ট, ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

জবিতে স্বরস্বতী পূজার আতিশয্যপূর্ণ আয়োজন

মাহমুদ হোসেন, জবি | সোনালীনিউজ ডটকম
আপডেট: ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, সোমবার ১০:৫৭ এএম

জবিতে স্বরস্বতী পূজার আতিশয্যপূর্ণ আয়োজন

ঢাকা : বাংলা মাঘ মাসের পঞ্চমী তিথিতে এটি অনুষ্ঠিত হয়।  স্বরস্বতী পূজার আড়ম্বর আয়োজন করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি)।

রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯টা থেকে আয়োজিত এই পূজায় অংশ নেন সনাতন ধর্মালম্বী শিক্ষার্থী ও শিক্ষক-শিক্ষিকরা এবং কর্মচারীবৃন্দ। পূজা উপলক্ষে প্রতিটি বিভাগের সামনে স্থাপন করা হয়েছে মণ্ড । প্রতিটি বিভাগের শিক্ষার্থীরা ব্যাপক উৎসাহ নিয়ে অংশ  গ্রহণ করছে বিদ্যাদেবীর এ পূজায়। শিক্ষা, সংগীত ও শিল্পকলায় সফলতার আশায় সনাতন ধর্মালম্বী শিক্ষার্থীরা দেবীর পূজা অর্চনা করেছে। হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন, সরস্বতী বিদ্যা, বাণী ও সুরের অধিষ্ঠাত্রী দেবী। মাঘ মাসের শুক্লপক্ষের পঞ্চমী তিথিতে সাদা রাজহাঁসে চেপে দেবী সরস্বতী জগতে আসেন।

ক্যাম্পাসে  পূজা আয়োজনের অন্যতম সংগঠক জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী এবং ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নিউটন হাওলাদার ‘জ্ঞানচর্চার ক্ষেত্রে বাণী অর্চনার এই আবহ অম্লান হোক’ কামনা করে বলেন, জ্ঞানালোকে উদ্ভাসিত হয়ে দেশের প্রতিটি মানুষ অসাম্প্রদায়িকতা, মূর্খতা কূপমন্ডুকতা আর অকল্যাণকর সকল বাধা পেরিয়ে একটি উন্নত সমাজ গঠনে এগিয়ে আসবে-এটাই সকলের প্রত্যাশা। আমাদের মূল লক্ষ্য হলো বাংলাদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে গড়ে তোলা। তাই এই পূজা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ।

পূজায় আসা পরিসংখ্যান বিভাগের ১৩তম ব্যাচের  শিক্ষার্থী সেতু রয়  বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হিসেবে আমাদের মাঝে কোনো ধরনের ধর্মীয় ভেদাভেদ থাকা উচিত নয়।

 আইন বিভাগের ৪র্থ বর্ষের ছাত্র নাহিদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় একটি সার্বজনীন ও সর্বজনীন স্থান। এখানে ধর্মীয় সম্প্রীতি বজায় থাকবে এটাই স্বাভাবিক। কেউ কারো ধর্মে হস্তক্ষেপ না করার শিক্ষাই এ পূজা বিশেষ গুরুত্ব বহন করে।

পূজা আয়োজনের বিষয়ে জানাতে চাইলে গৌরাঙ্গ রায়  বলেন, আমরা পূজার আয়োজন করেছি যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ বজায় থাকে। এই পূজার মাধ্যমে ছাত্র- ছাত্রীরা জ্ঞান অর্জনে সচেষ্ট হবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

এ পূজায় আপনারা কি প্রত্যাশা করেন জানতে চাইলে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়াম্যান ও পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. অরুণ কুমার গোস্বামী বলেন, আমরা মনে করি এই পূজার মাধ্যেমে প্রমাণিত হয় যে, বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ। এখানে কোনো ধরনের ধর্মীয় বিদ্বেষ থাকতে পারে না। এই পূজার মাধ্যমে আমরা ছাত্রদের কাছ থেকে বিদ্যাদেবীর যে আদর্শ তাই আশা করি। যাতে তারা বিদ্যা অর্জনে দেবী স্বরস্বতীর আদর্শকে অনুসরণ করে।

আইন শৃঙ্খলার বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে সহকারী প্রক্টর ড.মোস্তফা কামাল বলেন, বরাবরের মতো এবারো আমাদের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা থাকবে। আমরা পুলিশ ও প্রক্টরিয়াল বডি নিয়ে সার্বক্ষণিক তদারকির মধ্যে থাকবে। আইন লঙ্ঘন করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

পূজার বিষয়টি নিয়ে জবি উপাচার্য অধ্যাপক ড.মীজানুর রহমান বলেন, এবারো আমরা পূজায়  প্রতিটি বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছি যাতে সর্বোচ্চ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য  নিয়ে পালন করা হয়। আমাদের এখানে জায়গার তুলনায় বিভাগ সংখ্যা অনেক বেশি থাকায় একটু বেশি সতর্ক থাকতে হবে। আর এই পূজা যেহেতু পুরানো ঢাকার সকল প্রতিষ্ঠানকে সাথে নিয়ে পালন করা হবে তাই এখানে সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। তবে যদি কেউ রং নিয়ে মাতামাতি করে তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হবে।

শাস্ত্রথেকে জানা যায়,বাকদেবী, বিরাজ, সারদা, ব্রাহ্মী, শতরূপা, মহাশ্বেতা, পৃথুধর, বকেশ্বরী সহ আরো অনেক নামেই দেবী ভক্তের হৃদয়ে বিরাজ করে। সরস্বতী হলেন জ্ঞান, বিদ্যা, সংস্কৃতি ও শুদ্ধতার দেবী। সৌম্যাবয়ব, শুভ্র বসন, হংস-সম্বলিত, পুস্তক ও বীণা ধারিণী এই দেবী বাঙালির মানসলোকে এমন এক প্রতিমূর্তিতে বিরাজিত, যেখানে কোনো অন্ধকার নেই, নেই অজ্ঞানতা বা সংস্কারের কালো ছায়া।

দেবী স্বরস্বতী হলেন, শুভ্রবর্ণ। তার এই শুভ্রবর্ণ শুচিতা, শুভ্রতা, শুদ্ধতা ও পবিত্রতার প্রতীক; যা আমাদের মনকে শুচি, শুভ্র ও শুদ্ধ রাখার নির্দেশ দিচ্ছে। সরস্বতী দেবী হংসবাহনা। হংসের একটি বিচিত্রতা আছে। হংসকে দুধ ও জলের মিশ্রণ খেতে দিলে সে অনায়াসে জল রেখে সারবস্তু দুধ গ্রহণ করে। সার ও অসার মিশ্রিত এই জগৎ সংসারে মানুষ যেন সারবস্তু গ্রহণ করে এ নির্দেশই হংসবাহনতায় প্রকাশিত।

দেবীর হাতের পুস্তক জ্ঞানর্চ্চার প্রতীক। জ্ঞানের মতো পবিত্র এ জগতে আর কিছুই নেই। এই জ্ঞান সব যোগের পরিপক্ব ফল। সরস্বতী মায়ের হাতের বীণা সঙ্গীতবিদ্যার প্রতীক। মনের ভাব প্রকাশ হয় ভাষায় আর প্রাণের ভাব প্রকাশ পায় সুরে। সুর মানুষকে বিমোহিত করে।

সোনালীনিউজ/এমটিআই

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন

Get it on google play Get it on apple store
Sonali Tissue